১৬ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

মূকাভিনয় উৎসবের সমাপনী


মূকাভিনয় উৎসবের সমাপনী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ প্যান্টোমাইম মুভমেন্টের ‘মূকাভিনয় উৎসব-২০১৫’ শেষ হয়েছে। দলের আলোচিত মূক নাটক ‘প্রাচ্য’ মঞ্চায়নের মাধ্যমে ‘নির্বাকতার মুখরতায় প্রতিষ্ঠার বিশ বছর’ সেøøাগানে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার স্টুডিও থিয়েটার হলে ২২-২৪ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হয় জমকালো এ নাট্যোৎসব। এ উৎসবকে ঘিরে বর্ণিল সাজে সাজানো হয় আয়োজনস্থল। ২২ অক্টোবর সন্ধ্যায় উৎসব উদ্বোধনীতে প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির সভাপতি সিমিন হোসেন রিমি। বিশেষ অতিথি ছিলেন শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী, গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সেক্রেটারি আকতারুজ্জামান এবং মাইম ফেডারেশনের সভাপতি জাহিদ রিপন। উৎসবের প্রথম দিন একক ও দ্বৈত মূকাভিনয় পরিবেশন করেন রাজ ঘোষ, শহিদুল বশর মুরাদ ও জোবায়েদ রানা। দ্বিতীয় দিন পরিবেশিত হয় রিজোয়ান রাজনের রচনা ও নির্দেশনায় মাইমোড্রামা ‘এ্যান ইনোসেন্ট ডেথ’। একই আবহে সমাপনী দিনে প্রদর্শিত হয় নাট্যাচার্য সেলিম আল দীনের রচনা ও রিজোয়ান রাজন নির্দেশিত দর্শকনন্দিত মূকনাটক ‘প্রাচ্য’। এছাড়াও ছিল কর্মশালা, মূকালোকচিত্র ও পোস্টার প্রদর্শনীসহ নানাবিধ আয়োজন। উৎসবের প্রথম দিন প্রদান করা হয় মার্সেল মার্সো সম্মাননা, দ্বিতীয় দিন শ্রেষ্ঠ মূকাভিনয়কর্মী সম্মাননা এবং শেষ দিন দেয়া হয় প্যান্টোমাইম মুভমেন্ট সম্মাননা স্মারক। সব মিলে ব্যাপক দর্শক সমাগমে আয়োজনটি ছিল বৈচিত্র্যমুখর। প্রসঙ্গত, বন্দরনগরী চট্টগ্রামের নন্দিত এ মাইমদলটি ১৯৯৫ সালের ১৪ এপ্রিল যাত্রা শুরু করে। প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকেই তারুণ্যের জয়গানে যেমন মূকাভিনয় শিল্পকে আন্দোলনের মন্ত্রে মুগ্ধ করেছিল আজও নবতারুণ্যে অগণিত দর্শকদের বিনোদন দিয়ে আসছে দলটি। মূকাভিনয় চর্চাকে বৃহত্তর পরিসরে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যেই ঢাকায় এ আয়োজনের অন্যতম উদ্দেশ্য বলে জানিয়েছেন প্যান্টোমাইম মুভমেন্টের দলপ্রধান রেজওয়ান রাজন।