২৩ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

শীতে কোন্ তেল কখন মাখবেন


শীতকালটা শরীর মেরামতির সময়। এ সময় অনেকেই বেশ আয়েশ করে তেল মাখেন, শিশুদেরও মাখান, মেখে অনেকক্ষণ ধরে রোদে শুইয়ে রাখেন। বছরের অন্য সময়ে তেল না মাখলেও এই শীতকালটা একটু-আধটু তেল মাখা ভাল। এর ফলে শরীরে ম্যাসাজ হয়, রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক থাকে। তবে রোদে ফেলে শিশুকে পোড়ানো কখনই ঠিক নয়। এই শীতকালের রোদেও কিন্তু ত্বকের পক্ষে ক্ষতিকর আলট্রাভায়োলেট রশ্মি থাকে। কাজেই এ সময় বেশিক্ষণ রোদে ঘোরাঘুরি করতে গেলে সানস্ক্রিন লোশন অবশ্যই ব্যবহার করবেন।

কোন্ তেল মাখবেন এই শীতকালে? বিশেষজ্ঞদের মতানুযায়ী নারকেল তেল এবং অলিভ অয়েল ত্বকের পক্ষে মোটামুটি ভাল। খাঁটি সরিষার তেল বড়দের চললেও শিশুর কোমল ত্বকে না লাগানোই ভাল। তবে যে তেলই মাখুন, তা যেন পরিমাণে অল্প হয়। অতিরিক্ত তেল আমাদের ত্বকের অসংখ্য ঘর্মছিদ্র বা সোয়েট পোরের মুখ বন্ধ করে দেয়, ফলে দেহের অতিরিক্ত তাপ, পানি, বর্জ্য পদার্থ ত্বকের বাইরে আসতে পারে না। এর ফলে ত্বকে প্রদাহ দেখা দিতে পারে।

কখন মাখবেন তেল? গোসলের আগে না পরে? এ নিয়ে দু’রকম মতামত রয়েছে বিশেষজ্ঞদের এবং দু’টোর পেছনেই যুক্তি আছে। যাঁরা খুব শীতকাতুরে তাঁরা যদি গোসলের আগে ভাল করে তেল মাখেন, তা হলে তাঁদের ভাল ম্যাসাজ হয়, দেহের তাপমাত্রা বাড়ে এবং গোসলের সময় ঠা-া কম লাগে। এ ছাড়া তেলের প্রলেপ পানিকে সরাসরি ত্বকের সংস্পর্শে আসতে দেয় না। কিন্তু গোসলের পর গায়ে অল্প পানি থাকা অবস্থায় তেল মাখলে সেটা খুব ভাল ময়েশ্চারাইজারের কাজও করে। অনেকক্ষণ ত্বকে পানি ধরে রেখে চট করে ত্বককে শুকনো হতে দেয় না। যাঁদের তেল পছন্দ নয়, তাঁরা গোসলের পর কোন ময়েশ্চারাইজার লোশন বা কোল্ড ক্রিম লাগিয়েও ত্বকের যতœ করতে পারেন।

অনেকে শীতকালে নাকে কানে তেল দেন। নাকে তেল দিলে সেটা প্রতিরক্ষাবর্মর কাজ করে। শ্বাসপথে বাতাসে ভেসে বেড়ানো রোগজীবাণুকে সহজে ঢুকতে দেয় না। তাছাড়া ময়েশ্চারাইজারের কাজ করে নাকের শ্লেষ্মাপর্দাকে শুকিয়ে যেতে দেয় না। কানে অসংখ্য তৈলগ্রন্থি থাকে, যেগুলো কানকে এমনিই তৈলাক্ত রাখে। কাজেই কানে অতিরিক্ত তেল দেয়ার কোন প্রয়োজনই নেই।