মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৯ আশ্বিন ১৪২৪, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

চট্টগ্রামে বাড়তি দামে চামড়া কিনে বিপাকে ব্যবসায়ীরা

প্রকাশিত : ২৬ অক্টোবর ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ বাড়তি দামে কোরবানির পশুর চামড়া কিনে বিপাকে পড়েছেন চট্টগ্রামের চামড়া ব্যবসায়ীরা। বর্গফুট প্রতি সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে মাঠ পর্যায়ে বেশি দামে চামড়া ক্রয় করায় কোরবানির ঈদের একমাস পার হওয়ার পরও তা বিক্রি করা যাচ্ছে না। বাড়তি দামে চামড়া কেনায় ঢাকার টেনারি মালিকদের তেমন আগ্রহ নেই।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন কাঁচা চামড়া আড়তদার সমিতির সাবেক সভাপতি মুসলিম উদ্দিন জানান, ‘এবার এক মাস পার হতে শুরু করলেও কোরবানির চামড়া বিক্রি করা সম্ভব হচ্ছে না। ঢাকার ব্যবসায়ীরা না আসায় একমাসেও সংগ্রহ করা চামড়ার অর্ধেকও বিক্রি হয়নি। সর্বশেষ গত সপ্তাহে মাত্র দেড় লাখ পিস চামড়া বিক্রি হয়েছে।’ তিনি আরও জানান, ‘অন্যান্য বছর চট্টগ্রাম পাঁচ লাখ থেকে সাড়ে পাঁচ লাখ চামড়া সংগ্রহ করা হতো। এবার মাত্র সাড়ে তিন লাখ চামড়া সংগ্রহ করা হয়েছে। স্বল্প পরিমাণ এ চামড়াও এবার বিক্রি করতে আমাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। অনেকে বাধ্য হয়ে কেনা দামে বিক্রি করে দিচ্ছেন।’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এবার সরকার লবণ দিয়ে রাখা প্রতি বর্গফুট চামড়ার দাম নির্ধারণ করে ৪০/৪৫ টাকা। কিন্তু চট্টগ্রামের চামড়া ব্যবসায়ীরা চামড়া সংগ্রহ করেন ৭০/৭৫ টাকায়। সারাবছর চামড়ার ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত না থাকা অনভিজ্ঞ মৌসুমি ব্যবসায়ীরা মাঠ পর্যায় থেকে বেশি দাম দিয়ে চামড়া সংগ্রহ করায় আড়তদারদের বেশি দামে চামড়া কিনতে হয়েছে। তাই তারা এখন কম দামে চামড়া বিক্রি করতে পারছেন না। নগরীর আঁতুরার ডিপু থেকে বড়দীঘি পর্যন্ত বেশ কয়েকটি আড়ত ঘুরে দেখা গেছে। আড়তগুলোতে চামড়ার স্তূপ পড়ে আছে। বিক্রেতা না থাকায় ক্রেতারা হতাশায় আড়তে আসছেন না। জানা গেছে, অন্যান্য বছর তিন থেকে সাড়ে তিন লাখ চামড়া সংগ্রহ করা হলেও এবার মাত্র আড়াই লাখ চামড়া সংগ্রহ করা হয়েছে। কিন্তু এ চামড়াও বিক্রি করা যাচ্ছে না। তবে নানা কারণে এবার সরকার নির্ধারিত দামের অতিরিক্ত টাকায় চামড়া কিনেছেন আড়তদাররা। তারা বিনিয়োগ করেছেন প্রক্রিয়াজাতকরণেও। তাই ন্যায্য দাম পাওয়া নিয়ে কাটছে না দুশ্চিন্তা।

প্রকাশিত : ২৬ অক্টোবর ২০১৫

২৬/১০/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: