১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

আবারও তিন সেঞ্চুরির রেকর্ড দ.আফ্রিকার


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ওয়ানডেতে রান-বন্যা আর দক্ষিন আফ্রিকা যেন একে অন্যের পরিপুরক! ক্রিকেট বিশ্ব আরও একবার সেটি দেখল। এবার মুম্বাইর ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়াম মাতালেন ‘থ্রি ডি’ এবি ডিভিলয়ার্স, কুইন্টন ডি’কক, ফ্যাফ ডুপ্লেসিসদের ব্যাটে ছুটল রানের ফোয়ারা! তিন তারকার অনবদ্য তিন সেঞ্চুরির সুবাদে ভারতের বিপক্ষে সিরিজ নির্ধারনী পঞ্চম ও শেষ ওয়ানডেতে নিজেদের রেকর্ডেই নিজেরাই ভাগ বসাল প্রোটিয়ারা। টস জিতে ব্যটিং নেয়া দক্ষিন আফ্রিকা নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৪ উইকটে তুলল ৪৩৮ রান। ওয়াংখেড়ে এটাই দলীয় সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড। সর্বোপরি ওয়ানডে ইতিহাসের তৃতীয় সর্বোচ্চ। পঞ্চাশ ওভারের ম্যাচে দলীয় সর্বোচ্চ ছয় ইনিংসের চারটিতেই এখন প্রোটিয়াদের নাম!

সেঞ্চুরি-রান, চার-ছক্কার নেশা যেন পেয়ে বসেছিল ডি’কক-ডি ভিলিয়ার্সদের। ভারতীয় বোলারদের নিয়ে ছেলেখেলাই করলেন অতিথি সব উইলোবাজ। প্রথমে ডি’কক, এরপর ডুপ্লেসিস, সবশেষে অধিনায়ক ডি ভিরিয়ার্স। ওয়াংখেড়ে তিন প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানই হাকালেন সেঞ্চুরি। এটি ইতিহাসের ৩৭০০ নম্বর ওয়ানডে। একই ইনিংসে তিন ব্যাটসম্যানের সেঞ্চুরির ঘটনার এর আগে একবারই ঘটেছিল। গত জানুয়ারিতে দক্ষিন আফ্রিকারই তিন ব্যাটসম্যান সেঞ্চুরি করেন। সেবারও এই কীর্তির ভাগীদার ছিলেন ডি ভিলিয়ার্স। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সেই ম্যাচে প্রথম তিন ব্যাটসম্যান হাসিম আমলা, রাইলি রুশো আর ডি ভিলিয়ার্স। পার্থক্য আজ প্রথম চারজনের তিন জন। ডি’কক ৮৭ বলে ১০৯, ডুপ্লেসিস ১১৫ বলে ১৩৩ (অবসর)।

ঘরের মাঠে ওই ম্যাচে সেঞ্চুরিরর পথে রীতিমতো সুনামি তুলেছিলেন ডি ভিলিয়ার্স। গড়েছিলেন ৩১ বলে দ্রুততম সেঞ্চুরির নতুন রেকর্ডও। ওয়াংখেড়ে কিছুট ‘ধীর’ গতি, ৫৭ বলে এই যা! আউট হয়েছেন ৬১ বলে ১১৯ রান করে। ইনিংসে সর্বাধিক তিন সেঞ্চুরির এই ম্যাচে আরও একটি রেকর্ড গড়েছে প্রোটিয়ারা। সেটি সর্বোচ্চ বাউন্ডারির। কেবল চার আর ছক্কা থেকেই এসেছে ২৭২ রানÑ চার ৩৮ ও ছক্কা ২০টি। আগের রেকর্ডটি ছিল শ্রীলঙ্কার। ১৯৯৬ বিশ্বকাপে কেনিয়ার বিপক্ষে বাউন্ডারির সাহায্যে লঙ্কান ব্যাটসম্যানরা তুলে নিয়েছিলেন ২৫৬ রান। প্রতিপক্ষ ভারতের ভাগ্য ভাল যে আরও একটি ছক্কা হয়নি। ৪৩৮Ñএ ৫০ ওভার ফুরিয়ে গেছে ডি ভিলিয়ার্সদের। নইলে ওয়ানডের সর্বোচ্চ দলীয় রানের রেকর্ডটাও হয়ে যেত!

ওয়ানডেতে দলীয় সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডটা শ্রীলঙ্কার দখলে। ২০০৬ সালে এমস্টিলভিনে হল্যান্ডের বিপক্ষে ৯ উইকেটে ৪৪৩ রান করেছিল লঙ্কানরা। রেকর্ড বইয়ে পরের চারটি স্থানে তিনটিতেই রয়েছে দক্ষিন আফ্রিকা। ৪৩৯/২, ৪৩৮/৯ ও কালকের ৪৩৮/৪Ñ যথাক্রমে উইন্ডিজ (২০১৫), অস্ট্রেলিয়া (২০০৬) ও ভারতের বিপক্ষে (২০১৫)। ম্যাচে তিন তারকার দাপুটে সেঞ্চুরির কাছে ম্লান হয়ে গেছে আরেক তারকা হাসিম আমলার দারুণ এক কীর্তি। ওয়ানডে ক্রিকেটে সবচেয়ে কম ইনিংসে ৬ হাজার রানের মাইলফলক অতিক্রম করে নতুন রেকর্ড গড়েছেন প্রোটিয়া ওপেনার। আমলা পেছনে ফেলেছেন প্রতিপক্ষ ভারতীয় ব্যটসম্যান বিরাট কোহলিকে। ওয়াংখেড়ে কাল ১৩ বলে ২৩ রান করে আউট হওয়ার পথে ৬ হাজার রান পূর্ণ করেন আমলা। দক্ষিন আফ্রিকা টেস্ট অধিনায়কের এটি ১২৩তম ইনিংস। ৫ হাজার থেকে ৬ হাজারÑ এই ১ হাজার রান করতে মাত্র ২২টি ইনিংস খেললেন প্রোটিয়া উইলোবাজ। ৬ হাজার রান পেতে কোহলিকে খেলতে হয়েছিল ১৩৬ ইনিংস। গত বছর ওয়েস্ট ইন্ডিজ কিংবদন্তী স্যার ভিভ রিচার্ডসকে (১৪১ ইনিংস) টপকে ওই রেকর্ড গড়েছিলেন ক্রেজি কোহলি।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: