১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৬ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

স্বতন্ত্র বেতন স্কেল দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের কর্মবিরতি


স্বতন্ত্র বেতন স্কেল দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের কর্মবিরতি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ অষ্টম বেতন কাঠামো পুনর্বিবেচনা ও স্বতন্ত্র বেতন স্কেলের দাবিতে মঙ্গলবার সর্বাত্মক কর্ম বিরতি পালন করেছেন দেশের সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী দেশের ৩৭টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত পূর্ণ দিবস কর্ম বিরতি পালন করেছেন তারা। এই সময়ে কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস ও পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। কর্মসূচী থেকে শিক্ষকরা ঘোষণা দিয়েছেন, আমরা বৈষম্য দূরীকরণ কমিটির সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছি। ওই কমিটির সিদ্ধান্ত সন্তোষজনক না হলে আবারও আন্দোলনে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তারা।

আন্দোলনরত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের উদ্দেশে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, দেশের সবচেয়ে বেশি শিক্ষিত জনগোষ্ঠী জ্ঞানের অভাবে আন্দোলন করছে। মঙ্গলবার দুপুরে অর্থ মন্ত্রণালয়ে পে- স্কেল পরবর্তী এক প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। মুহিত বলেন, শিক্ষকদের পদোন্নতির নিয়মটি নিজেরা তৈরি করে নিয়েছেন। তাই তাদের পদোন্নতি ব্যবস্থার সংস্কার করা হবে। পে-স্কেলে কী আছে, তারা সেটা না বুঝেই আন্দোলন করছেন। তারা সবাই অধ্যাপক হতে চান, তাদের দুর্নীতির এ চর্চা বন্ধ করা উচিত। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের এ ধরনের কর্ম বিরতি যৌক্তিক নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, শিক্ষকদের এ ধরনের ব্যবহার অত্যন্ত দুঃখজনক।

সপ্তম বেতন কাঠামোতে বেসামরিক কর্মকর্তাদের মধ্যে সচিব, সামরিক কর্মকর্তাদের মধ্যে মেজর জেনারেল এবং পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সিলেকশন গ্রেডের অধ্যাপক সর্বোচ্চ গ্রেডে (গ্রেড-১) ছিলেন। আর জ্যেষ্ঠ অধ্যাপকরা গ্রেড-২ এবং অধ্যাপকরা গ্রেড-৩ এ বেতন পেয়ে আসছিলেন। অষ্টম বেতন কাঠামোতে অধ্যাপক ও জ্যেষ্ঠ অধ্যাপকদের অবস্থান ঠিক থাকলেও সিলেকশন গ্রেডের অধ্যাপকদের কথা আলাদাভাবে উল্লেখ করা হয়নি, যা নিয়ে প্রায় দেড় মাস যাবত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা আন্দোলন চালিয়ে আসছেন। কর্মসূচীর অংশ হিসেবে তারা গত ১৬ আগস্ট ও ২৩ আগস্ট অর্ধ দিবস কর্ম বিরতি পালন করেন। এর পর গত শনিবার সংবাদ সম্মেলন করে মঙ্গলবার পূর্ণ দিবস কর্ম বিরতির ঘোষণা দেয় বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন।

এর পর সোমবার সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে নতুন নতুন বেতন কাঠামো অনুমোদন করা হয়। সেখানে শিক্ষকদের দাবির বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে আলোচিত হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব পরে সাংবাদিকদের বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের পক্ষ থেকে কয়েকটি প্রস্তাব তুলে ধরা হয়েছে। মন্ত্রিসভায় তাৎক্ষণিকভাবে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা সম্ভব নয়। সে জন্য মন্ত্রিসভা বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত শিক্ষকদের প্রস্তাবগুলো পর্যালোচনা করে সুপারিশ করার দায়িত্ব দিয়েছে বেতন বৈষম্য দূরীকরণ সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটিকে। তবে তাতে সন্তুষ্ট না হয়ে মঙ্গলবারের কর্ম বিরতির কর্মসূচী বহাল রাখেন আন্দোলনকারীরা।

সে অনুযায়ী সকাল থেকে চার দফা দাবিতে দেশের ৩৭টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা কর্ম বিরতি পালন করে। পাশাপাশি প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে পৃথকভাবে মৌন মিছিল সমাবেশ ও মানববন্ধন করা হয়।

মঙ্গলবারের কর্মসূচী চলাকালে কেন্দ্রীয় কর্মসূচী হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা বেলা সাড়ে ১১টায় অপরাজেয় বাংলার পাদদেশ থেকে মৌন মিছিল বের করেন। টিএসসি হয়ে দোয়েল চত্বর ঘুরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পৌঁছে শেষ হয় তাদের মৌন মিছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন শতাধিক শিক্ষক এতে অংশ নেন। পরে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বাংলাদেশ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন বলেন, আমরা বেতন কাঠামোতে নিজেদের অবস্থান ঠিক রাখার দাবিতে আন্দোলন করেছিলাম। মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্তে আমাদের আন্দোলনের জয়গাথা রচিত হয়েছে। তিন বলেন, শিক্ষকদের মর্যাদার বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে সুনির্দিষ্ট বক্তব্য এসেছে; একটি কমিটিকে এটা নিয়ে দায়িত্বও দেয়া হয়েছে। আমরা এখন সেই কমিটির দিকে তাকিয়ে আছি।

ওই কমিটির সভায় শিক্ষক প্রতিনিধিদের রাখার আহ্বান জানিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি বলেন, শিক্ষকদের মধ্য থেকেই এ দাবি এসেছে, যাতে কোন কমিটি নিজেদের ইচ্ছেমতো প্রতিবেদন না দিতে পারে।

ফেডারেশন মহাসচিব ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক এএসএম মাকসুদ কামাল বলেন, আগামী রবিবারও আমাদের পূর্বঘোষিত কর্মসূচী রয়েছে। তবে দাবির বিষয়ে সরকারের বিভিন্ন অংশের সঙ্গে আলোচনা চলছে। তাই শিক্ষক নেতৃবৃন্দ বসে ওইদিনের কর্মসূচীর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

এদিকে ঢাকার বাইরেও সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে একই রকম কর্মসূচী পালিত হয়েছে। চট্টগ্রামে অষ্টম জাতীয় বেতন কাঠামোতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের অবমূল্যায়নের প্রতিবাদে ও স্বতন্ত্র বেতন স্কেল ঘোষণার দাবিতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে মঙ্গলবার পূর্ণদিবস কর্মবিরতি পালন করেছে শিক্ষকরা। মঙ্গলবার সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু চত্বরে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে থেকে শিক্ষকদের একটি মিছিল ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে।

চবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মোঃ আবুল মনছুরের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক ড. কাজী এস এম খসরুল আলম কুদ্দুসীর সঞ্চালনায় কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক ড. সুলতান আহমেদ, অধ্যাপক মোঃ জাকির হোসেন, অধ্যাপক ড. মুস্তাফিজুর রহমান ছিদ্দিকী, অধ্যাপক ড. আবদুল্লাহ আল ফারুক, অধ্যাপক ড. নাসির উদ্দিন, ড. আতিয়ার রহমান, সুকান্ত ভট্টাচার্য, তানভীর হায়দার আরিফ ও মাছুম আহমেদ প্রমুখ

সমাবেশ শেষে চবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মোঃ আবুল মনছুর এবং সাধারণ সম্পাদক ড. কাজী এস এম খসরুল আলম কুদ্দুসী এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন, শিক্ষকদের প্রায় সাড়ে তিন মাসের শান্তিপূর্ণ আন্দোলন এবং ন্যায্য দাবিসমূহের প্রতি কোন গুরুত্ব না দিয়ে ৮ম জাতীয় বেতন কাঠামো ঘোষণা করায় শিক্ষক সমাজ হতাশ ও ক্ষুব্ধ হয়েছে। এতে বেতন কাঠামো পুনর্নির্ধারণ ও স্বতন্ত্র বেতন স্কেল ঘোষণার দাবি জানান তারা।

অষ্টম পে-স্কেলে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের বেতন কাঠামো পুনর্নির্ধারণসহ চার দফা দাবিতে কর্মবিরতি পালন করেছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষকরা। শিক্ষক সমিতির ব্যানারে মঙ্গলবার বেলা ১১টায় প্রতিবাদ র‌্যালি বের করেন শিক্ষকরা। র‌্যালিটি সিনেট ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদিক্ষণ শেষে পুনরায় একই স্থানে এসে শেষ হয়। পরে সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে রাবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা বলেন, সরকার আমাদের সঙ্গে সিলেকশন গ্রেডে বৈষম্যমূলক আচরণ করছে। আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ আন্দোলন চালিয়ে যাব। সমাবেশে বক্তারা আরও বলেন, অষ্টম পে-স্কেলেসচিব কমিটি যে রিপোর্ট প্রকাশ করেছে তাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দীর্ঘদিনের দাবি অগ্রাহ্য করা হয়েছে। সমাবেশে রাবি শিক্ষক সমতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক রেজাউল করিম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাতিল সিরাজসহ প্রায় তিনশ শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন।

অষ্টম জাতীয় বেতন কাঠামোতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অবমূল্যায়নের প্রতিবাদে এবং শিক্ষকদের স্বতন্ত্র বেতন স্কেল ঘোষণার দাবিতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মবিরতি ও র‌্যালি কর্মসূচী পালন করেছে শিক্ষকরা। মঙ্গলবার বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের পূর্বঘোষিত কর্মসূচীর অংশ হিসেবে তারা এ কর্মসূচী পালন করেন। সকাল সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরনো কলা ভবন থেকে র‌্যালিটি শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে শহীদ মিনারে এসে শেষ হয়। পরে সেখানে অনুষ্ঠিত হয় সংক্ষিপ্ত সমাবেশ। সমাবেশে সরকার ও রাজনীতি বিভাগের অধ্যাপক মোঃ শামছুল আলম বলেন, এতদিন মুখে মুখে বলায় আমাদের দাবি মানা হয়নি। তাই দাবি আদায়ের জন্য আমাদের এখন মাঠে নামতে হবে। এ জন্য বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের নরম কর্মসূচী বাদ দিয়ে লাগাতার কর্মসূচী ঘোষণা করতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক মোঃ খবির উদ্দিন বলেন, দীর্ঘদিন আন্দোলন করার পরেও আমাদের দাবি মানা হয়নি। এ অবস্থায় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের যদি লাগাতার কর্মসূচীতে না যায়, তবে আমরা চাপ প্রয়োগ করে তাদের কঠোর কর্মসূচী দিতে বাধ্য করব। শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মাফরুহী সাত্তারের সঞ্চালনায় সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক শাহেদুর রশিদ, অধ্যাপক মুহাম্মদ হানিফ আলী প্রমুখ।

স্বতন্ত্র বেতন স্কেলসহ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের মর্যাদা সমুন্নত রাখার দাবিতে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে (খুবি) পূর্ণদিবস কর্মবিরতি পালন করেছেন শিক্ষকরা। মঙ্গলবার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ও বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের আহ্বানে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে কোন ক্লাস ও পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। এদিন দুপুরে ক্যাম্পাসে মৌন মিছিল বের করেন শিক্ষকরা। মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কার্য অদম্য বাংলার চত্বর থেকে শুরু করে প্রশাসনিক ভবনের সামনে দিয়ে ফের একই স্থানে এসে শেষ হয়। এ সময় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও ফেডারেশনের সহ-সভাপতি প্রফেসর ড. আহমেদ আহসানুজ্জামান বক্তব্য রাখেন।

অষ্টম পে-স্কেলে পরিবর্তন ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র পে-স্কেল প্রণয়নের দাবিতে কর্মবিরতি পালন করেছেন পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (পবিপ্রবি) শিক্ষকরা। বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন ঘোষিত কর্মসূচীর অংশ হিসেবে পবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি মঙ্গলবার এ কর্মবিরতি পালন করে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ॥ চবি সংবাদদাতা জানান, বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন ঘোষিত কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়েও কর্মবিরতি পালন করেছেন শিক্ষকরা। অষ্টম জাতীয় বেতন কাঠামোতে শিক্ষকদের অবমূল্যায়ন ও অপমান করা হয়েছে এমন অভিযোগ এনে তা সংশোধনের দাবিতে শিক্ষকরা এ কর্মসূচী পালন করেন। পাশাপাশি বুধ ও বৃহস্পতিবার চবিতে পূর্ণদিবস কর্মবিরতির কর্মসূচীও ঘোষণা করা হয়।

মঙ্গলবার চবি শিক্ষক সমিতির নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা পূর্ণদিবস কর্মবিরতি পালন করেন। ফলে কোন ক্লাস ও পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। পাশাপাশি একই দাবিতে শিক্ষকরা সমাবেশ ও মিছিল করে। বেলা ১১টায় চবি বঙ্গবন্ধু চত্বরে একটি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সিকৃবি ॥ স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট অফিস থেকে জানান, অষ্টম জাতীয় বেতন স্কেল কাঠামোতে শিক্ষকদের অবমূল্যায়নের প্রতিবাদে ও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের স্বতন্ত্র পে-স্কেলের দাবিতে মঙ্গলবার সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকরা র‌্যালি ও পূর্ণদিবস কর্মবিরতি পালন করেছেন।

শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. মোহাম্মদ নূর হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ড. মৃত্যুঞ্জয় কু-ুর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা পরিচালক প্রফেসর ড. মতিয়ার রহমান হাওলাদার, প্রক্টর মোঃ আব্দুল বাসেত, প্রফেসর ড. আবু হেনা মোস্তফা কামাল, ড. পীযূশ কান্তিসহ অন্য শিক্ষকরা।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: