২৩ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৬ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

ব্যাংকখাতে আমানত এবং ঋণের প্রবৃদ্ধি সমান


অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ একসময় ঋণের তুলনায় আমানতের প্রবৃদ্ধি অনেক বেশি থাকলেও বর্তমানে ব্যাংকখাতে আমানত এবং ঋণের প্রবৃদ্ধি প্রায় সমান। ব্যাংকগুলো অব্যাহতভাবে আমানতে সুদহার কমিয়ে দিচ্ছে। আমানতের সুদহার কমে যাওয়ায় মানুষও ব্যাংকবিমুখ হয়ে পড়ছে। ফলে আমানতের প্রবৃদ্ধি কমছে। অন্যদিকে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেও কাক্সিক্ষত হারে ঋণ প্রবৃদ্ধি হচ্ছে না। সর্বশেষ ব্যাংক খাতের আমানত প্রবৃদ্ধি দাঁড়িয়েছে ১২ দশমিক ৯৮ শতাংশ। এসময়ে ঋণ প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১২ দশমিক ৮২ শতাংশ। বাংলাদেশ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক সব সময়ই আমানত ও ঋণ সমানতালে এগিয়ে নিতে ব্যাংকগুলোকে উৎসাহিত করে। কেননা আমানত যে হারে বাড়ে ঋণ সে হারে না বাড়লে ব্যাংকের তহবিল ব্যবস্থাপনা ব্যয় বাড়ে। আবার আমানতের তুলনায় ঋণ বেশি বিতরণ করলে ব্যাংকগুলো তহবিল সংকটে পড়ে। ফলে দুটি এ সমান তালে না বাড়লে তা সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের তহবিল ব্যবস্থাপনায় অদক্ষতা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। কোনো ব্যাংকের ঋণ ও আমানতে বড় ধরনের ব্যবধান দেখা দিলে বাংলাদেশ ব্যাংক সামঞ্জস্য আনার নির্দেশ দিয়ে থাকে। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ নওশাদ আলী চৌধুরী বলেন, ব্যাংকের ঋণ ও আমানত প্রবৃদ্ধির ব্যবধান কম রাখতে বাংলাদেশ ব্যাংক সব সময়ই ব্যাংকগুলোকে বলে থাকে। দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ায় বিনিয়োগকারীরা কাজ শুরু করছে। তাই হয়তো ব্যাংকগুলোর ঋণ বিতরণ কিছুটা বাড়ছে। তিনি বলেন, ঋণ বিতরণ বাড়লে ব্যাংকগুলো বাধ্য হয়ে আমানতে সুদহার বাড়াবে। ফলে আমানত এবং ঋণের প্রবৃদ্ধি সমান হয়ে যাবে। একই বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. বিরূপাক্ষ পাল বলেন, ব্যাংকের সুদহার কমে আসা ও শেয়ারবাজারে নিš§মুখী প্রবণতার ফলে অনেকে সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ করছেন। এতে করে প্রত্যাশার তুলনায় সঞ্চয়পত্র বিক্রি থেকে অনেক বেশি অর্থ এসেছে। ফলে আমানতের প্রবৃদ্ধি কিছুটা কমেছে। তবে ব্যাংকগুলোর কাছে এখন প্রচুর তারল্য রয়েছে। এতে ব্যাংকগুলোর অর্থ সংকট হবে না।