২৫ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

পুুঁজিবাজারে লেনদেন বেড়েছে ৯ দশমিক ১৫ শতাংশ


অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ দেশের উভয় পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সোমবার উত্থানে শেষ হয়েছে লেনদেন। রবিবার জাতীয় সংসদে ফাইন্যান্সিয়াল রিপোর্টিং এ্যাক্ট পাস হওয়ার পরদিন সকাল থেকেই বাজারে ইতিবাচক প্রবণতা দেখা গেছে। কিছুদিন ধরে টানা পতনে দর হারানো কোম্পানিগুলোরে প্রতি বিনিয়োগকারীদের আলাদা আগ্রহ দেখা দেয়। দিনটিতে অস্বাভাবিকভাবে লেনদেন চালু হওয়া আমান ফিডের দর আগের দিনের তুলনায় হারিয়েছে। সব মিলে বিনিয়োগকারীদের আস্থা আগের তুলনায় বাড়ার কারণে দিনশেষে প্রধান বাজার ঢাকা স্টক একচেঞ্জের লেনদেন রবিবারে চেয়ে ৯ দশমিক ১৫ শতাংশ বেড়েছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৪৭৩ কোটি ৭৯ লাখ টাকার। যা রবিবারের তুলনায় ৩৯ কোটি ৬৯ লাখ টাকা বা ৯ দশমিক ১৫ শতাংশ বেশি। আগের দিন ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ৪৩৪ কোটি ৯ লাখ টাকার শেয়ার। ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয় ৩১৫টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৫২টির, কমেছে ১২৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৯টির শেয়ার দর।

সকালে ইতিবাচক প্রবণতা দিয়ে শুরুর পর ডিএসইএক্স বা প্রধান মূল্যসূচক ১৯ পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ৭৯১ পয়েন্টে অবস্থান করছে। ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ২ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে এক হাজার ১৭৭ পয়েন্টে। ডিএস৩০ সূচক ১০ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৮২৯ পয়েন্টে। ডিএসইর খাতভিত্তিক লেনদেনের চিত্র বিশ্লেষণ করলে দেখা গেছে, সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ওষুধ এবং রসায়ন খাতের। খাতটির মোট লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় ৬৮ কোটি টাকা, যা মোট লেনদেনের ১৪ দশমিক ৪৭ ভাগ। এরপর দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল প্রকৌশল খাতটি। সারাদিনে খাতটির মোট লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় ৬১ কোটি টাকা, যা মোট লেনদেনের ১৩ দশমিক ০৯ ভাগ। তৃতীয় অবস্থানে ছিল জ্বালানি এবং শক্তি খাতের কোম্পানিগুলো। খাতটির মোট লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় ৫৬ কোটি টাকা, যা মোট লেনদেনের ১২ দশমিক ০১ ভাগ।

ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে থাকা দশ কোম্পানি হলোÑ আমান ফিড লিমিটেড, স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড, ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ (বিডি) লিমিটেড, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন এ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড, এমারেল্ড অয়েল ইন্ডাস্ট্রিজ, বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস, ওরিয়ন ইনফিউশন লিমিটেড, ফার কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট লিমিটেড এবং শাহজিবাজার পাওয়ার।

ডিএসইর দরবৃদ্ধির সেরা কোম্পানিগুলো হলো : আরামিট সিমেন্ট, ইউনাইটেড এয়ার, মুন্নু সিরামিক, এমিএল প্রথম মিউচুয়াল ফান্ড, ইসলামী ব্যাংক, ওরিয়ন ইনফিউশন, প্রথম প্রাইম মিউচুয়াল ফান্ড, এনসিসি ব্যাংক মিউচুয়াল ফান্ড, এলআর গ্লোবাল মিউচুয়াল ফান্ড ও বিএসআরএম লিমিটেড।

দর হারানোর সেরা কোম্পানিগুলো হলো : মডার্ন ডাইং, রিলায়েন্স মিউচুয়াল ফান্ড, আমান ফিড, রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্স, সিনো বাংলা, প্রগেসিভ লাইফ, বিচ হ্যাচারি, ন্যাশনাল ফিড মিলস লিমিটেড, দ্বিতীয় আইসিবি মিউচুয়াল ফান্ড ও প্রাইম টেক্সটাইল। একই সঙ্গে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ৩৭ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। রবিবারও সেখানে একই পরিমাণ শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছিল। এদিন সিএসই সার্বিক সূচক ১০১ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৬৯৭ পয়েন্টে। সিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৪৪টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৩৮টির, কমেছে ৮০টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৬টির।

সিএসইর লেনদেনের সেরা কোম্পানিগুলো হলো : আমান ফিড, ইউনাইটেড এয়ার, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন এ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড, বিএসআরএম লিমিটেড, খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, অলিম্পিক এক্সেসরিজ, ইসলামী ব্যাংক, বেক্সিমকো ও স্কয়ার ফার্মা।