১৭ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৪ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

দীঘিনালায় সেনাবাহিনীর সঙ্গে সন্ত্রাসীদের গুলিবিনিময় ॥ বিপুল আগ্নেয়াস্ত্র


পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি, খাগড়াছড়ি ॥ খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলার নতুন চন্দ্রপাড়ার দুর্গম ছাতকছড়া এলাকায় সেনাবাহিনী টানা ১৩ ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে পাঁচটি ভারি আগ্নেয়াস্ত্রসহ বিপুল গোলাবারুদ ও সামরিক সরঞ্জাম উদ্ধার করেছে। এ সময় বড়শোভা চাকমা ওরফে নান্টু (৪০) নামে এক সন্ত্রাসীকে আটক করা হয়।

উদ্বারকৃত আগ্নেয়াস্ত্রের মধ্যে রয়েছে, একটি সাবমেশিনগান (এসএমজি) দুটি এসএমজি ও দু’টি এসএলআর, ৯টি ম্যাগাজিন ও বিভিন্ন আগ্নেয়াস্ত্রের সাড়ে তিন শ’ রাউন্ড গুলি,সন্ত্রাসীদের ব্যবহৃত সেনা পোশাক, একটি ল্যাপটপ, ৮টি মোবাইল ফোন, ১টি ডিভিডি প্লেয়ার ও বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়। খাগড়াছড়ি রিজিয়নের অধিনায়ক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল স ম মাহবুবুল আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

আটক বড়শোভা চাকমা ওরফে নান্টু নিজেকে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস-এমএন লারমা) গ্রুপের কর্মী বলে দাবি করে বলেন, তারা সংখ্যায় ২৫ জন ছিলেন। সেনাবাহিনীর অভিযান টের পেয়ে অন্যরা পালিয়ে গেছেন। তবে সংগঠনটির সহকারী তথ্য ও প্রচার সম্পাদক প্রশান্ত চাকমা ঘটনা অস্বীকার করে বলেন, আমাদের সংগঠনে কোন সশস্ত্র সদস্য বা কর্মী নাই। আটক ব্যক্তি আমাদের সংগঠনের কেউ নয়।’

দীঘিনালা জোন কমান্ডার লে.কর্নেল মহসিন রেজা জানান, নৌকাছড়ার দুর্গম এলাকার একটি বাড়িতে প্রায় ২৫ জনের সশস্ত্র সন্ত্রাসী দল অবস্থান করছে এমন খবরের ভিত্তিতে রবিবার রাত ১০টার দিকে অভিযান চালানো হয়। অভিযানের এক পর্যায়ে সোমবার ভোর ৬াটার দিকে সেনাবাহিনীর সদস্যদের ওপর গুলি চালায় সন্ত্রাসীরা। সেনাবাহিনীও পাল্টা গুলি চালায়। প্রায় এক ঘণ্টা উভয়পক্ষের মধ্যে গুলিবিনিময়ের পর সন্ত্রাসীরা পিছু হটে। পরে এলাকাটি তল্লাশি চালিয়ে এ বিপুল অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়।