১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

বাংলাদেশের জর্দান পরীক্ষা আজ


বাংলাদেশের জর্দান  পরীক্ষা  আজ

জাহিদুল আলম জয় ॥ অভাগাই বলতে হবে জর্দানকে। ২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপে তারা খেলতে পারেনি হাত ছোঁয়া দূরত্বে থেকে। শেষ মুহূর্তে প্লে অফ ম্যাচে উরুগুয়ের কাছে হেরে হয় স্বপ্নভঙ্গ। এই তথ্যটুকুই জানান দিচ্ছে, দল হিসেবে কতটা শক্তিশালী জর্দান। সেই পরাক্রমশালী প্রতিপক্ষের বিপক্ষেই ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবলের বাছাইপর্বের ম্যাচে মাঠে নামছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। এশিয়া অঞ্চলের বাছাইয়ের ‘বি’ গ্রুপের এই ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে। লড়াই শুরু আজ বিকেল ৫টায়।

প্রতিপক্ষ যত শক্তিশালীই হোক না কেন, স্বাগতিক বাংলাদেশ মাঠে নামছে পয়েন্টের খোঁজে। সেটা হতে পারে জয় কিংবা ড্র। নিজেদের সর্বশেষ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার কাছে ৫-০ গোলের বড় ব্যবধানে হেরেছে লাল-সবুজের এই দেশ। অন্যদিকে কিরগিজস্তানের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করে জর্দান। বর্তমানে ‘বি’ গ্রুপে সবার নিচে অবস্থান করছে বাংলাদেশ। তিন ম্যাচের দুটিতেই হার, একটিতে ড্র করে ভা-ার পয়েন্ট মাত্র ১। অন্যদিকে জর্দান দুই ম্যাচের একটিতে জয় ও অন্যটিতে ড্র করে ৪ পয়েন্ট নিয়ে আছে দ্বিতীয় স্থানে।

শক্তির বিচার করলে বাংলাদেশের চেয়ে অনেক এগিয়ে জর্দান। ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ যেখানে ১৭৩ নম্বরে সেখানে জর্দানের অবস্থান ৯১তম। এশিয়ান পর্যায়ে বাংলাদেশের বলার মতো কিছু না থাকলেও জর্দানের সাফল্য ঈর্ষণীয়। দেশটি এএফসি এশিয়ান কাপে ২০০৪ ও ২০১১ সালে শেষ আটে খেলে। ওয়েস্ট এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে ২০০২, ২০০৮ ও ২০১৪ সালে হয় রানার্সআপ। আরব নেশন্স কাপে ২০০২ সালে সেমিফাইনাল এবং প্যান আরব গেমসে ১৯৯৭ ও ১৯৯৯ সালে চ্যাম্পিয়ন হয়। তাক লাগানো এমন সাফল্য থাকলেও বাংলাদেশকে সমীহই করছে জর্দান। এর অন্যতম কারণ দেশ দুটি এখন পর্যন্ত মুখোমুখি হয়নি। অর্থাৎ আজই প্রথমবার একে অপরের বিপক্ষে ময়দানী লড়াইয়ে নামছে বাংলাদেশ ও জর্দান।

আগের ম্যাচে অসি ভূমি থেকে বড় ব্যবধানে হেরে আসলেও ঘরের মাঠে জর্দানের বিপক্ষে ভাল ফলাফলই আশা করছে বাংলাদেশ দল। দলের অধিনায়ক মামুনুল ইসলাম সোমবার সংবাদ সম্মেলনে বলেন, অস্ট্রেলিয়া থেকে দেশে ফিরে আমরা কঠোর অনুশীলন করেছি। লক্ষ্য একটাই, জর্দানের বিপক্ষে ভাল কিছু করা। শক্তি ও মানের বিচারে প্রতিপক্ষ এগিয়ে থাকলেও ছাড় দিতে নারাজ টাইগার অধিনায়ক। এ প্রসঙ্গে তার ভাষ্য, দেশের মাটিতে শেষ তিন-চারটা ম্যাচ আমরা খুব ভাল খেলেছি। কিন্তু বল নিয়ন্ত্রণে এগিয়ে থেকেও কিরগিজস্তানের সঙ্গে দুর্ভাগ্যজনকভাবে হেরেছি। সমর্থকরা আমাদের বড় শক্তি। কম গোল খাওয়া বা বেশি গোল দেয়া নয়। আমরা চাই আমাদের সেরা পারফর্মেন্সটা উপহার দিতে। বাংলাদেশ কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফ সাহস যোগাচ্ছেন তার শিষ্যদের। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আজ টাইগারদের ডাগআউটে দাঁড়াবেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে ডাচ্ কোচ আত্মবিশ্বাসের সুরে বলেন, ছেলেরা মোটেই ভীত নয়। অস্ট্রেলিয়া শারীরিকভাবে অনেক শক্তিশালী ছিল, জর্দানও তেমনই। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ম্যাচে প্রথম ৩০ মিনিট আমাদের সমন্বয় ছিল না। আশা করি এই ম্যাচে সেটি হবে না।

আগের ম্যাচে নিজেদের মাঠে পয়েন্ট খোয়ানোয় বেশ সতর্ক অতিথি জর্দান। তারা বাংলাদেশকে মোটেও খাটো করে দেখছে না। সংবাদ সম্মেলনে এমনটিই জানিয়েছেন দলটির কোচ পল পুট। তিনি বলেন, র‌্যাঙ্কিংয়ের ফারাকটা বড় করে দেখছি না। যারা মাঠে ভাল খেলবে, তারাই জিতবে। তবে বাংলাদেশ ঘরের মাঠে খেলবে, তাই ম্যাচটি বেশ কঠিন হবে। আর বৃষ্টি হলে স্বাগতিকরাই বেশি সুবিধা পাবে। তবে আমরা এই ম্যাচ থেকে তিন পয়েন্ট নিয়েই ঘরে ফিরব বলে আত্মবিশ্বাসী। আমার ছেলেরা জয়ের জন্যই খেলবে।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: