২৩ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

অসাম্প্রদায়িক দেশ গড়তে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে ॥ নাসিম


স্টাফ রিপোর্টার, সিরাজগঞ্জ ॥ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম সাম্প্রদায়িক অশুভ শক্তিকে পরাজিত করে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তুলতে সকল ধর্মবর্ণের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার হাত শক্তিশালী করার আহ্বান জানিয়েছেন। বিএনপি-জামায়াতকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, অন্যরা যখন ক্ষমতায় থাকে তখন দেশে জঙ্গীবাদের উত্থান হয়, সংখ্যালঘু পরিবারের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন বাড়ে, খুন-খারাবিসহ দেশের সম্পদ লুণ্ঠিত হয়। আর বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকারের সময় সকল ধর্মের মানুষ সুখে-শান্তিতে বসবাস করে, শান্তিপূর্ণ পরিবেশে মানুষ তাদের ধর্মীয় উৎসব পালনের সুযোগ পায়।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী শনিবার সকাল আটটায় সিরাজগঞ্জে সনাতন ধর্মাবলম্বীর জন্মাষ্টমীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন। শঙ্খধ্বনি ও মুহুর্মুহু উলুধ্বনির মধ্য দিয়ে মঙ্গলপ্রদীপ জ্বালিয়ে জন্মাষ্টমীর শোভাযাত্রার উদ্বোধন করা হয়।

এ উপলক্ষে আয়োজিত স্থানীয় ভাসানী কলেজের মোড়ে উদ্বোধনী সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন জেলা পুজো উদ্যাপন কমিটির সভাপতি এ্যাডভোকেট সুকুমার দাস। মঙ্গলপ্রদীপ জ্বেলে শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় পুজো উদযাপন কমিটির নেতা এ্যাডভোকেট বিমল কুমার দাস। সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন অধ্যাপক ডাঃ হাবিবে মিল্লাত মুন্না এমপি, জেলা প্রশাসক বিল্লাল হোসেন, পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন আহম্মেদ। এছাড়া আওয়ামী লীগ নেতা সিরাজুল ইসলাম খান, কেএম হোসেন আলী হাসান, জান্নাত আরা তালুকদার হেনরী, খলিলুর রহমান, কেন্দ্রীয় পুজো কমিটির অঙ্করজীৎ সাহা নব, মঈন উদ্দিন খান চিনু এবং এ্যাডভোকেট আব্দুল হাকিম। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা পুজো উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক সন্তোষ কুমার কানু।

জন্মাষ্টমী উৎসবে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, বাংলাদেশকে স্বাধীন করতে দেশের হিন্দু-মুসলিমসহ সকল ধর্মের নারী-পুরুষ জীবন উৎসর্গ করেছিল। স্বাধীনতার পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ দেশকে একটি অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ শুরু করেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর আজীবনের স্বপ্ন ছিল এদেশে সকল ধর্মের মানুষের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাও একই অবস্থানে রয়েছেন।

ধর্মকর্ম মানুষের ব্যক্তিগত অধিকার উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগ যখনই দেশ শাসনের অধিকার পেয়েছে তখনই এদেশকে একটি অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা করেছে। দেশে ঈদ, পুজো, বড়দিনসহ সকল ধর্মীয় উৎসব শান্তিপূর্র্ণভাবে পালিত হয়।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, দেশ স্বাধীনের আগে হিন্দুদের সম্পত্তি দখল করা হয়েছিল। অনেক সম্পত্তি শত্রুসম্পত্তি হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছিল। বঙ্গবন্ধু দেশ স্বাধীনের পর সেই কালো আইন বাতিল করেছিলেন। তারপরও বিভিন্ন সময় স্বাধীনতাবিরোধীরা ক্ষমতায় এসে শত্রু আইনের নামে এদেশের হিন্দুদের সম্পত্তি দখল করে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসে কালো আইনটি বাতিল করেন। বর্তমানে অর্পিত সম্পত্তি আইন সংশোধন করা হয়েছে। কোনভাবেই আর হিন্দু ধর্মাবলম্বীর সম্পত্তি কেউ দখল করতে পারবে না। বর্তমান সরকার এ ব্যাপারে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। এই ধারা অব্যাহত রাখতে সকল ধর্মের মানুষকে ঐক্যবদ্ধভাবে দেশ গড়ার কাজে অংশ নেবার জন্য তিনি সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

আলোচনা শেষে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা এসে র‌্যালিতে অংশ নেন।