১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট পূর্বের ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

বেঙ্গলে দুই দেশের বরেণ্য শিল্পীদের চিত্রপ্রদর্শনী


বেঙ্গলে দুই দেশের বরেণ্য শিল্পীদের চিত্রপ্রদর্শনী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শিল্পের বিভায় মোহময় রূপ নিয়েছে ধানম-ির বেঙ্গল শিল্পালয়। এক আঙিনায় দেখা মিলছে প্রতিবেশী দুই দেশের শিল্পীদের শিল্পকর্ম। শুক্রবার থেকে শুরু হলো ফিগারেশন শীর্ষক নির্বাচিত চিত্রকর্ম প্রদর্শনী। আর বৈচিত্র্যময় এই শিল্পসম্ভারে দেখা মিলেছে বাংলাদেশ ও ভারতের ১৭ বরেণ্য শিল্পীর সৃজিত বিচিত্র বিষয়ের ছবি। বেঙ্গল ফাউন্ডেশন এবং এর সভাপতি শিল্প-সংগ্রাহক আবুল খায়েরের সংগ্রহ থেকে সাজানো হয়েছে প্রদর্শনী। আয়োজন করেছে বেঙ্গল গ্যালারি অব ফাইন আর্টস।

প্রদর্শনী উপলক্ষে ছিল না কোন উদ্বোধনী আয়োজন বা আনুষ্ঠানিকতা। তবে শিল্প উপভোগে শিল্পরসিকের জন্য আনুষ্ঠানিকতার প্রয়োজন পড়ে না। সে কথার প্রমাণ মিলল সূচনার দিনের বিকেলে। শিল্প পিপাসুরা নিবিড় মনোযোগে বৃত্তাকার প্রদর্শনালয়টির দেয়ালে ঝুলিয়ে রাখা চিত্রকর্মগুলো অবলোকন করে ঋদ্ধ করছিলেন আপন মনন। দুই দেশের প্রখ্যাত শিল্পীদের ছবি দেখে আস্বাদন করেছেন নয়নের প্রশান্তি।

প্রদর্শনীতে ঠাঁই পাওয়া চিত্রকর্মের শিল্পীরা হলেনÑ শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন, আব্দুস সাত্তার, আমিনুল ইসলাম, বিজন চৌধুরী, হরেন দাস, কালিদাস কর্মকার, কাজী আব্দুল বাসেত, মুর্তজা বশীর, রামকিঙ্কর বেইজ, নাজলী লায়লা মনসুর, কামরুল হাসান, কাইয়ুম চৌধুরী, রফিকুন নবী, রোকেয়া সুলতানা, সফিউদ্দীন আহমেদ, শহিদ কবির ও শিশির ভট্টাচার্য।

শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের একটি চিত্রকর্মে চিরচেনা বিষয়ের বাইরে নতুনভাবে উপস্থাপিত হয়েছে বিষয়। আর এ ছবির মাধ্যমে যেন ভিন্নভাবে ধরা দিয়েছেন জয়নুল। আবহমান বাংলার প্রতিচ্ছবি কিংবা কৃষক, আদিবাসী জনগোষ্ঠীর জীবনধারা বা বাংলার নারীর মুখশ্রী নেই সেই চিত্রপটে। বিদেশ ও বিদেশী নাগরিকের মুখ এঁকেছেন শিল্পাচার্য। প্রদর্শনীতে রয়েছে প্যাস্টেলে আঁকা তাঁর আরও তিনটি ছবি। এই সিরিজ ছবিগুলোর শিরোনাম ‘স্টাডি’। তেলরঙে আত্ম-অন্বেষণে নিমগ্ন নারীর মুখ এঁকেছেন আমিনুল ইসলাম। শিল্পীদের অধিকাংশের ছবিতে বিষয়বস্তু হিসেবে প্রাধান্য পেয়েছে নারীর শরীরী ও মুখশ্রী অবয়ব। সকালে গাছতলা থেকে দুই নারীর ফুল সংগ্রহের দৃশ্য সৃজন করেছেন হরেন দাস। এই শিল্পীর আরেক চিত্রকর্মে শিশুদের মার্বেল খেলার দৃশ্যটি দারুণভাবে কেড়ে নেয় শিল্পানুরাগীর নজর। পটুয়া কামরুল হাসানের দুটি ছবিতেও বিষয়বস্তু হিসেবে উঠে এসেছে বাংলার নারী। কালিতে ও জলরঙ আশ্রয়ে চিত্রিত হয়েছে ছবি দুটি। কাজী আবদুল বাসেতের তিনটি ছবিরও বিষয়বস্তু নারী। ছবিগুলোতে উদ্ভাসিত হয়েছে বাংলাদেশের নারীর আটপৌরে জীবন। আবদুস সাত্তার এঁকেছেন দুই নারীর প্রতিকৃতি। কাইয়ুম চৌধুরী এঁকেছেন গ্রামবাংলার বিষণœ নারীর অবয়ব। রোকেয়া সুলতানাও নারীর ছবি এঁকেছেন ডিমের কুসুমের মিশ্রণে তৈরি টেম্পেরা রং দিয়ে। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি উঠে এসেছে শিল্পগুরু সফিউদ্দিন আহমেদের ছবিতে।

সব মিলিয়ে প্রদর্শনীতে শোভা পাচ্ছে দুই দেশের শিল্পীদের আঁকা ৩০টি চিত্রকর্ম। আগামী ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে প্রদর্শনী। প্রতিদিন বেলা ১২টা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

আবুল মনসুর আহমদ স্মৃতি সম্মেলন ॥ খ্যাতিমান কথাসাহিত্যক, সাংবাদিক ও রাজনীতিবিদ আবুল মনসুর আহমদ। শুক্রবার দিনভর স্মরণ করা হলো বরেণ্য এই ব্যক্তিত্বকে। বাংলা একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে আবুল মনসুর আহমদ স্মৃতি সম্মেলনের আয়োজন করে আবুল মনসুর আহমদ স্মৃতি পরিষদ। তিনটি অধিবেশনে বিভক্ত আয়োজনে তার সাহিত্য, সাংবাদিকতা ও রাজনৈতিক জীবনের ওপর আলোচনা করেন বিশিষ্টজনরা। প্রথম পর্বে সভাপতির বক্তব্যে সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক বলেন, ব্যঙ্গাত্মক রচনার কশাঘাতে সমাজের কুসংস্কার, অজ্ঞতা দূর করার মাধ্যমে মানুষের মুক্তি চেয়েছিলেন আবুল মনসুর আহমদ।

প্রাথমিক পর্ব শেষে আবুল মনসুর আহমদের যাপিত জীবন ও তার কৃতকর্মের জন্য একজনকে বিশেষ পুরস্কার ও ছয় জনকে পুরস্কার ও সম্মাননা জানানো হয়। বিশেষ পুরস্কার পেয়েছেন এমিরেটাস অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম। পুরস্কার ও সম্মাননাপ্রাপ্তরা হলেন ড. নরুল আমিন, ড. রাজীব হুমায়ূন, ড. মিজানুর রহমান, ড. মোঃ চেঙ্গিশ খান ও ইমরান মাহফুজ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে আবুল মনসুর আহমদের যাপিত জীবনের ওপর একটি তথ্যচিত্র প্রদশিত হয়। তার সংক্ষিপ্ত জীবন ভাবনা সম্পর্কে বলেন আবুল মনসুর আহমদের ছেলে ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম।

আইজিসিসিতে ভরতনাট্যম ও মণিপুরী নৃত্য পরিবেশনা ॥ শুক্রবার শরতের সন্ধ্যায় ভারতীয় হাইকমিশনের গুলশানের ইন্দিরা গান্ধী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র (আইজিসিসি) মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হলো শাস্ত্রীয় নৃত্য পরিবেশনা। পরিবেশিত হলো শাস্ত্রীয় আঙ্গিকের দুই ঘরানার নাচ ভরতনাট্যম ও মণিপুরী। ঘণ্টা ব্যাপ্তির মনমাতানো আয়োজনে ভরতনাট্যম পরিবেশন করেন অমিত চৌধুরী।

ছায়ানটে শ্রোতার আসর ॥ শুক্রবার সন্ধ্যায় ধানম-ির ছায়ানট সংস্কৃতি ভবন মিলনায়তনে ভেসে বেড়াল সুরেলা শব্দধ্বনি। অনুষ্ঠিত হলো নিয়মিত সঙ্গীতানুষ্ঠান শ্রোতার আসর। এ আসরে গান শোনান হিমাদ্রী শেখর, শিশু দে ও সুদীপ সরকার।

আবু সাইয়ীদের ছয় ছবির ডিভিডি ॥ চলচ্চিত্রকার আবু সাইয়ীদ নির্মিত ছয়টি ছবি প্রকাশিত হলো এক ডিভিডিতে। ছয়টি ছবির তালিকায় রয়েছেÑ কিত্তনখোলা (২০০০), শঙ্খনাদ (২০০৪), নিরন্তর (২০০৬), বাঁশি (২০০৭), রূপান্তর (২০০৮) ও অপেক্ষা (২০১০)। ডিভিডিটি প্রকাশ করেছে জি সিরিজ।

আন্তর্জাতিক প্রামাণ্য ও স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র উৎসব ॥ নেপালে ভূমিকম্প নিহত ও ক্ষতিগ্রস্তদের উৎসর্গ করে আয়োজন করা হয়েছে আন্তর্জাতিক প্রামাণ্য এবং স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র উৎসব। শুক্রবার থেকে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালায় প্রযোজনা সংস্থা ঢেঁকি আয়োজনে শুরু হলো এই উৎসব। চলবে ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: