২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৫ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

ঈদের আগে ও পরের ৪ দিন নৌ-রুটে বালুবাহী ট্রলার ও বলগেট বন্ধ


ঈদের আগে ও  পরের ৪ দিন নৌ-রুটে বালুবাহী ট্রলার ও বলগেট বন্ধ

স্টাফ রিপোর্টার,মুন্সীগঞ্জ ॥ নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান এমপি বলেছেন, সেদিন আর বেশী দুরে নয়, যেদিন বাংলাদেশ উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হবে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্র পরিচালনা করছে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নের জন্য। তিনি যেভাবে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন, তাতে বাংলাদেশের মান মর্যাদা বৃদ্ধি পেয়েছে। পদ্মা সেতু হয়ে যাওয়ার পর বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বিশাল পরিবর্তন আসবে। শুক্রবার সকালে তিনি মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের শিমুলিয়া (মাওয়া) নদী বন্দরে স্পীডবোট ও ট্রলার চালকদের প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির ভাষণে এসব কথা বলেন।

নৌ মন্ত্রী বলেন, যাত্রীদের নিরাপত্ত্বাই কিন্তু আসল ব্যাপার। যাত্রীদের নিরাপত্বার ব্যাপারে সবাইকে সচেতন হতে হবে। যাত্রীদের নিরাপত্ত্বার কথা চিন্তা করে আমরা গত তিন বছর পূর্বে শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে স্পিডবোটে লাইফ জ্যাকেট পরা বাধ্যতামূলক করেছি। প্রথম দিকে আমরা দেখেছি, আনেক যাত্রী লাইফ জ্যাকেট খুলে ফেলেছে। তারা বলেছে গরমের কারণে জ্যাকেট খুলে ফেলেছি। আমি তখন নিজে উপস্থিত থেকে যাত্রীদের লাইফ জ্যাকেট পরিয়েছি। এখন কিন্তু এখন আর সে অবস্থা নেই। এখন যাত্রীরাই জ্যাকেট পরে। তারা সচেতন হয়েছে। এ ব্যাপারে স্পিড-বোট মালিক চলালক ও যাত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে সচেতন হতে হবে।

তিনি আরো বলেন ৫৫ হর্স পাওয়ারের ইঞ্জিন চালিত স্পিডবোটে যাত্রী নিতে হবে ৮ জন ও অধিক পাওয়ারে ইঞ্জিন চালিত স্পিডবোটে ১২ জন যাত্রী নেয়া যাবে। কিন্তু এ নৌরুটে এসব নির্দেশনা মানা হচ্ছেনা। ফলে দূর্ঘটনার শিকার হয় যাত্রীরা। সবাইকে আইন কানুন মেনে ব্যাবসা পরিচালনা করতে হবে।

তিনি ট্রলার চালকদের উদ্দ্যেশে বলেন, ঈদের ৪ দিন আগে ও ঈদের ৪ দিন পরে এ নৌ-রুটে বালুবাহী ট্রলার ও বলগেট বন্ধ রাখতে হবে। মানুষের জান-মাল নিয়ে আমরা খেলতে পারিনা। তাদেরকে নৌ-রুটে চলাচলে নিরাপত্ত্বা নিশ্চিত করতে হবে। এ সময় তিনি আরো বলেন, রাজনীতিতে যারা ভুল করবেন তারাও দূর্ঘটনায় পরবেন। গনতন্তের নামে যারা পেট্রোল বোমা মেরেছেন, সন্ত্রাস করেছেন, তারা জনগন থেকে বিচ্ছন হয়ে গেছেন। শেখ হাসিনার যোগ্য নের্তৃত্বে আমরা দেশকে এগিয়ে নিতে পেরেছি। দুর্নীতি আমরা নির্মূল করতে না পারলেও তা হ্রাস করতে পেরেছি। আগামিতে আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই হবে বাংলাদেশের মাহথির মোহাম্মদ।

বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান কমডোর এম মোজাম্মেল হকের সভাপতিতে এ সময়ে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক হুইপ অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরে মহাপরিচালক কমডোর জাকিউর রহমান। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন সাবেক এমপি ইকবাল হোসেন, শিমুলিয়া স্পিড-বোট ঘাটের ইজারাদার ও মেদিনিমন্ডল ইউনিয়নের আ”লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফ হোসেন, কুমারভোগ ইউপি চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান তালুকদার, বিআইডব্লিউটিসির এজিএম এসএম আশিকুজ্জামান, বন্দর ও পরিবহন কর্মকর্তা মহিউদ্দিন আহম্মেদ প্রমুখ ।