২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

তুরস্কের সমুদ্র সৈকতে ভেসে এলো সিরীয় শিশুর মরদেহ


তুরস্কের সমুদ্র তীরে ভেসে আসা সিরীয় শিশুর মরদেহের মর্মস্পর্শী ছবি ইউরোপের শরণার্থী সঙ্কটের চরম মানবিক দুর্দশার চিত্র চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিল। তুরস্কের বিলাসবহুল পর্যটন শহর বোড্রমের সৈকত থেকে বুধবার সকালে শিশুটির ছবি তোলা হয়।

একটি ছবিতে দেখা যাচ্ছে, সৈকতে ঢেউয়ের মধ্যে লাল টি-শার্ট ও প্যান্ট পরা সিরীয়-কুর্দি শিশুটির মৃতদেহ পড়ে রয়েছে। অপর ছবিতে দেখা যায়, এক তুর্কি বর্ডার গার্ড ওই দেহটি উদ্ধার করে মমতার সঙ্গে কোলে তুলে নিয়ে যাচ্ছে। খবর টেলিগ্রাফ ও গার্ডিয়ানের।

ইউরোপের রাজনৈতিক নেতারা যখন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর সবচেয়ে চরম অভিবাসী সঙ্কট মোকাবেলার উপায় নিয়ে ঐকমত্যে পৌঁছাতে হিমশিম খাচ্ছেন, তখন ইন্টারনেটে ‘সৈকতে আছড়ে পড়া মানবতা’ শিরোনামে ওই মৃত শিশুর ছবি দুটি ঝড় তুলেছে। তুর্কি নৌ কর্মকর্তারা বলেছেন, ওই শিশুসহ ২৩ শরণার্থী বোড্রম উপদ্বীপ থেকে দুটি ছোট নৌকায় করে গ্রীসের কোস দ্বীপে যাওয়ার চেষ্টা করে। নৌকা দুটি ডুবে ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এদের মধ্যে পাঁচটি শিশু ও একজন নারী ছিলেন। সাতজনকে উদ্ধার করা হয় এবং দুইজন লাইফ জ্যাকেটের সাহায্যে তীরে পৌঁছে। তবে তিনজন এখনও নিখোঁজ রয়েছে। চলতি সপ্তাহগুলোতে হাজার হাজার শরণার্থী ওই দ্বীপে পৌঁছে।

তুরস্কের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা তিন বছরের ওই শিশুটির নাম আইলান কুর্দি বলেছে। তার সঙ্গে তার পাঁচ বছরের ভাই গালিপ ও মাও ডুবে মারা গিয়েছেন। তবে তার বাবা বেঁচে গেছেন বলে জানা গেছে। তারা সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় শহর কোবানি থেকে পালিয়ে যাচ্ছিল।

এই এলাকায় চলতি বছরের প্রথম থেকে কুর্দি বাহিনী ও ইসলামিক স্টেট (আইএস) জঙ্গীদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ চলছে। শিশু অধিকার সংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেনের সিইও জাস্টিন ফর্সাইথ বলেছেন, সিরিয়া থেকে পালিয়ে যাওয়া মৃত শিশুটির এই মর্মান্তিক ছবি অত্যন্ত বেদনাদায়ক এবং একটু ভাল জীবনের সন্ধানরত পরিবার ও শিশুদের বিপদের কথাই আমাদের স্মরণ করিয়ে দেয়। শিশুটির এই দুর্দশার ছবি দেখে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) নেতৃত্বের মনে দাগ কাটা উচিত এবং তাদের শরণার্থী সঙ্কট মোকাবেলায় একত্র হয়ে একটি পরিকল্পনা নিয়ে ঐকমত্যে পৌঁছানো উচিত।