২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

কেভিতোভার সামনে নতুন চ্যালেঞ্জ


বাবার হাত ধরে শৈশবেই টেনিসের সঙ্গে পরিচয়। এরপর থেকে ক্রমেই টেনিসের সঙ্গে নিজেকে যুক্ত করে নেন। দেশকে উপহার দিয়েছেন ফেড কাপ এবং হপম্যান কাপের শিরোপা। আর ব্যক্তিগত পারফর্মেন্সেও ঔজ্জ্বল্য ছড়িয়েছেন পেত্রা কেভিতোভা। দু’বার জিতেছেন উইম্বলডন। এছাড়া অস্ট্রেলিয়ান ওপেন এবং ফ্রেঞ্চ ওপেনের সেমিফাইনালে উঠার গৌরব অর্জন করেছেন তিনি। কিন্তু দুর্ভাগ্য চেক প্রজাতন্ত্রের এই টেনিস তারকার। মৌসুমের শেষ গ্র্যান্ডসøাম টুর্নামেন্ট ইউএস ওপেনে সবসময়ই নিস্প্রভ তিন। এখন পর্যন্ত বছরের শেষ এই মেজর টুর্নামেন্টের চতুর্থ পর্বের বাধাই পেরুতে পারেননি তিনি। সোমবার থেকে শুরু হয়েছে ইউএস ওপেন। তার সামনে এবার ইউএস ওপেনে নিজেকে মেলে ধরার সুবর্ণ সুযোগ।

কারণ ইউএস ওপেন শুরুর মাত্র দু’দিন আগেই নিউ হ্যাভেন ওপেনের শিরোপা জিতেছেন তিনি। শনিবার টুর্নামেন্টের ফাইনালে স্বদেশী লুসি সাফারোভাকে পরাজিত করে শিরোপা-উল্লাস করেন টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের চার নাম্বারে থাকা পেত্রা কেভিতোভা। টানা দ্বিতীয়বারের মতো টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন তিনি। শিরোপা জয়ের লড়াইয়ে চেক প্রজাতন্ত্রের এই টেনিস তারকা ৬-৭ (৬), ৬-২ এবং ৬-২ গেমে হারান সাফারোভাকে। সেইসঙ্গে নতুন একটি রেকর্ডও গড়েন দুইবারের উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন। সুদীর্ঘ ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো কোন টুর্নামেন্টের শিরোপা ধরে রাখার নজির গড়লেন তিনি। এই তথ্যটাই প্রমাণ করে টেনিস বিশ্বে কেভিতোভা এক অধারাবাহিক খেলোয়াড়ের নাম। তবে প্রথমবারের মতো টানা দ্বিতীয়বার নিউ হ্যাভেনের শিরোপা জিতে দারুণ রোমাঞ্চিত চেক তারকা। এ বিষয়ে উচ্ছ্বাসে ভাসতে থাকা পেত্রা কেভিতোভা বলেন, ‘প্রথমবারের মতো এটা করতে পারার আনন্দটা আসলেই অন্যরকম। ক্যারিয়ারে এবারই প্রথম শিরোপা নিজের করে রাখতে পেরেছি। এমন অভিজ্ঞতা লাভ করতে পেরে আসলেই খুব ভাল লাগছে। এটা করতে পেরে আমি খুবই সন্তুষ্ট।’

ইউএস ওপেনেরই প্রস্তুতি মঞ্চ নিউ হ্যাভেন ওপেন। ফ্ল্যাশিং মিডোতে খেলার আগে টেনিসের সেরা সব তারকারাই এখানে খেলে। শিরোপা জিতে নিজেদের ফেবারিট হিসেবেই কোর্টে নামে। আর এই টুর্নামেন্টে গত কয়েক বছর ধরেই দ্যূতি ছড়াচ্ছেন মহিলা এককে সতেরোটি শিরোপা জেতা কেভিতোভা। সর্বশেষ চার বছরের মধ্যে তিনবারই এই ইভেন্টের শিরোপা জিতেছেন তিনি। তার আগে এই টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ চারবার করে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছেন ডেনমার্কের টেনিস তারকা ক্যারোলিন ওজনিয়াকি এবং আমেরিকার ভেনাস উইলিয়ামস। নিউ হ্যাভেন ওপেন কেভিতোভার ক্যারিয়ারের ১৭তম একক শিরোপা। আর চলতি বছরের দ্বিতীয়। এর আগে মে মাসে মাদ্রিদে মৌসুমের প্রথম শিরোপা জয়ের স্বাদ পেয়েছিলেন তিনি। কেভিতোভার তার সুদীর্ঘ ক্যারিয়ারে দুটি গ্র্যান্ডসøাম টুর্নামেন্ট জিতেছেন। দুটিই আবার উইম্বলডনে। ২০১১ সালে প্রথম মেজর শিরোপা জয়ের পর গত মৌসুমে জিতেছিলেন দ্বিতীয়টি। কিন্তু চলতি বছর মেজর টুর্নামেন্টে নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি ২৫ বছর বয়সী এই টেনিস তারকা। গত মাসে উইম্বলডনে ফেবারিট হিসেবে কোর্টে নেমেছিলেন তিনি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত নিস্প্রভই থাকেন এই চেক তারকা। তবে পরবর্তীতে এর রহস্য খুঁজে পান কোভিতোভা। তিনি জানান যে, দীর্ঘদিন ধরেই ক্লান্ত ও দুর্বলতায় ভুগছেন। কিন্তু এ সকল প্রতিকূলতা সত্ত্বেও কোর্টে লড়াই নিয়মিতই চালিয়ে গেছেন টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের সর্বোচ্চ ২ নাম্বারে উঠা এই প্রমীলা খেলোয়াড়। তার ফলও পেয়েছেন তিনি। ইউএস ওপেন শুরুর ঠিক আগে নিউ হ্যাভেন ওপেনে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন কেভিতোভা। যা তাকে ফেবারিট হিসেবেই ইউএস ওপেনের মিশন শুরু করতে অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস জোগাবে। নিউ হ্যাভেন ওপেনের পরপরই শুরু হয়েছে ইউএস ওপেন। তার পূর্ব মুহূর্তেই শিরোপা জয়ের হাসি হাসলেন কেভিতোভা। তাতে স্বাভাবিকভাবেই আনন্দে-উদ্বেলিত এই চেক তারকা। তবে মজার বিষয় হলো নিউ হ্যাভেনে যে চ্যাম্পিয়ন হবেন এমন আত্মবিশ্বাস তার ছিল না। এ বিষয়ে তার অভিমত হলো, ‘প্রকৃতপক্ষে এখানে ভাল খেলার আত্মবিশ্বাস নিয়ে আমি আসিনি। কিন্তু তারপরও যেন সবকিছুই বদলে গেল। ইউএস ওপেনের আগে এই শিরোপা জয়ের অনুভূতিটা দারুণ। নিশ্চিত করেই বলতে পারি তা।’ অন্যদিকে নিউ হ্যাভেনে হারায় কেভিতোভার বিপক্ষে লুসি সাফারোভার ফলাফল এখন ০-৭ ব্যবধানে পিছিয়ে। বারবারই কেন কেভিতোভার কাছে হেরে যান তিনি। এমন প্রশ্নের জবাবে সাফারোভা বলেন, ‘কেভিতোভা একজন বিগ হিটার। প্রতিপক্ষকে সে অনেক বেশি চাপে রাখে। তার করা সার্ভিংয়ের ফিরতি শট খেলাটা খুবই কষ্টসাধ্য ব্যাপার। এখানেও সে অনেক ভাল খেলেছে।’ তবে হারলেও কেভিতোভাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন সাফারোভা। ফেড কাপে একই ক্লাবের জার্সিতে খেলেন তারা। একে অন্যকে বুঝেনও খুব। কিন্তু বন্ধুর কাছে হারটা মেনে নিতে বেশ কষ্টই হচ্ছে সাফারোভার। তবে তার তৃপ্তি টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠা। শুরু থেকে বেশ কয়েকজন তারকা খেলোয়াড়কে পরাজিত করেই টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠেন তিনি। এখন তার লক্ষ্য বছরের শেষ গ্র্যান্ডসøাম টুর্নামেন্টে নিজের সেরাটা উপহার দেয়া।

ইউএস ওপেনের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন সেরেনা উইলিয়ামস। ক্যারিয়ারের স্বর্ণালি সময় পার করছেন আমেরিকান টেনিসের এই জীবন্ত কিংবদন্তি। গত মাসে উইম্বলডন জিতে দ্বিতীয়বারের মতো ‘সেরেনা সøাম’ জয়ের রেকর্ড গড়েছেন তিনি। তার সামনে এখন ‘ক্যালেন্ডার সøাম’ জয়ের হাতছানি। এবার শিরোপা ধরে রাখতে পারলেই স্টেফি গ্রাফের পর প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে অসামান্য এই কীর্তি গড়বেন তিনি। এবার তার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী মারিয়া শারাপোভা নেই। শেষ মুহূর্তে সবাইকে চমকে দিয়ে ইউএস ওপেন থেকে সরে দাঁড়ান রাশিয়ান সুন্দরী। মূলত ডান পায়ের ইনজুরির কারণেই শুরুর একদিন আগে মৌসুমের শেষ গ্র্যান্ডসøাম টুর্নামেন্ট ইউএস ওপেন থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করে নেন মাশা। এর ফলে শীর্ষ বাছাই সেরেনা উইলিয়ামসের একই ক্যালেন্ডারে বছরে সবক’টি গ্র্যান্ডসøাম জয়ের বিরল কৃতিত্ব লাভের পথটা আরও সহজ হয়ে গেল বলেই মনে করছেন টেনিসবোদ্ধারা।