২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৬ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

ভাটার টানে মেসি রোনাল্ডো!


গত মৌসুমে (২০১৪-১৫) পারফরমেন্সের খতিয়ানে শতভাগ সফল ছিলেন লিওনেল মেসি। কিন্তু আরেক সুপারস্টার ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো ছিলেন ঠিক বিপরীত। ব্যক্তিগত সাফল্য পেলেও ছিলেন শিরোপাশূন্য। শুরু হওয়া নতুন মৌসুমে (২০১৫-১৬) তাই অগ্নিপরীক্ষা নিয়ে মাঠে নেমেছেন রিয়াল মাদ্রিদের পর্তুগীজ তারকা। আর মেসির চ্যালেঞ্জ সাফল্য ধরে রাখা। কিন্তু মৌসুমের শুরুতে দুই মহাতারকার পারফরমেন্সে অশনি সঙ্কেত! অনেকেই মনে করছেন, একতরফা রাজত্ব শেষ হতে চলেছে রোনাল্ডো ও মেসির।

নতুন মৌসুমে গোলের জন্য রীতিমতো সংগ্রাম করতে হচ্ছে সময়ের দুই সেরা তারকাকে। স্প্যানিশ লা লীগায় ইতোমধ্যে দু’টি করে ম্যাচ খেলেছেন সাবেক ও বর্তমান ফিফা সেরা ফুটবলার। কিন্তু এখন পর্যন্ত দু’জনের কেউই গোলের দেখা পাননি! গত শনিবার রাতে রিয়াল বেটিসকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে নতুন মৌসুমে প্রথম জয়ের দেখা পেয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। কিন্তু একটি গোলও পাননি দলের সেরা তারকা রোনাল্ডো। অন্যদিকে প্রথম ম্যাচের মতো দ্বিতীয় ম্যাচেও জয় পেতে ঘাম ঝরাতে হয়েছে বার্সিলোনাকে। দু’টি ম্যাচেই ক্যাটালানদের জয় ১-০ গোলে। কিন্তু প্রতিপক্ষের জাল খুঁজে পাননি মেসি।

দুই কোচ রাফায়েল বেনিতেজ ও লুইস এনরিকের কৌশলের কারণেই নাকি গোলসংখ্যা কমে যেতে পারে রোনাল্ডো ও মেসির। এমন গুঞ্জন মৌসুমের আগে থেকেই ছিল। ময়দানী লড়াই শুরু হওয়ার পর সে আলামতই পাওয়া যাচ্ছে। বার্সা কোচ এনরিকে গত মৌসুম থেকেই মেসিকে কিছুটা পেছনে খেলিয়ে সামনে খেলাচ্ছেন নেইমার ও সুয়ারেজকে। যে কারণে আগের মতো গোল পাচ্ছেন না আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। অন্যদিকে বেনিতেজ রিয়ালের কোচ পদে আসীন হওয়ার পর বেল ও বেঞ্জামাকে সামনে খেলাচ্ছেন। রোনাল্ডোকে রাখছেন কিছুটা পেছনে। ফলশ্রুতিতে প্রথম দুই ম্যাচে গোল পাননি সি আর সেভেন। শুধু তাই নয়, প্রস্তুতি ম্যাচেও অনুজ্জ্বল ছিলেন পর্তুগীজ অধিনায়ক।

অথচ গত ছয় মৌসুম ধরে পিচিচি ট্রফি মেসি ও রোনাল্ডোর কব্জায়। দু’জনই জিতেছেন তিনবার করে। এ কারণে মেসি-রোনাল্ডোর দুই ম্যাচে গোল না পাওয়া বাকি ফরোয়ার্ডদের জন্য সুখবরই বলা যায়। অবাক করা বিষয় হলো, রোনাল্ডো লা লীগায় নাম লেখানোর পর এমন ঘটনা আর ঘটেনি। মেসি তো প্রথম ম্যাচে পেনাল্টি থেকেই গোল করতে পারেননি। একই দিন রোনাল্ডোর একের পর এক প্রচেষ্টা রুখে দেন আইভান কুয়েলার। সেই ম্যাচে গোলে চারটি শট নিয়েও গোল পাননি। যে অভিজ্ঞতা হয়েছে মেসিরও। তাঁর পাঁচটি শট প্রতিহত করেন মালাগা গোলরক্ষক। লীগের প্রথম দুই ম্যাচে গোল পাননিÑএই অভিজ্ঞতাই যেমন ভুলতে বসেছিলেন মেসি। লীগ শুরু করবেন জোড়া গোল দিয়ে, মেসির ক্ষেত্রে গত চার মৌসুমে এটাই ছিল নিয়মিত ঘটনা। কখনও প্রথম ম্যাচে গোল না পেলে পরের ম্যাচেই গোলধারায় ফিরেছেন। ব্যতিক্রম কেবল এ মৌসুমে। উয়েফা ও স্প্যানিশ সুপার কাপে গোল পেলেও লীগের প্রথম দুই ম্যাচে গোলের দেখা পাননি। মেসি গোল না পেলে দলের স্কোরলাইন যে হৃষ্টপুষ্ট হয় না, প্রমাণ দুটি ম্যাচেই। রিয়াল তো শিরোপা পুনরুদ্ধারের মিশন শুরু করেছে রেলিগেশনের খাড়া কাটিয়ে ফেরা স্পোর্টিং গিজনের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করে। দ্বিতীয় ম্যাচে রিয়াল বেটিসকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে জয়ে ফেরা। গোল করেছেন রিয়ালের হয়ে তিনজন। কিন্তু তাতেও রোনাল্ডোর নাম নেই! অবশ্য নতুন মিশন শুরু করার আগে বেশ বিব্রতকর অবস্থার মধ্যে পড়েন বর্তমান বিশ্ব ফুটবলের সেরা দুই তারকা। গ্যাবনের স্বৈরশাসকের আমন্ত্রণে সেখানে যেয়ে কড়া সমালোচনার মুখে পড়েন বার্সিলোনা তারকা মেসি। এ নিয়ে শোরগোলও হয় বেশ। এরপর আর্জেন্টাইন অধিনায়কের সমালোচনায় মুখর হয় মানবাধিকার সংস্থা। আর খবর রটে, রোনাল্ডো নাকি ব্রাজিলীয় বংশোদ্ভূত মডেল অ্যালাইন লিমার সঙ্গে একান্ত সাক্ষাত করতে চেয়েছিলেন। রিয়াল মাদ্রিদের পর্তুগীজ সুপারস্টারের মতলব বুঝতে পেরে তা প্রত্যাখান করেন লিমা। এই বিতর্ক তো আছেই, সঙ্গে ফিফা প্রসঙ্গে কথা বলেও ঝামেলায় জড়ান সি আর সেভেন।

সাময়িক জড়তা কাটিয়ে গত গত মৌসুমে সমালোচনার জবাব দেন মেসি। আর্জেন্টাইন এই জাদুকরের করা একমাত্র গোলেই অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদকে হারিয়ে স্প্যানিশ লা লীগায় চ্যাম্পিয়ন হয় বার্সিলোনা। এর মধ্য দিয়ে ক্যাটালানদের সাফল্য আরও একবার মেসিময় হয়ে উঠে। নেইমার ও লুইস সুয়ারেজের সঙ্গে দুর্দান্ত জুটি গড়ে তুলে বার্সার সাফল্যকে আরও বেগবান করেছেন মেসি। প্রায় প্রতি ম্যাচেই নিজে গোল করেছেন, করিয়েছেন অন্যদের দিয়ে। যে কারণে বার্সিলোনা ফেরে স্বরূপে। অথচ মৌসুমের শুরুতে ইনজুরির কারণে কিছুটা পড়তি ফর্ম থাকায় সমালোচকরা মেতে উঠেছিলেন মেসিকে নিয়ে। অনেক হয়েছে, মেসি যুগ শেষ! এ রকম অনেক কথাও বলতে শোনা গেছে। তবে এসব কখনই পাত্তা দেননি সাবেক টানা চারবারের ফিফা সেরা ফুটবলার। এগিয়ে গেছেন আপন মহিমায়। যার প্রমাণ আরও একবার রাখেন বার্সিলোনাকে লা লীগার চ্যাম্পিয়ন করিয়ে। শুধু তাই নয়, এরপর উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগের শিরোপাও পুনরুদ্ধার করে বার্সা। জুভেন্টাসকে হারিয়ে ইউরোপ সেরা হয় স্প্যানিশ পরাশক্তিরা। এই সাফল্যেও সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন মেসি। কিন্তু নতুন মৌসুমে এখনও অনুজ্জ্বল আর্জেন্টাইন অধিনায়ক।

অন্যদিকে আগের মৌসুমে রেকর্ডের পর রেকর্ড গড়েন রোনাল্ডো। মৌসুমের শুরু থেকেই ছিলেন তুখোড় ফর্মে, গোলও করেছেন নিয়মিত। এরপরও প্রাপ্তির খাতায় কিছুই যোগ হয়নি বর্তমান ফিফা সেরা ফুটবলারের! শূন্য থেকেই শেষ করতে হয়েছে ২০১৪-১৫ ফুটবল মৌসুম। কারণ তার দল রিয়াল মাদ্রিদ মৌসুমে একটি শিরোপারও স্বাদ পায়নি। গত ১৭ মের কথাই ধরুন। এই রাতে স্প্যানিশ লা লীগার শিরোপা পুনরুদ্ধার নিশ্চিত করেছে বার্সিলোনা। একই সময়ে এস্পানিওলের বিরুদ্ধে রিয়ালের হয়ে রেকর্ড হ্যাটট্রিক করেন রোনাল্ডো। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এই একটি আসরেই শিরোপার নিভু নিভু সম্ভাবনা ছিল গ্যালাক্টিকোদের। সেটাও নিভে যায়। আর তাই রিক্ত হস্তেই মৌসুমকে বিদায় জানান সি আর সেভেন। নতুন মৌসুমে এখনও আছেন খোলসে বন্দী। যে পরিস্থিতি তাতে আগের মতো সাফল্য পাওয়া কঠিন হবে বলে মনে করছেন ফুটবল বিশেষজ্ঞরা।