মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৭ আশ্বিন ১৪২৪, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ করবে ইইউ

প্রকাশিত : ২ সেপ্টেম্বর ২০১৫
  • অন্যরা শরণার্থীদের ভাগ করে না নিলে শেনজেন অঞ্চলের সুবিধা বহাল থাকতে পারে না ॥ মেরকেল

অভিবাসী সঙ্কট সৃষ্টির প্রেক্ষাপটে ইউরোপীয় ইউনিয়ন সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনতে বাধ্য হতে পারে। জার্মান চ্যান্সেলর এ্যাঞ্জেলা মেরকেল সোমবার রাতে একথা বলেন। জার্মান চ্যান্সেলর প্রথমবারের মতো বলেন, ইউরোপের মূল ভূখণ্ড দিয়ে বিনা পাসপোর্টে ভ্রমণের সুযোগ প্রদানকারী শেনজেন অঞ্চল এই ধারায় চলতে পারে না, যদি ইইউভুক্ত অন্যান্য দেশ অভিবাসনকামীদের অংশ ভাগ করে না নেয়। এদিকে শত শত অভিবাসনপ্রত্যাশী হাঙ্গেরীয় সীমান্তে কয়েক ঘণ্টা আটক থাকার পর ট্রেনে অস্ট্রীয় রাজধানী ভিয়েনায় পৌঁছেছে। তাদের অনেকেই তাৎক্ষণিকভাবে জার্মানিগামী ট্রেনে আরোহন করে। খবর টেলিগ্রাফ ও বিবিসির।

মিসেস মেরকেল বলেন, তিনি চলাচলের স্বাধীনতার বিধিবিধানকে কাঠোর করতে না চাইলেও অভিবাসনপ্রত্যাশীদের গ্রহণের দায়িত্ব ভাগ করে না নিলে এই প্রশ্ন উঠবে। তাঁর মন্তব্য জার্মান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টমাস ডি মাইজিয়েরের মন্তব্যের প্রতিধ্বনি। তিনিও এ মাসের গোড়ার দিকে সীমান্তে কড়াকড়ি আরোপের সম্ভাবনা তুলে ধরেন। তাদের মন্তব্যে আভাস পাওয়া যায় যে, ইউরোপীয় নেতৃবৃন্দ প্রশ্ন করতে শুরু করেছেন, আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্য থেকে ইউরোপে আগমনরত লাখ লাখ অভিবাসন প্রত্যাশীর মোকাবিলায় হিমশিম খেতে থাকা ইইউ সীমান্ত উন্মুক্ত রেখে অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে পারবে কিনা। বার্লিনে ভাষণদানকালে মিসেস মেরকেল বলেন, ইউরোপকে সামগ্রিকভাবে পদক্ষেপ নিতে হবে। সদস্য রাষ্ট্রগুলোকে অবশ্যই আশ্রয়কামী শরণার্থীদের দায়িত্ব ভাগ করে নিতে হবে। ইউরোপের বৃহত্তর অর্থনীতি জার্মানি চলতি বছর ৮ লাখ শরণার্থীকে গ্রহণ করবে বলে কথা দিয়েছে। ২০১৪‘র তুলনায় এই সংখ্যা ৪ গুণ এবং ইইউ’র যে কোন দেশ থেকে এই সংখ্যা বেশি। মিসেস মেরকেল বলেন, আমরা যদি একটি ন্যায্য বণ্টন ব্যবস্থায় উপনীত না হই তবে শেনজেন প্রশ্ন উঠবেÑ আমরা সেটি চাই না। ‘আমরা একটি বিরাট জাতীয় চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। এটি শুধু কিছুদিন বা মাসের জন্য নয় বরং এক দীর্ঘ সময়ের জন্য একটি প্রধান চ্যালেঞ্জ।’ সোমবার অস্ট্রিয়া হাঙ্গেরির সঙ্গে তার পূর্বাঞ্চলীয় সীমান্তে নতুন করে কঠোর নিয়ন্ত্রণ আরোপের পর তিনি এসব মন্তব্য করেন। মিসেস মেরকেলের সীমান্তে নিয়ন্ত্রণ আরোপের সম্ভাবনার প্রশ্ন তোলা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের ইউরোপীয় ইউনিয়নে সংস্কার আনার প্রচেষ্টাকেই লাভবান করতে পারে, কারণ এর জন্য দরকার চুক্তিতে বড় ধরনের পরিবর্তন আনা।

এদিকে, ইইউ সোমবার ঘোষণা করেছে যে, সংস্থা ক্যালেতে অভিবাসনকামীদের জন্য আরেকটি ক্যাম্প নির্মাণেস করদাতাদের ৫০ লাখ ইউরো ব্যয় করবে। ফরাসী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেড় হাজার অভিবাসনকামীর আবাসনের ব্যবস্থা করতে একটি ‘মানবিক ক্যাম্প’ নির্মাণে এই অর্থ ব্যয় হবে। তাদের অনেকেই ইরিত্রীয় ও সুদান থেকে এসেছে এবং বর্তমানে ‘জঙ্গল’ বলে পরিচিত একটি ক্যাম্পে নোংরা পরিবেশের মধ্যে বসবাস করছে। তবে ওই সংখ্যা হিসাব করা ৪ হাজার অভিবাসীর তুলনায় অনেক কম।

ইইউতে আশ্রয়প্রার্থীদের পাচারকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের প্রচেষ্টা হিসেবে সোমবার বুদাপেস্ট-ভিয়েনা মহাসড়কে অস্ট্রীয় পুলিশের প্রতিটি যানবাহনে তল্লাশি চালানোর ফলে পিছনে হাঙ্গেরি সীমান্ত পর্যন্ত ১৮ মাইল দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। গত সপ্তাহে অস্ট্রিয়ায় একটি পরিত্যক্ত লরির পিছনে ৭১ জন সিরীয় অভিবাসনকামীর মৃতদেহ উদ্ধারের পর ওই নতুন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। ওই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। অস্ট্রীয় পুলিশ জানায়, রবিবার রাতে আরও দুই শতাধিক লোককে জীবিত উদ্ধার করা হয়। কেবল গত জুলাই মাসেই ইউরোপে রেকর্ডসংখ্যক ১ লাখ ৭ হাজার ৫শ’ জন অভিবাসনকামী ইউরোপে প্রবেশ করেছে। সোমবার অভিবাসীদের জন্য উন্নত সুযোগ-সুবিধার দাবিতে হাজার হাজার লোক অস্ট্রিয়ায় সমাবেশ করে।

প্রকাশিত : ২ সেপ্টেম্বর ২০১৫

০২/০৯/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: