মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১০ আশ্বিন ১৪২৪, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

২২ বছর পর ভারতের লঙ্কা জয়

প্রকাশিত : ১ সেপ্টেম্বর ২০১৫, ০৬:১২ পি. এম.

অনলাইন ডেস্ক ॥ প্রায় অসাধ্য সাধনে অনেকটা চেষ্টা করলেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস। সঙ্গী ছিলেন কৌশল পেরেরা। তাদের এই প্রচেষ্টা যে কারোই বাহবাযোগ্য। তবে শেষরক্ষা হয়নি। লঙ্কানদের শেষ পাঁচটি উইকেট ঝটপট তুলে নেয় কোহলির দল। এতে ম্যাচ জয়ের পাশাপাশি সিরিজ জয়ও করে ভারত।

এই জয়ে তিন টেস্টের সিরিজ ২-১এ জিতেছে বিরাট কোহলির দল। ২২ বছর পর শ্রীলঙ্কার মাটিতে এটাই ভারতের প্রথম টেস্ট সিরিজ জয়। আর ২০১১ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজে জেতার পর বিদেশের মাটিতে প্রথম টেস্ট সিরিজ জিতল দুইবারের ওয়ানডে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

সিংহলিজ স্পোর্টস ক্লাব মাঠে মঙ্গলবার পঞ্চম দিনের দ্বিতীয় সেশনের শেষে ও তৃতীয় সেশনের শুরুতে ৯ ওভারের মধ্যে শেষ পাঁচ উইকেট হারানো শ্রীলঙ্কা গুটিয়ে যায় ২৬৮ রানে। ১১৭ রানের বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ভারত।

আর ০-১ এ পিছিয়ে পড়ার নিজেদের টেস্ট ইতিহাসে তৃতীয়বারের মতো সিরিজ জেতার কৃতিত্ব দেখালো ভারত। এত নতুন নতুন পরিসংখ্যানের জন্ম দেওয়া ভারতের এই জয় অধিনায়ক হিসেবে বিরাট কোহলিরও প্রথম সিরিজ জয়।

নিজেদের প্রথম ইনিংসে ভারতের ৩১২ রানের জবাবে ৫২.২ ওভারে ২০১ রানে শ্রীলঙ্কার ইনিংস গুটিয়ে গেলে ১১১ রানের লিড পায় অতিথিরা। দ্বিতীয় ইনিংসে ২৭৪ রান করে ভারত।

ফলে সিরিজ জিততে ৩৮৬ রানের বিশাল লক্ষ্য পায় শ্রীলঙ্কা। কঠিন লক্ষ্যে চতুর্থ দিনের শেষ দিকে খেলতে নামা স্বাগতিকরা দ্রুত ৩ উইকেট হারিয়ে বড় বিপদে পড়ে।

ম্যাথিউস ও কৌশল সিলভা অবিচ্ছিন্ন থেকে ওই দিনের বাকিটা সময় কাটিয়ে দিলেও পঞ্চম দিনের শুরুতেই পথ হারায় তারা। ৩ উইকেটে ৬৭ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে নেমে দিনের ১৮তম বলেই ফিরে যান সিলভা (২৭)।

এরপর লাহিরু থিরিমান্নেকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেন ম্যাথিউস। কিন্তু সঙ্গীর ব্যর্থতায় বেশিদূর এগোতে পারেননি অধিনায়ক। শেষ দিনে শ্রীলঙ্কার ইনিংসের ধস নামানো রবিচন্দ্রন অশ্বিনের প্রথম শিকার হয়ে ফিরে যান থিরিমান্নে।

১০৭ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বড় বিপদে পড়া শ্রীলঙ্কার আশা তবুও বেঁচে ছিল অধিনায়ক অপরাজিত থাকায়। ষষ্ঠ উইকেটে তার ও কৌশল পেরেরার ১৩৫ রানের জুটিতে সিরিজ বাঁচানোর, এমনকি জয়ের স্বপ্নও দেখছিল স্বাগতিকরা। কিন্তু অশ্বিনের ঘূর্ণিতে শেষ দিকে দ্রুত উইকেট হারিয়ে সিরিজ খোয়ায় তারা।

অশ্বিনের বলে পেরেরা (৭০) ক্যাচ আউট হলে ভাঙে তার ও ম্যাথিউসের ৩৮.১ ওভার স্থায়ী জুটিটি।

আর ইশান্ত শর্মার বলে এলবিডব্লিউ হয়ে ফেরার আগে ম্যাথিউস করেন ক্যারিয়ারে সপ্তম টেস্ট শতক। ২৪০ বলে ১৩টি চারের সাহায্যে ১১০ রান করেন তিনি।

সিরিজ সেরার পুরস্কার জেতা অশ্বিন এই ইনিংসে ৬৯ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন। ম্যাচ সেরা হন ভারতের প্রথম ইনিংসে ১৪৫ রান করা উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান চেতেশ্বর পুজারা।

প্রকাশিত : ১ সেপ্টেম্বর ২০১৫, ০৬:১২ পি. এম.

০১/০৯/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: