মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৮ আশ্বিন ১৪২৪, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

বেতন-ভাতা নিয়ে উদ্বেগ উৎকণ্ঠায় গার্মেন্টস কর্মীরা

প্রকাশিত : ১৫ জুলাই ২০১৫, ০১:৪২ এ. এম.

এম শাহজাহান ॥ শরীফা খাতুন। পেশায় একজন গার্মেন্টস কর্মী। উত্তর বাড্ডার একটি পোশাক কারখানায় স্যুয়িং অপারেটর হিসেবে কাজ করছেন। ঈদের আনন্দ যখন চারদিকে তখন শরীফার চিন্তা বেতন-ভাতা নিয়ে। বেতন পাবেন তো? ঈদের ছুটি হয়ে যাচ্ছে আগামীকাল বৃহস্পতিবার। জুন মাসের বেতন এখনও শরীফার হাতে আসেনি। শেষ পর্যন্ত নাড়ির টানে তিনি ঘরে ফিরে যেতে পারবেন তো? শরীফার মতো দেশের অনেক গার্মেন্টস কারখানার শ্রমিকরা এখনও বেতনÑভাতা পাননি। এ নিয়ে প্রতিবছরের ন্যায় এবারও অস্থিরতায় রয়েছে পোশাক শিল্পখাত। মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ দাবি করেছে- আগামীকালের মধ্যে সব কারখানার শ্রমিকদের বেতন-ভাতা পরিশোধ করা হবে। এজন্য সংগঠনের পক্ষ থেকে নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে এ তথ্য।

জানা গেছে, ঈদ সামনে রেখে প্রতিবছর এ খাতে অস্থিরতা তৈরি হয়। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আর এর মূল কারণ হচ্ছে বেতন-ভাতা পরিশোধ না করা। মালিকপক্ষের গাফিলতির এই সুযোগ নিয়ে থাকে শ্রমিক সংগঠনগুলো। পাশাপাশি আন্তর্জাতিক চক্রটিও এ শিল্পখাত ধ্বংসে ইন্ধন যুগিয়ে থাকে। একই সঙ্গে সরকারের প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক অপশক্তিগুলো মাঠে সক্রিয় হওয়ার সুযোগ পায় বেতন-ভাতা ইস্যুতে। তাই এ বছরও ১০ জুলাইয়ের মধ্যে বেতন-ভাতা পরিশোধের নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। পরবর্তীতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় থেকে ১৪ জুলাইয়ের মধ্যে সব ভাতাসহ বেতন পরিশোধে মালিকদের নির্দেশনা প্রদান করা হয়। কিন্তু এখনও সকল গার্মেন্টস কারখানায় বেতন-ভাতা পরিশোধ করা হয়নি।

বিজিএমইএ’র তথ্যমতে, ৩ শতাংশ কারখানা জুন মাসের বেতন-ভাতা পরিশোধ করতে পারেনি। ঈদ বোনাস পরিশোধ করতে পারেনি ৩১ শতাংশ কারখানা এবং জুলাই মাসের ১০-১২ দিনের বেতন পরিশোধ করতে পারবে ৬৫ শতাংশ গার্মেন্টস। সংশ্লিষ্ট অন্য একটি সূত্র দাবি করেছে, মালিকদের অনিচ্ছার কারণে গার্মেন্টস খাতে প্রায় ১৪শ’ কারখানার শ্রমিকরা এ বছর বেতন-ভাতা পাবেন না। এর মধ্যে বিকেএমইএর সদস্য ১০৫২টি এবং বিজিএমইএ‘র সদস্য ৩২০টি কারখানা রয়েছে।

এদিকে, ঘোষিত সময়মতো বেতনÑভাতা পরিশোধ না হওয়ায় কঠোর অবস্থানে রয়েছে সরকার। পুলিশী নজরদারিতে রয়েছেন শ্রমিক নেতারা। জানতে চাইলে এ প্রসঙ্গে বিজিএমইএ’র সহসভাপতি রিয়াজ-বিন-মাহমুদ সুমন জনকণ্ঠকে বলেন, যারা এখনও বেতন-ভাতা পাননি তারা আগামীকালের মধ্যে পেয়ে যাবেন। এজন্য বিজিএমইএ’র পক্ষ থেকে ইতোমধ্যে মালিকদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ঈদ এলে বেতন-ভাতা নিয়ে একটু বাড়তি চাপ তৈরি হয় ঠিকই কিন্তু মালিকপক্ষ তা পরিশোধে সর্বাত্মক চেষ্টা করছে। কিছু কারখানায় সমস্যা থাকলেও আগামীকালের মধ্যে সেই সঙ্কট দূর হবে। আশা করা হচ্ছে, গত বারের ন্যায় এবারও কোন অস্থিরতা তৈরি হবে না।

জানা গেছে, ঈদে বেতন-ভাতা নিয়ে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে-গীতানো এ্যাপারেলস সূত্রাপুর, গারমেক্স লি. তেজগাঁও, দি ন্যাশনাল এ্যাপারেলস লি. গাজীপুর, পোলস্টার এ্যাপারেলস নারায়ণগঞ্জ, এস এল ডিজাইনার লি. সাভার, করোনা ফ্যাশন লি. খিলখেত, কে এল ফ্যাশন লি. টঙ্গী, চুংজি নিট লি. সাতারকুল, স্টার এ্যাপারেলস লি. গাউসিয়া, জে, কে নিট লি. সাভার ও সোয়ান গার্মেন্টস লি. দক্ষিণ খান ঢাকা। সঠিক সময়ে বেতন-ভাতা পরিশোধে এসব কারখানার মালিকদের ইতোমধ্যে নির্দেশনা প্রদান করেছে শ্রম মন্ত্রণায়লয়। একই সঙ্গে পুলিশী নজরদারিও বাড়ানো হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলন ডেকেছে বিজিএমইএ ॥ ঈদ-উল-ফিতর সামনে রেখে পোশাক শিল্পখাতের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে আগামীকাল বৃহস্পতিবার জরুরী সংবাদ সম্মেলন ডেকেছে বিজিএমইএ। ওই সম্মেলনে এ শিল্পের সর্বশেষ পরিস্থিতি তুলে ধরবেন সংগঠনটির সভাপতি মোঃ আতিকুল ইসলাম।

প্রকাশিত : ১৫ জুলাই ২০১৫, ০১:৪২ এ. এম.

১৫/০৭/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: