২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

এক মাসে ১০ ট্রলার অপহরণ, এক জেলে নিহত


সংবাদদাতা, হাতিয়া, নোয়াখালী ॥ নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার ২০টি মাছ ঘাটে সহস্রাধিক জেলে নৌকার আতঙ্ক এখন মেঘনায় চষে বেড়ানো জলদস্যু। গত এক মাসে ১০টি ট্রলার অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায় ছাড়াও জলদস্যুদের গুলিতে আলাউদ্দিন নামে এক জেলে নিহত হয়।

জানা যায়, ইলিশ মৌসুমের শুরু থেকে হাতিয়ায় জলদস্যুদের উৎপাত লক্ষণীয়। হাতিয়ার বুড়িরচর ইউনিয়নের কাউয়া কামাল গ্রুপ বর্তমানে মেঘনায় রাজত্ব করছে। তার বাহিনীতে প্রায় ৫০ জনের মতো সদস্য রয়েছে। আগ্নেয়াস্ত্র ছাড়াও জলদস্যুরা এই প্রথম নিজেদের সুবিধার্থে স্পিড বোট ব্যবহার করছে।

গত ২ জুলাই হাতিয়ার নলচিরা ঘাটের শাহজাহান মেম্বারের একটি মাছ ধরা ট্রলার লুট করে নিয়ে যায় জলদস্যুরা। ৫ জুলাই হাতিয়ার ঠেঙ্গারচর থেকে জলদস্যুরা সুদ্বীপ মাঝির ২টি কেকরার ট্রলার অপহরণ করে নিয়ে যায়। ৭ জুলাই একই এলাকা থেকে জলদস্যুরা সুবর্ণচর উপজেলার আলাউদ্দিন মাঝির ট্রলারটি মাঝি-মাল্লাসহ অপহরণ করে নিয়ে যায়। এর দুদিন পর আলাউদ্দিন মাঝির গুলিবিদ্ধ লাশ মেঘনা নদী থেকে উদ্ধার করে জেলেরা। ১০ জুলাই হাতিয়ার সূর্যমুখী ঘাটে ২টি মাছ ধরা ট্রলার অপহরণ করে নিয়ে যায় জলদস্যুরা। সর্বশেষ ১৩ জুলাই হাতিয়ার জাহাজমারা ইউনিয়নের এমভি নুরজাহান ও এমভি ফারুক নামে ২টি মাছ ধরা ট্রলার অপহরণ করে নিয়ে যায় জলদস্যুরা।

অপহৃত এসব জেলে নৌকা, ট্রলার ও মাঝি-মাল্লাদের গোপনে মুক্তিপণ দিয়ে ছাড়িয়ে আনা হয়েছে বলে জেলেদের একাধিক সূত্র জানিয়েছে।