২০ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৮ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ফের খানাখন্দ


নিজস্ব সংবাদদাতা, টাঙ্গাইল, ১৩ জুলাই ॥ টানা বর্ষণে ঢাকা-টাঙ্গাইল ও বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে আবারও খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। মহাসড়কের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে করে ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন। দ্রুত মহাসড়ক সংস্কার করা না হলে যে কোন সময় ব্যাপক যানজটসহ দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। সেই সঙ্গে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হতে পারে ঈদে ঘরমুখো মানুষের। এতে করে এ মহাসড়ক দিয়ে উত্তরবঙ্গসহ ২৩টি জেলার হাজার হাজার যানবাহন চলাচল মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়বে। এদিকে টাঙ্গাইল সড়ক ও জনপথ বিভাগের নিম্নমানের কাজ নিয়ে অভিযোগ উঠেছে। গত ১৪ মে এ মহাসড়কে মেরামতের দ্বিতীয় দফা কাজ শেষ হয়েছিল। এরপর বৃষ্টিতে তা নষ্ট হয়ে গেলে এক মাস পর গত ২৫ জুন থেকে তৃতীয় দফায় আবারও মেরামতের কাজ শুরু করেছে টাঙ্গাইল সড়ক বিভাগ। এক মাস আগে এবং বর্তমানেও নিম্নমানের কাজ করায় মহাসড়কটি বার বার ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে জানা গেছে। তবে সড়ক বিভাগ বলছে ঈদের আগেই মহাসড়ক ভাল হবে।

সরেজমিন দেখা গেছে, মহাসড়কের ৬৭ কিলোমিটারের মধ্যে মির্জাপুরের গোড়াই থেকে এলেঙ্গা পর্যন্ত প্রায় ৪৬ কিলোমিটার ছোট-বড় অনেক গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে করে গাড়ি চালাতে চরম বেগ পেতে হচ্ছে চালকদের। সবচেয়ে বেহালদশা গোড়াই, মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজ, সোহাগপুর, ধেরুয়া রেলক্রসিং, দেওহাটা, মির্জাপুর বাইপাস, শুভুল্যা, কদিম ধল্যা, পাকুল্যা, নাটিয়াপাড়া, বাঐখোলা, করটিয়া, টাঙ্গাইল শহর বাইপাস, রসুলপুর, পৌলি ও এলেঙ্গা এলাকায়। এসব স্থানে ব্যাপক ঝুঁকি নিয়ে ও ধীরগতিতে চলাচল করছে প্রতিটি যানবাহন। কোথাও কোথাও ইট-বালি দিয়ে গর্ত ভরাট করা হচ্ছে। এতে করে কোন সুফল পাওয়া যাবে না বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। একদিকে গর্ত অন্যদিকে বর্ষণের কারণে ছোট-বড় দুর্ঘটনার কবলে পড়ছে ট্রাক, বাস, প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস, সিএনজিচালিত অটোরিক্সা, টেম্পোসহ বিভিন্ন যানবাহন। গর্তে পড়ে বিকল হচ্ছে যানবাহন। অন্যদিকে এলেঙ্গা হতে মির্জাপুরের গোড়াই পর্যন্ত ৪৬ কিলোমিটার রাস্তা তিন বছরে বেশ কয়েক দফায় সংস্কার করে টাঙ্গাইল সড়ক ও জনপথ বিভাগ।