মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৫ আশ্বিন ১৪২৪, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

নানা আয়োজন- গানে গানে কাটবে আনন্দময় ঈদ

প্রকাশিত : ১৪ জুলাই ২০১৫
  • সংস্কৃতি সংবাদ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দরজায় কড়া নাড়ছে ঈদ। আর ঈদ মানেই অফুরন্ত আনন্দ-উৎসব। চাই ভরপুর বিনোদন। বহুমাত্রিক বিনোদন বা উৎসব উদ্্যাপনের অন্যতম এক অনুষঙ্গ গান শোনা। সুরের খেলায় প্রফুল্ল হয় গানপ্রেমী শ্রোতার অন্তর। মন উচাটন করা বাণীর সঙ্গে সুরের সন্ধি পাতানো গানে গানে কেটে যাবে সঙ্গীতানুরাগীর আনন্দময় ঈদ মুহূর্ত। আর সঙ্গীতানুরাগীদের মন রাঙাতে এবার বিভিন্ন প্রযোজনা সংস্থা থেকে প্রকাশিত হয়েছে রকমারি ধাঁচের শতাধিক এ্যালবাম। সংখ্যার হিসেবে বেরিয়েছে ১৪০টিরও বেশি সঙ্গীত সংকলন। শিল্পীদের একক ও মিশ্র গান দিয়ে সাজানো হয়েছে এসব এ্যালবাম। ঈদ আনন্দে শ্রোতাকে বিনোদিত করতে প্রকাশিত উল্লেখযোগ্যসহ বিভিন্ন এ্যালবামের খোঁজখবর তুলে ধরা হলো এই প্রতিবেদনে।

শতাধিক সঙ্গীত সংকলন প্রকাশিত হলেও মান নিয়ে প্রশ্ন থাকায় শ্রোতার আকর্ষণ রয়েছে নির্দিষ্ট সংখ্যক সঙ্গীত সংকলনে। বাণীর সঙ্গে সুর ও সঙ্গীতায়োজনে সমৃদ্ধ এ্যালবামগুলোর প্রতি ঝুঁকছেন গানপ্রেমীরা। কেউ বা আবার প্রযুক্তির সুবাদে এ্যালবাম সংগ্রহের পরিবর্তে অনলাইনে ডানউলোড করে নিচ্ছেন পছন্দের গানগুলো। সেই বিবেচনায় শিল্পীরাও কেউ কেউ ইন্টারনেটে প্রকাশ করেছেন নিজেদের সঙ্গীত সংকলন। তাই এ্যালবাম সংগ্রহ করে গান শোনার প্রচলনটি হারিয়ে যায়নি। বরং রকমারি ধাঁচের অসংখ্য এ্যালবাম প্রকাশের কারণেই বেড়েছে রুচির সঙ্গে পছন্দের সঙ্গীত সংকলনের তালিকাটি। সোমবার সেই চিত্রটির দেখা মিললো বসুন্ধরা মার্কেটের ষষ্ঠ তলার সিডির দোকানগুলো। এখানকার সঙ্গীতের বিপণিবিতানগুলোয় খোঁজ নিয়ে জানা গেল ঈদে শ্রোতার মাঝে সাড়া জাগানো এ্যালবামের খোঁজখবর। তুহিন মিউজিক কালেকশনের স্বত্বাধিকারী মোঃ মিলন জানান, একক এ্যালবামের মধ্যে কাটতি রয়েছে তরুণ শিল্পী বেলাল খানের ‘আর একটি বার’। সংকলটিতে বেলাল খানের সুরে সঙ্গীতায়োজন করেছেন মুশফিক লিটু, ইমন চৌধুরী, জেকে ও প্রিতম হাসান। আর বেলালের এতে সহশিল্পী হিসেবে গেয়েছেন সাবা ও উপমা। লুৎফর হাসানের ‘বিরহ উদ্যান’ এ্যালবামটিও সংগ্রহ করছেন শ্রোতারা। গানগুলোর সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন সুমন কল্যাণ, তানভীর তারেক, আহমেদ হুমায়ুন, শান, মাসুম ও রানা আখন্দ। সবগুলো গানের সুর করেছেন লুৎফর নিজেই। সুকণ্ঠী শিল্পী কনক চাঁপার ‘পদ্ম পুকুর’ সংকলটির বেশ কাটতি রয়েছে। সংকলনে সুর ও সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন মইনুল ইসলাম খান। ইমরানের সঙ্গীত পরিচালিত এ্যাল ‘বলতে বলতে চলতে চলতে’ চলছে বেশ। এ্যালবামে গান রয়েছেন ১৪টি। জিরোনা বাংলাদেশ ও মাল্টি সোসিং থেকে প্রকাশিত তরুণ প্রতিশ্রুতিশীল কণ্ঠশিল্পী এলিটার ‘এলিটা‘ নামের এ্যালবামটির প্রতি রয়েছে শ্রোতার চাহিদা। শিল্পী জয় শাহরিয়ার ও পারভেজ সাজ্জাদের যৌথ এ্যালবাম ‘তা না না না’ এবারের আলোচিত সংকলন। এ এ্যালবামে রয়েছে ৭টি লোকগান। ব্যান্ডদলের মধ্যে অবসকিওরের ‘মাঝ রাতে চাঁদ যদি’ ও চাতক পাখি দলের ‘সহজ মানুষ’সহ সঙ্গীতানুরাগীদের কাছে টানছে। ‘দখিনা বাতাস’ শিরোনামের লোকগানের সংকলনটিও বিক্রির তালিকায় এগিয়ে রয়েছে। এতে গেয়েছেন সফি মন্ডল, দিলরুবা খান, শিমূল খান, রিংকু, বিউটি ও সালমা। কাওসার আহমেদ কাজলের কথায় সুর করেছেন অনুপ ভট্টাচার্য ও সফি ম-ল।

ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে সর্বোচ্চ শতাধিক সংখ্যা এ্যালবাম প্রকাশ করেছে জি-সিরিজ ও অগ্নিবীণা। আরেক বৃহত প্রযোজনা সংস্থা লেজার ভিশন এনেছে ১৩টি এ্যালবাম। সঙ্গীতা থেকে প্রকাশিত হয়েছে ৯টি সঙ্গীত সংকলন। সিডি চয়েস প্রকাশ করেছে ৭টি এ্যালবাম। ঈগল মিউজিক এনেছে ৯টি এ্যালবাম। সুরঞ্জনা প্রকাশ করেছে তিনটি এ্যালবাম। বিভিন্ন প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি ‘জীবনের গল্প’ নামে এককভাবে এ্যালবাম নিয়ে আসছেন ব্যান্ড তারকাখ্যাত শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু, ব্যান্ডদল মাইলসের ‘প্রতিধ্বনি’ নামে একটি এ্যালবামে বাজারে এসেছে।

জি সিরিজ ॥ প্রতিবারের মতো এবারও ঈদ উৎসবকে রাঙিয়ে তুলতে জি-সিরিজ ও অগ্নিবীণা প্রকাশ করেছে শতাধিক নতুন এ্যালবাম। এর মধ্যে রয়েছে একক, মিশ্র ও ব্যান্ড এ্যালবাম। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য সংকলনগুলো হলো মিনারের ‘আহা রে’, এফ এ সুমন ফিচারিং বিপুলের একক ‘আমি তোমার কি হই’, ইসলামিক সঙ্গীত ‘আলোর পথে’, শ্রেয়া গুহঠাকুরতা ও নুরুল ইসলামের রবীন্দ্রনাথ সঙ্গীতের এ্যালবাম ‘আজি এ বসন্তে’, প্রিন্স মাহমুদের মিশ্র এ্যালবাম ‘খেয়াল পোকা’, সানি জোবায়েরের ‘চাঁদের সরবরে’, মিলার একক ‘আনসেন্সরড’, তপুর একক ‘দেখা হবে বলে’, ব্যান্ড আর্টসেলের এ্যালবাম ‘আর্টসেল’, অবসকিউর ব্যান্ডের ‘মাঝ রাতের চাঁদ’, পুতুলের ‘ক্যাকটাস’ ও ‘পদ্ম পাতার জল’ শিরোনামের চলচ্চিত্রের গানের সংকলন।

লেজার ভিশন ॥ এই প্রতিষ্ঠানটির উল্লেখযোগ্য সংকলনের মধ্যে রয়েছে কনক চাঁপার এ্যালবাম ‘পদ্ম পুকুর’। সামিনা চৌধুরী ও রাঘব চট্টোপাধ্যায়ের এ্যালবাম ‘একটা বন্ধু চাই’। এটির সুর ও সঙ্গীত করেছেন রাঘব চট্টোপাধ্যায়। অর্ণব মিত্র ও অনুপমা দেবনাথের এ্যালবাম ‘অজানা পথে’। কণ্ঠশিল্পী রাশেদুল কায়েছের ‘সুরমা পাড়ের গান’ শীর্ষক সংকলনে কথা ও সুরে রয়েছেন শাহ আব্দুল করিম, গিয়াস উদ্দিন, আরকুম শাহ, হাসন রাজা, দুরবীন শাহ, শাহনুর শাহ, কবি দিলওয়ার, এ কে আনাম। কণ্ঠশিল্পী সফি ম-ল, দিলরুবা খান, শিমুল খান, রিংকু, বিউটি ও সালমার মিক্সড এ্যালবাম ‘দখিনা বাতাস’।

সঙ্গীতা ॥ এই প্রতিষ্ঠানের উল্লেখযোগ্য সংকলনের মধ্যে রয়েছে ইমরানের সঙ্গীত পরিচলানায় এ্যালবাম ‘বলতে বলতে চলতে চলতে’ ও আরেফিন রুমির ‘কিছু কথা আকাশে পাঠাও’।

সিডি চয়েস ॥ এখান থেকে প্রকাশিত উল্লেখযোগ্য সংকলনের মধ্যে তৌসিফের একক এ্যালবাম ‘আয়োজন’। ‘আরিফিন রুমি ফিউচারিং সুইটি’ সংকলনের শিল্পী আরফিন রুমি ও সুইটি। বেরিয়েছে ফিদেলের একক এ্যালবাম ‘ফিদেল’।

ঈগল মিউজিক ॥ এই প্রতিষ্ঠানটির আলোচত সংকলটি হচ্ছে শিল্পী জয় শাহরিয়ার ও পারভেজ সাজ্জাদের ‘তা না না না’। এছাড়া রয়েছে লুৎফর হাসানের ‘বিরহ উদ্যান’, প্রতীক হাসানের এ্যালবাম ‘দিলি না দেখা’। এছাড়া ‘ভালোবাসার সাত রঙ’ শীর্ষক মিক্সড এ্যালবামে জনপ্রিয় সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক সুমন কল্যাণের সুরের যাদু এবং গীতিকার কাওসার আহমেদ কাজলের কথায় এ্যালবামে রয়েছে ৮টি গান গেয়েছেন এসআই টুটুল, ফাহমিদা নবী, সুমন কল্যাণ, সালমা, বেলাল খান, বেলি, কিশোর, মুহিন, নিশিতা বড়ুয়া ও পূজা।

জাতীয় জাদুঘরে ঢাকার বিয়ে উৎসব ॥ গায়ে হলুদের সামগ্রী থেকে শুরু করে বিয়ে বেনারসী, বর যাত্রা, ঘোড়ার গাড়ি দিয়ে বরের আগমন, পুরাতন ঢাকার ব্যান্ড পার্টির বাজনা, বিয়ের গান সবই ছিল ঢাকের বিয়ে উৎসব আয়োজনে। গতকাল দুপুরে জাতীয় জাদুঘরের সুফিয়া কামাল হলে মমতাজ মেহেদী ঢাকার বিয়ে উৎসবের আয়োজন করে রাজধানী ঢাকার ৪০০ বছর উদযাপন পরিষদ। ঈদ উপলক্ষে এ আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের আর্থ এ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট সায়েন্স অনুষদের ডিন ও ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এএসএম মাকসুদ কামাল।

‘ছোটকাকুর বড় বিপদ’ গ্রন্থের প্রকাশনা ॥ আসছে ঈদকে সামনে রেখে প্রকাশ হলো ফরিদুর রেজা সাগরের লেখা বই ‘ছোটকাকুর বড় বিপদ’। বইটি প্রকাশ করেছে অনন্যা। এ উপলক্ষে চ্যানেল আই ভবনে সোমবার দুপুরে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

বইটি প্রকাশ সম্পর্কে ফরিদুর রেজা সাগর বলেন, ‘ছোটদের জন্য সবসময় আমার ভালবাসা অন্তহীন। ছোটরা হাসলে আমি হাসি। আমাদের ছোটকাকু ক্লাব সকল শিশুদের মুখে হাসি দেখতে চায়। সেজন্য নিরলস কাজ করে যাচ্ছে।’ প্রকাশনা পর্ব শেষে ছোটকাকু ক্লাবের পক্ষ থেকে অতিথিরা দুস্থ ও ছিন্নমূল শিশুদের মধ্যে সেমাই ও চিনি বিতরণ করেন।

প্রকাশিত : ১৪ জুলাই ২০১৫

১৪/০৭/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



শীর্ষ সংবাদ: