১৭ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৩ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

ঈদের নামাজের প্রস্তুতি


ঈদের কেনাকাটার মধ্যে লক্ষণীয় সামগ্রী হচ্ছে টুপি, আতর, তসবীহ্, জায়নামাজ, রুমাল, হিজাব,মেসওয়াক ইত্যাদি। ঈদের আগে ধর্মীয় সামগ্রীর মার্কেট বেশ জমে ওঠে। আর এ সকল দ্রব্য প্রাপ্তির স্থান মূলত ধর্মীয় স্থাপনাগুলোর আশে পাশেই হয়ে থাকে। এছাড়াও বিভিন্ন মার্কেটেও পাওয়া যায়। নামকরা ও বড় মসজিদগুলোর নিকটে ধর্মীয় সামগ্রীর দোকান প্রচুর পরিমাণে লক্ষ্য করা যায়। বায়তুল মোকাররম মসজিদ, লালবাগ শাহী মসজিদ, কাটাবন জামে মসজিদ, তারা মসজিদ, মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় মসজিদ, সোবহানবাগ জামে মসজিদসহ ঢাকার প্রায় সকল মসজিদে লক্ষ্য করা যায়। ঈদের আগে মুসল্লিরা নিজেদের প্রয়োজনীয় সামগ্রী সংগ্রহ করেন নিজেদের সুবিধাজনক দোকান হতে। এর মাধ্যমে ঈদের আনন্দকে পরিপূর্ণ রূপ ধারণ করে নেয়।

টুপি: ঢাকার অধিকাংশ টুপির দোকানে বিভিন্ন ধরনের টুপি পাওয়া যায়। যার মধ্যে দেশী ও বিদেশী উভয় ধরনের রয়েছে। দেশী গোল টুপি পড়বে ৫০-১০০ টাকা। চায়না টুপি মিলবে ৬০-১২০ টাকায়। ফিরোজ ক্যাপ টুপি পাওয়া যাবে ১৫০-২৫০ টাকার মধ্যে। এছাড়াও আল-হেরা টুপির দেশী উমানী টুপি ১৫০-২০০ টাকা, পাকিস্তানী টুপি ২০০-৪০০ টাকা এবং জালি টুপি ৫০-৪০০ টাকা। একটু উন্নতমানের টুপি ক্রয়ে লাগবে ২৫০ থেকে ৬০০ টাকা। তবে সোনালি রঙের সুতোর তৈরি টুপিগুলোর দাম পড়বে ৮০০ থেকে ১৫০০ টাকার মধ্যে।

আতর: আমাদের দেশের অধিকাংশ আতরই মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন ব্র্যান্ডের। এছাড়া কিছু বিখ্যাত ব্রান্ডের আতর পাওয়া যায় যার পাশাপাশি কিছু দেশী ব্রান্ডের আতরেরও দেখা মেলে। বহুল জনপ্রিয় আতরের ব্রান্ডের মধ্যে জান্নাতুল ফেরদাউস্, গুটি, মেলক আম্বার, সিলভার, হুগোবাজ অন্যতম। এসব আতরের মধ্যে আপনি ক্রয় করতে পারবেন পছন্দ অনুসারে। ছোট বোতল আতর ক্রয় করতে প্রয়োজন পড়বে ১০০ থেকে ৫০০ টাকা। বড় বোতলে ৫০০ থেকে ২০০০ টাকার মধ্যে। তবে উন্নতমানের বিখ্যাত ব্রান্ডের আতর সংগ্রহ কিছুটা বেশি অর্থ ব্যয় করতে হবে। তাতে লাগবে ২০০০ থেকে ১০,০০০ টাকার মতন।

জায়নামাজ: নামাজ পড়ার অন্যতম প্রয়োজনীয় সামগ্রী হলো জায়নামাজ। আর তা ঈদের নামাজের পূর্বে সংগ্রহ করে ঈদ নামাজ আদায় করা হলে আনন্দ আরো বেশি হয়। তাই দেশী ও বিদেশী জায়নামাজ থেকে যে কোনটি ক্রয় করা যাবে।

কট কাপড়ের দেশী জায়নামাজের দাম পড়বে ১০০ থেকে ২০০ টাকা, তুর্কী জায়নামাজ মিলবে ৩৫০ থেকে ২০০০টাকায়। এছাড়াও পাওয়া যাবে ৩৫০ থেকে ১,২০০ টাকার মধ্যে পাকিস্তানী, ২০০-৩০০ টাকার ভেতরে চায়না জায়নামাজ। সিঙ্গেল ও ডবল দুই ধরনের জায়নামাজ লক্ষ্য করা যায়। উন্নতমানের ও আকর্ষনীয় এ সামগ্রীটি সংগ্রহে খরচ করতে হবে ২০০০ থেকে ৫০০০ টাকার অধিক।

তসবীহ: অধিকাংশ মুসলমান ব্যক্তির নিকট তসবীহ্ দেখা মেলে। বিভিন্ন ধরনের এ দ্রব্যটি পাওয়া যায় দোকানে। কাঠের তৈরি, পাথরের তৈরি, ক্লাসিকের তৈরি ও ক্রিস্টালের তসবীহও আছে প্রত্যেকটি দোকানে। ৫০ থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে দাম পড়বে এগুলোর।

হিজাব: মহিলারা নামাজ আদায় ছাড়াও বাইরে অবস্থানের ক্ষেত্রেও হিজাব ব্যবহার করে থাকেন; যা ধর্মীয় সামগ্রীর দোকান হতে খুব সহজেই ক্রয় করা যায়। দেশী হিজাব পড়বে ১৫০ থেকে ৫০০ টাকা, পাকিস্তানী ২৫০ থেকে ১২,০০ টাকার মধ্যে। ঈদের আনন্দ বহুগুণে বাড়িয়ে নেয়ার লক্ষ্যে বর্তমানে সকলেই জামা-কাপড় থেকে শুরু প্রয়োজনীয় সব পণ্য ক্রয় করছে। সঙ্গে ক্রয় করছে ধর্মীয়সামগ্রী।

মডেল : ফাহিম