২৪ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

পাবনায় ডাকাত আতঙ্কে রাত জেগে পাহারা


নিজস্ব সংবাদদাতা, পাবনা, ১২ জুলাই ॥ জেলার বহুল আলোড়িত একদা চরমপন্থী অধ্যুষিত ঢালারচর, মাসুন্দিয়া, রূপপুর ও সাগরকান্দি ইউনিয়ন আবারও অশান্ত হয়ে পড়েছে। এসব ইউনিয়নবাসীর ডাকাত আতঙ্কে এখন নির্ঘুম রাত কাটছে। গত কয়েক দিনে ১২ বাড়িতে ডাকাতিসহ বেশ কয়েক নারীকে নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। প্রতি রাতেই ডাকাত হানা দেয়ায় আতঙ্কিত গ্রামবাসী রাত জেগে পাহারা দিতে বাধ্য হচ্ছে।

জানা গেছে, ঢালারচরে পুলিশ হত্যার পর আইন প্রয়োগকারী সংস্থার অভিযানের মুখে চরমপন্থীরা এলাকা ছেড়ে চলে গেলে এসব ইউনিয়নের মানুষ শান্তিতে বসবাস করতে থাকে। সাম্প্রতিককালে চরমপন্থী এক নেতা এলাকায় ফিরে আসার পর এ চারটি ইউনিয়নে আইনশৃঙ্খলা ভেঙ্গে পড়েছে। চাঁদাবাজি, ডাকাতি, নারী নির্যাতনের একের পর এক ঘটনায় আতঙ্কে সাধারণ মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাপন ব্যাহত হচ্ছে। গত ২৩ জুন ঢালারচর ইউনিয়নের ত্রিমোহনী গ্রামের মেহের মৃধার বাড়িতে একদল ডাকাত হানা দিয়ে ব্যাপক মারপিটসহ সর্বস্ব লুটে নেয়। ২৪ জুন শ্রীপুর গ্রামের আশরাফ খাঁর বাড়ি থেকে একই কায়দায় ডাকাতরা সর্বস্ব লুটে নেয়। ১৯ জুন ভোরে যদুপুর গ্রামের আরব আলী শেখের বাড়িতে ও একই গ্রামে ২৬ জুন ভোরে পাষাণ সরদারের বাড়িতে ডাকাতি সংঘটিত হয়। ডাকাত দল তিন লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুটে নেয়। ৩০ জুন রাতে ২৫-২৬ জনের মুখোশধারী ডাকাত দল মাসুন্দিয়া ইউনিয়নের মহিশাখোলা গ্রামের মুকুল মোল্লা, বকুল শেখ, আঞ্জু খাঁ, ঠা-ু খাঁ ও মতিন সরদারের বাড়িতে হানা দিয়ে মহিলা-শিশুদের জিম্মি করে ১০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, দুই লাখ টাকা, চারটি টিভিসহ মূল্যবান জিনিসপত্র লুটে নেয়। ৭ জুলাই রাতে মাসুন্দিয়া ইউনিয়নের দয়ালনগর গ্রামে একটি ও ৬ জুলাই মালঞ্চি গ্রামের দুই বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। সাগরকান্দি ইউনিয়নের মাধিয়াকান্দি গ্রামের দুই বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। ২৯ জুন রাত ১২টার দিকে সাগরকান্দি ইউনিয়নের তালিবনগর গ্রামের শহীদ মৃধার বাড়িতে পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতি করতে গিয়ে জনতার হাতে দুই ডাকাত আটক হয়। তাদের গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে দেয়া হয়। এসব ডাকাতির সময় অন্তত চার মহিলাকে ডাকাতরা লাঞ্ছিত করে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে। প্রতিদিনই ডাকাতরা হানা দেয়ায় চারটি ইউনিয়নে পাড়ায় পাড়ায় রাত জেগে পাহারা চলছে।