১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট পূর্বের ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

আজই সিরিজ নিশ্চিত করতে চাই ॥ মিলার


আজই সিরিজ নিশ্চিত করতে চাই ॥ মিলার

মোঃ মামুন রশীদ ॥ প্রথম ওয়ানডেতে কোন প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়নি। সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে সহজেই আত্মসমর্পণ করেছে বাংলাদেশ দল। কিন্তু ডেভিড মিলার সুযোগই পাননি ব্যাটিংয়ের। আর দুই ম্যাচের টি২০ সিরিজেও ব্যাট হাতে সুবিধা করতে পারেননি। অথচ বিশ্ব ক্রিকেটে বর্তমানে ‘কিলার’ মিলার নামে পরিচিত তিনি। অবশ্য মিলার নিজেই দাবি করেছেন, চলতি সিরিজেই তিনি ‘কিলার’ রূপে আবির্ভূত হবেন। ওয়ানডে সিরিজ জয়ের জন্য উদগ্রীব হয়ে আছে সফরকারীরা। তবে মিলার জানালেন সর্বপ্রথম তাঁরা ভাবছেন আজকের ম্যাচে জয় পাওয়া নিয়ে। শনিবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন দক্ষিণ আফ্রিকার মিডলঅর্ডার এ ব্যাটসম্যান।

সিরিজ শুরুর আগে বাংলাদেশের কন্ডিশন নিয়ে বেশ চিন্তিত ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটাররা। কিন্তু ঠিকই মানিয়ে উঠেছে তারা। এখন পর্যন্ত সফরে কোন পরাজয় দেখেনি প্রোটিয়ারা। এমনকি বড় কোন প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখোমুখিও হতে হয়নি তাদের। তবে যে কোন সময় কঠিন চ্যালেঞ্জ আশা করছে প্রোটিয়া শিবির। এ বিষয়ে মিলার বলেন, ‘ভিন্ন কন্ডিশনের কারণে আমরা চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি ছিলাম। বাংলাদেশ এই মুহূর্তে বেশ ভাল ক্রিকেট খেলছে। বিগত কয়েক মাস ধরে বাংলাদেশ ভাল খেলছে। কিন্তু আমাদের কী দরকার সেদিকে আমাদের মনযোগ আছে। ব্যাটিং, বোলিং কিংবা ফিল্ডিং যে বিভাগেই ভাল করা দরকার সেদিকে আমরা ভাল করতে চাই। বাংলাদেশের থেকেও আমরা আমাদের দল নিয়ে বেশি মনযোগী।’ এখন লক্ষ্য যত আগে সম্ভব সিরিজ জেতা। এ বিষয়ে মিলার বলেন, ‘অবশ্যই কালকেই (আজ) আমরা সিরিজ নিশ্চিত করতে চাই। কিন্তু প্রথমে আমরা ম্যাচটি জিততে চাই। দশ ওভার করে ম্যাচের ভাগ্য ঠিক করতে হবে। ছোট ছোট টার্গেটে এগিয়ে ম্যাচ শেষ করতে চাই। তাহলেই ম্যাচের ফলাফল আসবে।’ নতুন নিয়মের প্রভাব নিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘আমি এই মুহূর্তে নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছি না। দেখা যাক পরবর্তীতে কী হয়। তবে শেষ দশ ওভারে নতুন নিয়ম ম্যাচের দৃশ্যপট পাল্টে দিতে পারে। ব্যাটসম্যানদের ভিন্নভাবে সুযোগটি কাজে লাগাতে হবে। অনেকেই বলছে নতুন নিয়ম বোলারদের জন্য। কিন্তু চলতি বছরের শেষদিকে বোঝা যাবে নতুন নিয়ম কাদের পক্ষ নিচ্ছে।’

অভিষেকেই বাজিমাত করেছেন ২০ বছর বয়সী তরুণ ফাস্ট বোলার কাগিসো রাবাদা। হ্যাটট্রিকসহ ৬ উইকেট নিয়ে বিশ্বরেকর্ড গড়েছেন তিনি। এ বিষয়ে মিলার বলেন, ‘হ্যাটট্রিক ও ৬ উইকেট পাওয়া সত্যিই বিস্ময়কর কৃতিত্ব। তরুণ হিসেবে সে যে পরিমাণে কষ্ট করেছে, তার স্বপ্ন স্বার্থক হয়েছে। এই মুহূর্তে তরুণ যারা আসছে তারা খুব ভাল করছে। দক্ষিণ আফিকা ক্রিকেটের জন্য এটা খুব ভাল সময়। উপমহাদেশে এসে ভাল ক্রিকেটে খেলা এবং ভাল ফলাফল পাওয়া সত্যিই চ্যালেঞ্জিং।’ কিন্তু সেই চ্যালেঞ্জটা বেশ ভালভাবেই সামাল দিয়েছে প্রোটিয়া ক্রিকেটাররা। কারণ কিছু খেলোয়াড়ের আগে থেকে অভিজ্ঞতা ছিল এবং অনেকে মানসিকভাবে শক্ত। এ কারণে দ্রুত মানিয়ে নিতে পেরেছে। এবার নিজেকে স্বরূপে আবির্ভূত করার অপেক্ষা। এ বিষয়ে মিলার বলেন, ‘আমি নিজেকে সর্বোচ্চভাবে প্রস্তুত করার চেষ্টা করছি। সুযোগ পাব কি পাব না তা নিয়ে ভাবছি না। ব্যাটসম্যান হিসেবে জায়গা খুঁজে নিজেকে সতেজ রাখা অত্যন্ত জরুরী। সেই কাজটি করছি। এই সিরিজেই কিলার মিলারকে দেখা যেতে পারে। একটু হয়ত অপেক্ষা করতে হবে। ব্যাটিং করার জন্য মুখিয়ে আছি। দলের সাফল্যে সব সময় ভূমিকা রাখতে চাই। আমি পাঁচ নম্বরে খুশি। শেষ এক বছরে এখানে ব্যাটিং করে বেশ উপভোগ করছি।’ দ্বিতীয় ওয়ানডেতে লড়াই সহজ হবে না।

স্বাগতিকরা ছেড়ে কথা বলবে না। এ বিষয়ে মিলার বলেন, ‘তারা ছেড়ে কথা বলবে না। লড়াই করবে। তারা ভারত ও পাকিস্তানের বিপক্ষে ভাল করেছে। আগামীকাল (আজ) তারা আমাদের ওপর চড়াও হয়ে খেলতে চাইবে। আমাদের যে কোন পরিকল্পনা ভেস্তে দিতে চাইবে। আমরা জানি এটা আমাদের জন্যে কঠিন চ্যালেঞ্জ এবং আশা করছি আমরা আমাদের সেরাটা দিতে পারব।’