১৯ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

প্রস্তাবে পেনশন ও কর সংস্কারের বিষয় অন্তর্ভুক্ত


গ্রীস বৃহস্পতিবার সেদেশের ভেঙ্গে পড়া অর্থনীতি এবং একক মুদ্রা ব্যবস্থায় তার ভঙ্গুর অবস্থানকে রক্ষার চূড়ান্ত প্রচেষ্টা হিসেবে অধৈর্য ইউরোজোনের কাছে নতুন বেইল আউট (আর্থিক পুনরুদ্ধার কর্মসূচী) প্রস্তাব পেশ করেছে। গ্রীস সঙ্কট যখন চরমসীমায় উপনীত, বিশ্ব অর্থনীতির জন্য যা মারাত্মক পরিণতি বয়ে আনতে পারেÑ সে সময় মধ্যরাতের সময়সীমার দু’ঘণ্টা আগে এথেন্সের প্রস্তাব ব্রাসেলসে এসে পৌঁছায়। খবর এএফপি ও বিবিসির।

ইউরোজোন কর্মকর্তারা এখন প্রস্তাবের খুঁটিনাটি পরীক্ষা করে দেখবেন। রবিবার ব্রাসেলসে ২৮টি ইউরোপীয় দেশের নেতৃবৃন্দের চূড়ান্ত নিষ্পত্তির শীর্ষ বৈঠকের আগে ঋণদাতা দেশগুলো বলেছে, গ্রীসের পরিকল্পনায় অবশ্যই পেনশন ও কর সংস্কারের বিষয়গুলো থাকতে হবে। গ্রীক গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী বৃহস্পতিবার দাখিল করা প্রস্তাবের মধ্যে আছে : জাহাজ কোম্পানিগুলোর কর বৃদ্ধি এবং দ্বীপগুলোর জন্য করে ছাড় দেয়া বাতিল করা, রেস্তরাঁ ও খাদ্য সরবরাহকারীসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে ভ্যাটের হার নির্দিষ্ট ২৩ শতাংশে সমন্বিত করা, ২০১৯ সালের মধ্যে পেনশনভোগীদের জন্য সংহতি অনুদান পর্যায়ক্রমে তুলে নেয়া এবং ২০১৬ সালের মধ্যে প্রতিরক্ষা খাতে ব্যয় ৩৩ কোটি ২০ লাখ ডলারের সমপরিমাণ ৩০ কোটি ইউরো হ্রাস করা। বিবিসির ক্রিস মরিস ব্রাসেলস থেকে জানান, গণভোটে সংস্কার প্রত্যাখ্যান করা হলেও এখন তা স্বীকার করে নেয়া হবে, তবে সেটা সিপরাসের জন্য কোন আত্মসমর্পণ নয়। গতমাসে গ্রীসকে যে পরিমাণ সাহায্যের প্রস্তাব করা হয়েছিল এখন তিনি তার চেয়ে অনেক বেশি চাচ্ছেন। জানা গেছে, গ্রীস নতুন বেইল আউট প্যাকেজের অংশ ও তার বিপুল ঋণ পুনঃতফসিলীকরণের অংশ হিসেবে ৫৩৫০ কোটি ইউরো চেয়েছে। ইউরোজোন অর্থমন্ত্রীদের প্রধানের পক্ষে একজন মুখপাত্র মাইকেল রেইয়িম বলেন, ঋণদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো এখন তাদের মূল্যায়নে এসব প্রস্তাব গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করবে।’ গ্রীক প্রধানমন্ত্রী আলেক্সিস সিপরাসের কট্টর বামপন্থী সরকার দেশের অর্থনীতিকে সচল রাখতে কয়েকশ’ কোটি ইউরো ঋণের বিনিময়ে তার শরিকদের বিশেষ করে সংশয়বাদী জার্মানির কাছে গ্রহণযোগ্য একটি পরিকল্পনা প্রস্তাব প্রণয়নে বৃহস্পতিবার দিনটি শলাপরামর্শ করে অতিবাহিত করেন। তবে, যে কোন পরিকল্পনার অংশ হিসেবে গ্রীসের ওপর চেপে বসা ৩২০০০ কোটি ইউরো (৩৫০০০ কোটি ডলার) ঋণের বোঝা কমানোর জন্য ইউরোজোনের ওপর ক্রমবর্ধমান চাপ রয়েছে।