২৪ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

‘হায়রে আমার মন মাতানো দেশ’...


এবার বর্ষায় বিক্রমপুরে নানির বাড়ি বেড়াতে গিয়েছিলাম। সঙ্গে বাবা- মা, ছোট দু’ভাই। গুলিস্তান থেকে বাসে ধলেশ্বরী সেতু পাড়ি দিয়ে কেরানীগঞ্জ, আবদুল্লাপুর, নিমতলা, চালতি পাড়া, হাসাড়া, ষোলঘর হয়ে ছনবাড়ি নামলাম। যাওয়ার পথে মাওয়ার প্রশস্ত সড়ক। সড়কের দু’পাশ ঘেঁষে কাশবন। বাস থেকে সড়কের দু’পাশের ধানী জমি বর্ষার পানিতে ডুবে গিয়ে এক অনাবিল সৌন্দর্যের সৃষ্টি করেছে। মনে হচ্ছে আমাদের বাস যেন একটা মহাসমুদ্রের ওপর দিয়ে ছুটে চলেছে। আর চারদিকে কী যে সুন্দর মিষ্টি বাতাস।

ছনবাড়ি থেকে রিক্সা করে যেতে হয় ছাতিয়ানতলী। যেতে সময় লাগল বিশ থেকে পঁচিশ মিনিট। সরু রাস্তার দু’পাশে ঘন গাছ-গাছালি। পাখিদের কিচির মিচির । চারদিকে র্বষার পানি । জমি রূপ নিয়েছে অথৈ সাগরে । পানির নিচ থেকে ধানের লকলকে ডগা মাথা উঁচিয়ে আছে। চোখে পড়ল মাছ ধরার বিশাল তিনকোনা জাল। বিক্রমপুর অঞ্চলে মাছ ধরার এই জালের নাম ভেসাল। কিছু দূরে একটা নৌকায় দু’জন কিশোর-কিশোরীকে দেখলাম। চারদিকে যেন সুনীল সাগর। স্কুলে শেষে ওরা বাড়ি ফিরছে।

বর্ষার ছোঁয়া পেয়ে গাছ-গাছালি আর প্রকৃতি তার রূপ অকৃপণভাবে খুলে দিয়েছে। গ্রামবাংলার এই রূপ-বিভায় আমি সত্যি সত্যি মুগ্ধ হয়ে গেলাম। আর তখনই মনে পড়ে গেল আমার প্রিয় গানের কথা, ‘হায়রে আমার মন মাতানো দেশ/ হায়রে আমার সোনা ফলা মাটি/ রূপ দেখে তোর কেন আমার নয়ন ভরে না/ তোরে এত ভালোবাসি তবু পরান ভরে না”...

রোখসানা হক

বাংলাবাজার, ঢাকা