২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ঈদের কেনাকাটায় এ্যাম্বুলেন্স চিকিৎসককে শোকজ


নিজস্ব সংবাদদাতা, লালমনিরহাট, ৯ জুলাই ॥ এ্যাম্বুলেন্সে চেপে হাতীবান্ধা সরকারী হাসপাতালের চিকিৎসকদের রংপুরে গিয়ে ঈদের কেনাকাটা করার ঘটনায়। লালমনিরহাট স্বাস্থ্য বিভাগে তোলপাড় শুরু হয়েছে। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার সকালে অফিস চলাকালীন সময়ে কারণ দর্শানোর নোটিস পান অভিযুক্ত চিকিৎসক নাঈম হোসেন।

সরকারী এ্যাম্বুলেন্সে হাতীবান্ধা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কয়েকজন চিকিৎসক, স্বাস্থ্যসহকারী ও ওয়ার্ড বয় মঙ্গলবার সারাদিন রংপুরে ঈদ শপিংয়ে যাওয়ার অভিযোগ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক এ প্রচার হয়। এই অভিযোগের সূত্র ধরে বুধবার হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও লালমনিরহাট জেলা স্বাস্থ্য বিভাগে খোঁজ খবর নেয়া হয়। এতে নড়েচড়ে বসে স্বাস্থ্য বিভাগের কর্তা ব্যক্তিগণ। সিভিল সার্জনের নির্দেশে হাতীবান্ধা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-এর স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ রমজান আলী বুধবার দায়িত্ব জ্ঞানহীন কর্মকা-ের অভিযোগ তুলে চিকিৎসক নাঈম হোসেনের বিরুদ্ধে কারণ দর্শানোর নোটিস দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকালে ডাঃ নাঈম হোসেন হাসপাতালে কাজে যোগদিতে এসে শোকজ চিঠি পেয়েছেন। দুই দিনের মধ্যে যথাযথভাবে নোটিসের জবাব দিতে নির্দেশ দেয়া হয়।

লালমনিরহাটে জেলা ও উপজেলা শহরের অনেক প্রাইভেট ক্লিনিক নামে বেনামে সরকারী হাসপাতালের চিকিৎসকদের মালিকানায় চলছে। স্বাস্থ্য সেবা এই জেলায় ব্যবসা হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

ছাত্রী উত্ত্যক্তকারীকে গণধোলাই ॥ এক বছরের জেল

স্টাফ রিপোর্টার, ঈশ্বরদী ॥ বৃহস্পতিবার ঈশ্বরদী মহিলা কলেজের এক ছাত্রীকে রাস্তায় উত্ত্যক্ত করার অপরাধে রুবেল নামের এক বখাটে উত্ত্যক্তকারীকে গণধোলাইয়ের পর ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদ- প্রদান করা হয়েছে।

থানা সূত্র জানায়, ঈশ্বরদী মহিলা কলেজের এক ছাত্রী প্রাইভেট পড়ে বৃষ্টির মধ্যে বাড়ি ফিরছিল। এ সময় স্থানীয় সাইদুল প্রামাণিকের বখাটে ছেলে রুবেল তাকে মানিকনগর হাইস্কুলের পাশের বাঁশ বাগানের নিকট একা পেয়ে উত্ত্যক্ত করে। ঘটনা জানাজানির পর এলাকাবাসী রুবেলকে ধরে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। পরে তাকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদ- প্রদান করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী অফিসার রফিকুল ইসলাম সেলিম।