১৭ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৮ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

মাশরাফির লক্ষ্য তিন ম্যাচেই জয়!


মাশরাফির লক্ষ্য তিন ম্যাচেই জয়!

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ দুই ম্যাচের টি২০ সিরিজে বিন্দুমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়তে পারেনি স্বাগতিক বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। এবার ওয়ানডে সিরিজ। আগের দুটি সিরিজে পাকিস্তান ও ভারতের মতো ক্রিকেট পরাশক্তিকে পর্যুদস্তু করেছে বাংলাদেশ দল। এবার প্রোটিয়া শিবিরের বিপক্ষে খেলার সেই ধরনটার ধারাবাহিকতা রাখতে পারলে জয় আসতেই পারে। সম্প্রতি আইসিসি জানিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে একটি ম্যাচ অন্তত জিততে পারলে ২০১৭ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলা নিশ্চিত হবে বাংলাদেশ দলের। কিন্তু বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা জানালেন শুধু একটি নয়, তিন ম্যাচেই জয়ের জন্য নামবে বাংলাদেশ। কিন্তু সে জন্য দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে এক ধাপ ওপরে নৈপুণ্য দেখাতে হবে যা কঠিন বলেই মনে করেন মাশরাফি। বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে ওয়ানডে সিরিজ নিয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

আবহাওয়া ভারতের বিপক্ষে সিরিজ থেকেই সমস্যা তৈরি করছে। এবারও ওয়ানডে সিরিজ শুরুর আগে বৃষ্টি শুরু হওয়াতে অনুশীলনের জন্য ম্যাচের আগের দিন (বৃহস্পতিবার) মাঠেই নামতে পারেনি দু’দল। কিন্তু আবহাওয়ার সঙ্গ মানিয়ে উঠেই খেলতে হবে বলে মনে করেন মাশরাফি। তিনি বলেন, ‘আবহাওয়া নিয়ে তো কোন কিছু করার নেই। দুই দলকে তা গ্রহণ করতে হবে। সিরিজটি আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। ভারতের বিপক্ষে সিরিজটিও আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিল। আশা করছি আমরা ভাল খেলব এবং ভাল মতো শেষ করব।’ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলা নিয়ে আবারও সংশয় তৈরি হয়েছে। সেই শঙ্কা কাটানোর জন্য প্রোটিয়াদের বিপক্ষে একটি ম্যাচ জিততেই হবে। এ বিষয়ে মাশরাফি বলেন, ‘শুধু একটা জয়ের কথা বললে ভুল হবে। আমরা তিন ম্যাচ জয়ের জন্য নামব। তবে কাজটা খুব কঠিন হবে। এদের থেকে সব সময় আমাদের একধাপ এগিয়ে থাকতে হবে, কিন্তু এটা বেশ কঠিন। তবে আমাদের আত্মবিশ্বাস আছে, আমাদের পদ্ধতি ঠিক রেখে যদি ভাল ক্রিকেট খেলতে পারি তাহলে ভাল করা সম্ভব। এই মুহূর্তে একটা বা দুইটা ম্যাচের কথা বলা ঠিক হবে না। আসলে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি এখনও অনেক দূরের বিষয়। কালকের ম্যাচ নিয়ে চিন্তা করা উচিত। আমরা যদি ভাল প্রসেসে এগোতে পারি, যেটা আমরা শেষ দুই টি২০তে করতে পারিনি এবং শেষ ওয়ানডেতেও হয়নি। আমরা আশা করছি কালকের ম্যাচ ভাল করতে পারব। আমরা সেটা নিয়ে ভাবছি।’

দুই ম্যাচের টি২০ সিরিজে অচেনা স্পিনারদের বিপক্ষে ব্যর্থ হয়েছেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যনরা। এবার ওয়ানডে দলে থাকছেন বর্তমানে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা লেগস্পিনার ইমরান তাহির। এ বিষয়ে মাশরাফি বলেন, ‘আসলে বড় দলের বিপক্ষে খেলতে গেলে একজন-দুজন বিশ্বমানের বোলার থাকবেই। আমাদের এগুলো সামলেই খেলতে হবে। এত বড় বড় খেলোয়াড়দের বিপক্ষে খেলছি। সফলতা পেলে বেশি ভাল লাগবে। আমরা আসলে শেষ দুটি ম্যাচে স্পিনে ভুগেছি। আমাদের পরিকল্পনা আছে, আশা করছি পরিকল্পনা মাফিক ভাল করলে ব্যাটসম্যানরা ভাল করবে।’ তবে দলের ওপর বেশ আত্মবিশ্বাসী মাশরাফি। তিনি মনে করেন ৫০ ওভারের ক্রিকেটে গত আট মাসে বাংলাদেশ দল যে নৈপুণ্য দেখিয়েছে সেটা ধরে রাখতে পারলে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষেও ভাল করতে পারবে বলে মনে করেন তিনি। মাশরাফি বলেন, ‘উইকেট নিয়ে এখন বেশি না ভাবাই ভাল। আমাদের পদ্ধতিগুলো ঠিক রাখতে হবে। দুই ম্যাচে আমরা দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং করেছি, সেটাও আমাদের জন্য নেতিবাচক ছিল। তবে ৫০ ওভারে উইকেট এত তাড়াতাড়ি ভাঙবে না। তবে এখন থেকে ভালটা চিন্তা করছি। যেটা খারাপ হয়ে গেছে সেটা নিয়ে ভাবলে আরও খারাপ হবে। শেষ দুই সিরিজে যেভাবে খেলেছি সেটার পুনরাবৃত্তি করাই আমাদের উচিত। প্রথমত আমরা খেলোয়াড়রা সব সময় জিততে চাই।’ ওয়ানডে সিরিজে থাকছেন না অন্যতম প্রোটিয়া ব্যাটিং স্তম্ভ এবি ডি ভিলিয়ার্স। এ বিষয়ে মাশরাফি বলেন, ‘বিশ্বক্রিকেটে এবি এমন এক ব্যাটসম্যান যাকে শুধু একটা বোলার না একটা পুরো দল ওকে সমীহ করে। প্রতিপক্ষ দলের কোচের ওকে নিয়ে আলাদা পরিকল্পনা করতে হয়। এবি যেই দলের বিপক্ষে খেলে না তাদের জন্য সেটা স্বস্তিদায়ক। আবার দক্ষিণ আফ্রিকাও কিন্তু এবিকে অনেক মিস করবে। আলাদা করে পরিকল্পনা করবে ওকে ছাড়া। এবিকে বর্ণনা করলে আমি এভাবে বর্ণনা করতে পারি, ওর মতো খেলোয়াড় যেই দলে খেলতে না তাদের আরও বেশি চিন্তা।

দক্ষিণ আফ্রিকা দল আমাদের হারাতে হলে শুধু এবি না অন্য বড় তারকা আছে। হাশিম আমলা, ডি কক আছে যারা অহরহ এক শ’ করে, অনেক বড় বড় রান করে, তারা থাকলেও দক্ষিণ আফ্রিকার জন্য কাজটা অনেক সহজ হয়ে যাবে। তবে অবশ্যই ও না থাকায় আমাদের জন্য অনেক বড় সুযোগ।’