২২ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৫ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

জনকণ্ঠের তুহিন পেলেন পিআইবি-এটুআই গণমাধ্যম পুরস্কার


জনকণ্ঠের তুহিন পেলেন পিআইবি-এটুআই গণমাধ্যম পুরস্কার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ডিজিটাল বাংলাদেশবিষয়ক রিপোর্ট প্রকাশের জন্য পিআইবি-এটুআই গণমাধ্যম পুরস্কার-২০১৫ পেয়েছেন দৈনিক জনকণ্ঠের রিপোর্টার এমদাদুল হক তুহিনসহ ৬ সাংবাদিক। গত ২০ ফেব্রুয়ারি জনকণ্ঠের প্রথম পাতার প্রধান সংবাদ ‘ডিজিটাল জোয়ার ॥ ঘরে বসে মিলছে সরকারী সব সেবা’ শীর্ষক প্রতিবেদনের জন্য জাতীয় সংবাদপত্র ক্যাটাগরিতে জনকণ্ঠের তুহিন এ পুরস্কার লাভ করেন। মোট পাঁচটি ক্যাটাগরিতে পুরস্কারপ্রাপ্ত ৬ সাংবাদিকের হাতে এ পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। বুধবার বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট অডিটরিয়ামে এক অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন প্রকল্পের (এটুআই) আওতায় চলতি বছর থেকে এ পুরস্কার প্রবর্তন করা হয়। পুরস্কারপ্রাপ্ত অন্যরা হলেন টেলিভিশন ক্যাটাগরিতে এসএ টেলিভিশনের সিনিয়র রিপোর্টার প্লাবণ রহমান, আঞ্চলিক সংবাদপত্র ক্যাটাগরিতে বগুড়ার দৈনিক সাতমাথা’র বার্তা সম্পাদক মোঃ শাহজাহান আলী, বেতার ক্যাটাগরিতে যৌথভাবে বাংলাদেশ বেতারের সহকারী পরিচালক মাহফুজুল ইসলাম এবং এবিসি রেডিওর সিনিয়র রিপোর্টার শাহনাজ শারমীন, অনলাইন সংবাদপত্র ক্যাটাগরিতে বাংলানিউজটুয়েন্টিফোর.কমের বিশেষ সংবাদদাতা রফিকুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, গণতন্ত্রের জানালা দিয়ে যেমন পোকামাকড় ঢোকে ঠিক তেমনি সাইবার জগতেও সাইবার অপরাধীরাও বিচরণ করছে। তারা নানা অপরাধের মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা বাধাগ্রস্ত করে যাচ্ছে। স্বচ্ছ সমাজ গড়তে নিরাপদ সাইবার স্পেস করা আমাদের কর্তব্য। এ বিষয়ে সাংবাদিকদের কাজ করতে হবে। আমাদের সাইবার স্পেস নিরাপদ রাখতে একটি আন্তর্জাতিক চুক্তিও জরুরী হয়ে পড়েছে।

তথ্যপ্রযুক্তির অবদান ব্যাখ্যা করতে গিয়ে ইনু বলেন, বর্তমানে বিশ্বের প্রতিটি দেশে তথ্যপ্রযুক্তি বিপ্লব ঘটে চলছে। বাংলাদেশকে তার সঙ্গে যুক্ত করার জন্য এবং এ উন্নয়ন ধারাকে বিকশিত করে সাধারণ মানুষের ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে। প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে সমাজ এগিয়ে যাচ্ছে, ফলে মানুষ নানাভাবে উপকৃত হচ্ছে। প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে জনগণের ক্ষমতায়তন নিশ্চিত করাসহ রাষ্ট্রের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বৃদ্ধিতে গণমাধ্যমের ভূমিকা সম্পর্কে তিনি বলেন, জনগণের দোরগোড়ায় সরকার যেসব প্রযুক্তিগত সেবা ও সুবিধা সরবরাহ করছেন, সাংবাদিকরা সেসব তথ্য যেমন জনগণের কাছে পৌঁছে দেবে, তেমনি অপরাধমুক্ত সাইবার জগত তৈরিতেও গণমাধ্যমকে কাজ করতে হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সমকাল সম্পাদক গোলাম সারওয়ার আধুনিক সাংবাদিকতায় নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার সম্পর্কে বলেন, সাংবাদিকতায় প্রযুক্তির ব্যবহারও এখন বেশ গুরুত্বপূর্ণ। প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহার না জানলে একজন সংবাদকর্মীকে ছিটকে পড়তে হবে। বিশ্বজুড়ে উন্নয়ন সাংবাদিকতার চর্চা ও ব্যবহারের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, সংবাদপত্রে নেতিবাচক সংবাদের পাশে ইতিবাচক ও উন্নয়নমূলক সংবাদ প্রচার করা গুরুত্বপূর্ণ। পিআইবি-এটুআই গণমাধ্যম পুরস্কার সাংবাদিকদের ডিজিটাল বাংলাদেশবিষয়ক সংবাদ প্রকাশ করায় উদ্বুদ্ধ করবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

তথ্য সচিব মরতুজা আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. গোলাম রহমান, এটুআই প্রকল্পের জনপ্রেক্ষিত বিশেষজ্ঞ নুরুজ্জামান মুক্তাসহ এটুআই প্রকল্প এবং পিআইবির উর্ধতন কর্মকর্তারা। বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার হিসেবে তুলে দেয়া হয় ৭৫ হাজার টাকা, সনদপত্র ও ক্রেস্ট।