২৫ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

সড়কের দুই পাশ দখল করে ট্রাক পার্কিং


স্টাফ রিপোর্টার, বাগেরহাট ॥ গুরুত্বপূর্ণ দুটি মহাসড়কের দু’পাশ দখল করে অবৈধ ট্রাক টার্মিনাল গড়ে উঠেছে। ফলে মহাসড়কটি সংকুচিত হওয়ায় দৈনন্দিক যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হচ্ছে। বাড়ছে সড়ক দুর্ঘটনা। মহাসড়কের হাইওয়ে পুলিশের দায়িত্বহীনতাকে দায়ী করেছে এলাকাবাসী।

খুলনা-মংলা ও বাগেরহাট-মাওয়া মহাসড়কের টাউন নওয়াপাড়া ও কাটাখালী বাসস্ট্যান্ড দুটি গুরুত্বপূর্ণ মোড়। রাজধানী ঢাকার সঙ্গে কাটাখালী বাসস্ট্যান্ড ও টাউন নওয়াপাড়া মোড়ের সরাসরি যোগাযোগের মূল কেন্দ্রবিন্দু। কিন্তু এখানে আজও কোন ট্রাক টার্মিনাল গড়ে না উঠায় দূরদূরান্ত থেকে আসা শ’ শ’ ট্রাক মহাসড়কের দু’পাশ দখল করে পার্কিংয়ে বাধ্য হচ্ছে। আর এই পার্কিংয়ের কারণে সাইড সোল্ডার এখন একটি অঘোষিত ও অবৈধ ট্রাক টার্মিনালে পরিণত হয়েছে। কাটাখালী হাইওয়ে থানা পুলিশ অবৈধভাবে পার্কিংয়ে থাকা কন্টিনার ও ট্রাকের বিরুদ্ধে আইনগত কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় ক্রমশ সড়ক দুর্ঘটনা বাড়ছে।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিদিন ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত টাউন নওয়াপাড়া মোড় এবং কাটাখালী বাসস্ট্যান্ডের গুরুত্বপূর্ণ দুটি স্থানের দু’পাশ দখল করে ট্রাক পিকআপ ও কন্টেনার পার্কিং করে রাখা হয়েছে। মহাসড়কে যত্রতত্র কন্টেনার ও ট্রাক পার্কিং করায় চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। এর ফলে হেঁটে চলাচল করা দুরুহ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সড়ক দখলকারী চালকদের যদি অন্যকোন যানবাহনের চালক বা পথচারী কিছু বলতে গেলে উল্টো তাকে নাজেহাল হতে হয়। অবৈধ ট্রাক টার্মিনাল গড়ে উঠার সুযোগে এক শ্রেণীর লোক পাহারা দেয়ার কথা বলে গাড়িপ্রতি ২০/৩০ টাকা হারে চাঁদা আদায় করছে। কোন চালক চাঁদার টাকা না দিলে তার গাড়ি থেকে ব্যাটারি বা অন্য মালামাল খোয়া যাচ্ছে বলেও চালকরা জানিয়েছেন।

এলাকাবাসী অবৈধ ট্রাক টার্মিনালটি (পার্কিং) উচ্ছেদের জন্য হাইওয়ে পুলিশকে বারবার অবহিত করলেও তারা কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করছে না।

এ ব্যাপারে কাটাখালী হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল মান্নান ফারাজী বলেন, ‘এখানে দায়িত্ব অবহেলার কোন সুযোগ নেই। ইতোপূর্বে একাধিকবার অবৈধভাবে পার্কিং নেয়া কন্টেনারবাহী ট্রাক ও চালকদের যানবাহন সরিয়ে নেয়ার জন্য বলা হয়েছে। তবে অচিরেই সাইড সোল্ডার দখলকারী যানবাহনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’