মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
১৮ আগস্ট ২০১৭, ৩ ভাদ্র ১৪২৪, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

শিক্ষাক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে চায় মোদি সরকার ॥ অমর্ত্য সেন

প্রকাশিত : ৮ জুলাই ২০১৫
  • ‘আচার্য পদ থেকে অপসারণের নেপথ্যে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী’

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে আরও একবার প্রকাশ্যে এলো অর্থনীতিতে নোবেল বিজয়ী অমর্ত্য সেনের বিরোধ। তিনি সরাসরি অভিযোগ করেছেন, নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য পদ থেকে তার অপসারণের পিছনে মূল কলকাঠি নেড়েছিলেন মোদিই। খবর জি নিউজের।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তার অপসারণ নিয়ে চার হাজার শব্দের একটি প্রবন্ধ লিখেছেন অমর্ত্য। প্রবন্ধটি নিউইয়র্ক রিভিউ অফ বুকস-এর আগস্ট সংখ্যায় প্রকাশিত হবে। তিনি সেখানে বলেছেন, মোদি সরকার বস্তুত ভারতের শিক্ষাক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানগুলোতে প্রত্যক্ষ নিয়ন্ত্রণ কায়েম করতে চাইছে। তার মতে, ভারতের শিক্ষাব্যবস্থা এ মুহূর্তে আগ্রাসনের ভয়াবহ হুমকির সম্মুখীন। মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ক্ষমতা দখলের চেষ্টা করেছে। এর আগে ভারতে এমনটা ছিল না। এ প্রবন্ধ নিয়ে ভারতীয় ইংরেজী দৈনিক টাইমস অব ইন্ডিয়াকে দেয়া সাক্ষাতকারে অধ্যাপক অমর্ত্য সেন ভারতের অর্থনীতির বর্তমান অবস্থা নিয়েও গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন, এ সরকার বাজার অর্থনীতি বুঝতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। এ দেশের কেন্দ্রীয় বাজেটে দিন দিন কমতে থাকা শিক্ষা ও স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দের পরিমাণ তাকে চিন্তিত করেছে। তিনি আরও বলেছেন, আমি শিল্পায়ন বিরোধী নই। কিন্তু প্রয়োজনীয় শিক্ষা ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থার অভাবে থাকা কোনও শ্রমিক শক্তিকে দিয়ে পৃথিবীর কোনও দেশই বৃহৎ শিল্পোন্নত দেশে পরিণত হতে পারে না। গত বছরের ১৭ জুলাই নালন্দা আচার্য পদ থেকে পদত্যাগ করেন অমর্ত্য সেন।

বর্তমানে নালন্দার আচার্য পদের দায়িত্ব পালন করছেন সিঙ্গাপুরের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী জর্জ ইয়েও। এই অর্থনীতিবিদের অভিযোগ তাকে নালন্দার আচার্য পদ থেকে সরে যেতে বাধ্য করা হয়েছে। তিনি বলেন, ‘বোর্ডের কিছু সদস্য, বিশেষত বিদেশী সদস্যরা চাইছিলেন আমি যাতে দায়িত্ব থেকে সরে না যাই। কিন্তু অকার্যকরী নেতা হিসেবে থেকে যাওয়ার কোনও ইচ্ছা আমার ছিল না।

প্রকাশিত : ৮ জুলাই ২০১৫

০৮/০৭/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: