মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৩ আগস্ট ২০১৭, ৮ ভাদ্র ১৪২৪, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

বিশ্বে প্রতি ছয় সেকেন্ডে একজনের মৃত্যুর কারণ তামাক

প্রকাশিত : ৭ জুলাই ২০১৫, ০১:২২ পি. এম.

অনলাইন ডেস্ক ॥ ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য সেবনের ফলে বিশ্বে প্রতি ছয় সেকেন্ডে একজনের মৃত্যু হয়। বছরে এ সংখ্যা ৬০ লাখ ছাড়িয়ে যায়। এখনই তামাকজাত দ্রব্য সেবন বন্ধ করার উদ্যোগ না নিলে ২০৩০ সাল নাগাদ বছরে মৃত্যুর সংখ্যা ৮০ লাখ ছাড়িয়ে যাবে বলে হুঁশিয়ার করে দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

‘বৈশ্বিক তামাক মহামারী-২০১৫’ শীর্ষক এক প্রতিবেদনে এ হুঁশিয়ারি দেয় জাতিসংঘের স্বাস্থ্য সংস্থাটি। এতে বিশ্বব্যাপী সরকারগুলোর প্রতি জীবন বাঁচাতে ও আরও শক্তিশালী স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে সিগারেটসহ সব ধরনের তামাকজাত দ্রব্যের ওপর বেশি পরিমাণ কর আরোপের আহ্বান জানানো হয়।

প্রতিবেদনে জানানো হয়, জনগণকে ধূমপান থেকে দূরে রাখতে এ পর্যন্ত মাত্র গুটি কয়েক সরকার তামাক ও তামাকজাত দ্রব্যের ওপর বেশি পরিমাণ কর আরোপ করতে পেরেছে। তাদের এ উদ্যোগ সফলও হয়েছে।

এসময় সিগারেটসহ সব ধরনের তামাকজাত দ্রব্যের ওপর মূল দামের ৭৫ শতাংশ পর্যন্ত কর আরোপের আহ্বান জানানো হয়।

ওই প্রতিবেদনে ডব্লিউএইচও’র মহাসচিব মার্গারেট চ্যান বলেন, সারা বিশ্বে বর্তমানে প্রায় একশ কোটি মানুষ ধূমপানে আসক্ত। কিন্তু এই মহামারী রুখতে তামাকজাত দ্রব্যের ওপর খুব কম দেশই উচ্চ কর আরোপের ব্যবস্থা করেছে। মানুষকে ধূমপান ও তামাক সেবন থেকে দূরে রাখতে সবচেয়ে কার্যকর কৌশল হল, এসব দ্রব্যের দাম বাড়িয়ে দেয়া। এর ফলে রাজস্ব আয়ও বেড়ে যায়।

ক্যান্সার, হৃদযন্ত্র ও ফুসফুসের বিভিন্ন রোগ এবং ডায়াবেটিসের জন্য অন্যতম দায়ী উপাদান তামাক ও তামাকজাত দ্রব্য। শুধুমাত্র ২০১২ সালে এসব রোগে বিশ্বব্যাপী দেড় কোটিরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এদের ৮০ শতাংশই দরিদ্র ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোর অধিবাসী।

প্রকাশিত : ৭ জুলাই ২০১৫, ০১:২২ পি. এম.

০৭/০৭/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: