মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২০ আগস্ট ২০১৭, ৫ ভাদ্র ১৪২৪, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

সিলিকন ভ্যালির নতুন বিস্ময় এলিজাবেথ হোমস

প্রকাশিত : ৭ জুলাই ২০১৫
  • এনামুল হক

টেক জগতের শিল্পোদ্যোক্তাদের অনেক সময় তাদের নিজস্ব পছন্দের পোশাক বা ইউনিফর্ম থাকে, যা তাদের একান্ত স্বাতন্ত্রের পরিচায়ক। ফেসবুকের মার্ক জাকারবার্গের পোশাকটি হলো জিনস্ এবং হুডি। প্রয়াত স্টিভ জবসের পোশাকে ছিল জিনস্ এবং ব্ল্যাক টার্টলনেক। থেরানসের প্রতিষ্ঠাতা কর্ণধার এলিজাবেথ হোমস দ্বিধাহীনচিত্তে এমন এক ইউনিফর্ম বেছে নিয়েছেন, যেটাতে তাকে অধিকতর স্মার্ট দেখায়। সেটা হলো ম্যাচ করা ব্ল্যাক জ্যাকেট, ট্রাউজার এবং টার্টলনেক। স্বভাব সুলভ অকপটে বলেন হোমস : প্রতিদিন সকালে কি পরব তা ঠিক করতে করতে মেলা সময় চলে যায়। একটা নির্দিষ্ট ইউনিফর্ম থাকলে সে সময়টা বাঁচে।

হোমসের বয়স যখন মাত্র ১৯ বছর, সে সময় এক অভিনব আইডিয়া তাঁর মাথায় খেলে যায়। তা হলো রক্ত পরীক্ষা যেভাবে করা হয়ে থাকে, সেটাকে কিভাবে উন্নত করে তোলা যায়। আইডিয়া যখন এলো ব্যস আর কথা নেই। তখন স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তেন হোমস। কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে। তো পড়া ছেড়ে দিলেন তিনি। লেখাপড়া চালানোর জন্য যে টাকাটা জমিয়ে রেখেছিলেন তা দিয়ে চুপেচাপে খুলে বসলেন একটা ডায়াগনস্টিকস কোম্পানি ‘থেরানস’।

সেটা ২০০৩ সালের কথা। পরবর্তী দশটা বছর তিনি নীরবে নিভৃতেই কাটালেন। কোম্পানির তরফ থেকে কোন প্রেস রিলিজ দেননি। এমনকি কোন ওয়েবসাইটও খুলেননি। এ সময়টিতে তিনি শত শত পরীক্ষা সস্তায় করার উপায়টির উৎকর্ষ ঘটান। ল্যাব-অন-এ-চিপ প্রযুক্তি ব্যবহার করে তিনি এক ফোঁটা রক্তের ওপর ভিত্তি করে দ্রুত, সহজে ও সস্তায় পরীক্ষায় কৌশল উদ্ভাবন করেন। হোমসের বয়স আজ ৩১ বছর। ফরবিস ম্যাগাজিনের হিসেবে তিনি ৪৭০ কোটি ডলার সম্পদের মালিক এবং স্বীয় চেষ্টা ও সাধনায় প্রতিষ্ঠিত বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ নারী বিলিয়নিয়ার।

ক্যালিফোর্নিয়ার সিলিকন ভ্যালির পালো অলটোর এই কোম্পানি ‘থেরানস’ বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে তার শাখা খুলে রোগীদের রক্ত পরীক্ষা করছে। অনেক পরীক্ষা আঙ্গুলের ডগায় প্রিক করে নেয়া এক ফোঁটা রক্ত দিয়েই করা সম্ভব। বাকি পরীক্ষাগুলো বাচ্চাদের ইঞ্জেকশনের ছোট্ট সুুঁই দিয়ে সামান্য একটু রক্ত নিয়েই করা যেতে পারে। পরীক্ষাগুলো এত দ্রুত ও সহজে করা যায় যে, আর বলার নয়। কোলেস্টেরোল পরীক্ষাতেই লাগে মাত্র ৩ ডলার। হোমস বিশ্বাস করেন, তার উদ্ভাবিত প্রযুক্তি বিশ্বব্যাপী রোগ নির্ণয়ের ক্ষেত্রে একটা বিপ্লব ঘটিয়ে দিতে পারে। থেরানস এ পর্যন্ত প্রায় ২৫০ ধরনের পরীক্ষা করতে পারে। এই সংখ্যাটিতে এক হাজারে উন্নীত করার টার্গেট আছে তাদের।

আমেরিকায় ডায়াগনস্টিক ব্যবসা বড় লাভজনক ব্যবসা। প্রতিবছর সেখানে বিভিন্ন পরীক্ষার পেছনে প্রায় ৬ হাজার কোটি ডলার ব্যয় হয়। বেশিরভাগ পরীক্ষা হয় হাসপাতালগুলোর নিজস্ব ল্যাবে নয়ত বাইরের বিশেষায়িত পরীক্ষাগারে। এর সঙ্গে যুক্ত আছে পরীক্ষার উপকরণ বা সরঞ্জাম প্রস্তুতকারক কোম্পানির ব্যবসা যারা শুধু আমেরিকায় বছরে আড়াই হাজার কোটি ডলারের এবং বিশ্বব্যাপী ৫ হাজার ৬শ’ কোটি ডলারের সাজসরঞ্জাম বিক্রি করে। হোমসের কোম্পানি থেরানস এই বিশাল জমজমাট ব্যবসায় ব্যাঘাত ঘটানোর মতো হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিপুল বিত্ত ও খ্যাতির অধিকারী আজ মিজ হোমস। তথাপি বিত্ত ও সুনামের প্রতি তার তেমন কোন আকর্ষণ নেই। তিনি বলেন, মানুষকে সুস্থ রাখার লক্ষ্যে ডায়াগনস্টিক পরীক্ষাকে কাজে লাগানোই তাঁর মিশন। তিনি ডায়াবেটিস, ক্যান্সার ও হৃদরোগের মতো রোগব্যাধিকে রোগের লক্ষণ দেখা দেয়ার অনেক আগেই নির্ণয় করতে এবং এভাবে মানুষের জীবন রক্ষা করতে চান। ভক্তরা তাঁকে স্টিভ জবসের মতো প্রযুক্তি জগতের মহারথিদের সঙ্গে তুলনা করতে চান। তবে তাঁর দৃষ্টি যেহেতু মানবজাতির স্বাস্থ্য সমস্যার ওপর নিবন্ধ তাই অনেকে মনে করেন যে, তাঁকে এলোন মুস্কের সঙ্গে তুলনা করাই অধিকতর সঙ্গত। হোমস সম্প্রতি ঘোষণা করেছেন , তিনি তাঁর মিশনকে আমেরিকার সীমান্তের বাইরে নিয়ে যাবেন। মেক্সিকোয় মেডিক্যাল পরীক্ষা অতি সস্তায় করার জন্য একটি অ-লাভজনক প্রকল্প চালু করবেন। থেরানস এখনও পর্যন্ত একটি ব্যক্তি মালিকানাধীন কোম্পানি। এর ৫০ শতাংশের বেশি মালিকানা স্বয়ং হোমসের।

সূত্র : দি ইকোনমিস্ট।

প্রকাশিত : ৭ জুলাই ২০১৫

০৭/০৭/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ:
চাহিদার চেয়ে কোরবানিযোগ্য পশুর সংখ্যা বেশি ॥ কোন সঙ্কট হবে না || বঙ্গবন্ধুর খুনীরা যে গর্তেই লুকিয়ে থাকুক ধরে এনে রায় কার্যকর করা হবে ॥ আনিসুল হক || উত্তরের বন্যার পানি নামছে, মধ্যাঞ্চলে নতুন এলাকা প্লাবিত || রায় যদি বিরাগ প্রসূত হয়ে থাকে তাহলে শপথ ভঙ্গ হবে || কমলাপুরে মানুষের ঢল, প্রত্যাশিত টিকেট না পেয়ে অনেকেই হতাশ || সেই মৃত্যু- রক্তস্রোতের ভয়ঙ্কর স্মৃতি আজও তাড়িয়ে বেড়ায় || বিএনপির ক্ষমতার রঙিন খোয়াব কর্পূরের মতো উবে গেছে ॥ কাদের || মেগা প্রকল্পে অর্থ ব্যয়ের ওপরই নির্ভর করছে চট্টগ্রামের উন্নয়ন || যমুনার বাঁধে আশ্রয় নিতেও এককালীন নজরানা, দিতে হয় মাসিক ভাড়া || আওয়ামী লীগে যোগ দেয়া ৪শ’ জামায়াতীর ওপর নজরদারি ||