২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ঈদ-উল-ফিতরের যত এ্যালবাম


সাজু আহমেদ ॥ সিনিয়র শিল্পীদের অবহেলা আর তারুণ্যদীপ্তখ্যাত শিল্পীদের সফট্ওয়ার নির্ভরতা, সর্বোপরি অতি দ্রুত তারকাখ্যাতির নেশার কারণে দেশের অডিও অঙ্গণে মৌলিক গানের সংকট প্রকট আকার ধারণ করেছে। তারপরেও কতিপয় সচেতন শিল্পীর অকৃত্রিম প্রচেষ্টায় ধীর গতিতে সমৃদ্ধ হচ্ছে আমাদের সঙ্গীত অঙ্গন। মৌলিক গানের সংকট নিরসনে কতিপয় শিল্পী তাদের মেধা ও মননকে কাজে লাগিয়ে নতুন নতুন এ্যালবাম রিলিজ দিচ্ছেন। এরই ধারাবাহিকতায় এবারে ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে রেকর্ড পরিমাণ এ্যালবাম বাজারে আসছে। অডিও এ্যালবাম প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলোসুত্রে জানা গেছে এবারে ঈদ উপলক্ষে দুই শতাধিক এ্যালবাম রিলিজ হতে যাচ্ছে। এর মধ্যে বেশিরভাগ এ্যালবাম ইতোমধ্যে বাজারে চলে এসেছে। এসব এ্যালবামের মধ্যে শিল্পী কনক চাঁপার ‘পদ্ম পুকুর’ সামিনা চৌধুরী ও রাঘব চট্টোপাধ্যায়ের ‘একটা বন্ধু চাই’, বেলাল খানের ‘আর একটিবার’, এফ এ সুমনের ‘জানরে তুই’, ইমরানের ‘বলতে বলতে চলতে চলতে’, তৌসিফের ‘আয়োজন’, ‘আরেফিন রুমি ফিউচারিং সুইটি’, লুৎফর হাসানের ‘বিরহ উদ্যান’, প্রতিক হাসানের ‘দিলি না দেখা’ এ্যালবামগুলো ইতোমধ্যে আলোচনায় এসেছে। এছাড়া বেশিরভাগ এ্যালবামের গানগুলো মৌলিকত্ব সংকটের কারণে শ্রোতাদের কতটা আকর্ষণ করবে সেটা নিয়েও শঙ্কা রয়েছে। সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে এবারে ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে সব চেয়ে বেশি এ্যালবাম বাজারে ছেড়েছে জি-সিরিজ ও অগ্নিবীনা। ঈদ উপলক্ষে বাজারে এসেছে এ প্রতিষ্ঠানের শতাধিক এ্যালবাম। এ ছাড়া লেজার ভিশনের ১৩টি, সঙ্গীতার ৯টি, সিডি চয়েসের ৭টি, ঈগল মিউজিকের ৯টি এবং সুরঞ্জলির একাধিক এ্যালবাম বাজারে এসেছে। পাশাপাশি ব্যান্ডশিল্পী আইয়ুব বচ্চুর ‘জীবনের গল্প’, ব্যান্ডদল মাইলসের ‘প্রতিধ্বনী’ এ্যালবাম বাজারে এসেছে। সব মিলে এবারের ঈদ উপলক্ষের অডিও এ্যালবামের বাজার অনেকটাই চাঙা। তবে হাতেগোনা কয়েকটি এ্যালবাম ছাড়া বেশিরভাগ এ্যালবামের মিউজিক কন্টেন্টেন, সুর এবং শিল্পীদের গায়কি নিয়ে বরাবরের মতই সন্দেহ করছেন সংশ্লিষ্টরা। এ এ্যালবামগুলো আদৌ শ্রোতাদের মন জয় করতে পারবে কিনা সে বিষয়ে খোদ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষই যথেষ্ট শঙ্কায় রয়েছে বলে জানা গেছে।

জি সিরিজ ও অগ্নিবীণা : প্রতিবারের মতো এবারের ঈদ-উল-ফিতরে উৎসবকে রাঙিয়ে তুলতে জি-সিরিজ ও অগ্নিবীণা প্রকাশ করেছে শতাধিক নতুন এ্যালবাম। এর মধ্যে একক, মিশ্র ও ব্যান্ড এ্যালবাম দিয়ে সাজানো হয়েছে ঈদ আয়োজন। জি-সিরিজ অগ্নিবীণা কয়েকটি এ্যালবাম বাজারে ছেড়েছে। তার মধ্যে রয়েছে ‘ব্যান্ডের গাছের কা-’, মিনারের ‘আহা রে’, এফ এ সুমন ফিচারিং বিপুলের একক ‘আমি তোমার কি হই’, ইসলামিক সঙ্গীত ‘আলোর পথে’, নন্দন আমিনার, মোহাম্মদ খালেদ হোসেনের ‘যাবি কে মদিনায়’, সিনথিয়ার একক ‘তোমাকে ভুলিনি’, শ্রেয়া গুহঠাকুরতা ও নুরুল ইসলামের রবীন্দ্রনাথ সঙ্গীতের এ্যালবাম ‘আজি এ বসন্তে’, নোশীন লায়লার নজরুল সঙ্গীতের একক এ্যালবাম ‘সে দিন নিশীথে’, অভি মোস্তাফিজের নজরুল সঙ্গীতের একক ‘প্রিয়া এসো হে রানী’ ও আলভী আহমেদের চলচ্চিত্রের গান ‘ইউটার্ন’। এছাড়া জি-সিরিজ ও অগ্নিবীণার থেকে প্রকাশিত হতে যাওয়া এ্যালবামগুলো হলো-প্রিন্স মাহমুদের মিশ্র এ্যালবাম ‘খেয়াল পোকা’, সানি জোবায়েরের ‘চাঁদের সরবরে’, মিলার একক ‘আনসেন্সর্ড’, তপুর একক ‘দেখা হবে বলে’, হাসান চৌধুরী একক এ্যালবাম ‘তোমার অপেক্ষায়’, এফএ সুমনের একক ‘জানরে তুই’, রাজিবের ‘ভালবাসবি রে তুই’, কিশোর পলাশের ‘একক দয়াল’, ব্যান্ড আর্টসেলের এ্যালবাম ‘আর্টসেল’, অবসকিউর ব্যান্ডের ‘মাঝ রাতের চাঁদ’, সাজুর একক ‘সরল মনে’, অভীর একক ‘কোথা হতে এলে’, ইভার একক ‘মেঘেরা’, নির্ঝর চৌধুরীর একক ‘চন্দ্রমুখ কুহক মায়া’, ঝিনুকের একক এ্যালবাম ‘মেঘলা মনে’, নাহিদ নাজিয়ার একক ‘প্রেমের জোয়ারে’, ফকির সিরাজির মিশ্র এ্যালবাম ‘বদলে গেল বাংলাদেশ’, পারভীন সুলতানার একক ‘তোমার লাগিয়া রে’, নির্ঝর চৌধুরীর মিশ্র এ্যালবাম ‘বিশ্বসাথে যোগ’, ‘রাসেল ফিচারিং সজীব’, মুন, পুতুলের ‘ক্যাকটাস’, ডলারের ‘ধ্বংসলীলা’, জেমীর একক ‘দুই অক্ষরের প্রেম’, ‘ইস্তি’, রিয়াদ, সজীব ও ইমরানের মিশ্র এ্যালবাম ‘ফ্রেন্ডমিক্সড’, বিপ্লব দে’র একক ‘জানা হলো না’, আরডি হিল্লোলের মিশ্র এ্যালবাম ‘মন তোমায় চায়, ব্যান্ড মিক্সড ‘রায়োটাস-১৪’, প্রিন্স হায়দারের একক ‘সহজ কথা’। এছাড়া বাংলা চলচ্চিত্র প্রকাশিত হচ্ছে ১৩টি চলচ্চিত্র। এগুলো হলো ‘পদ্ম পাতার জল’, ‘হিটম্যান’, ‘আমার চ্যালেঞ্জ’, ‘দিওয়ানা মন’, -‘৭১ এর গেরিলা’, ‘জটিল প্রেম’, ‘ক্ষণিকের ভালবাসা’, ‘কি প্রেম দেখাইলা’, ‘কখনও ভুলে যেও না’, ‘লাভ স্টেশন’, ‘সর্বনাশা ইয়াবা’, ‘এইতো প্রেম’, ‘ডিয়ারিং লাভার’ প্রভৃতি।

লেজার ভিশন : কণ্ঠ শিল্পী কনক চাঁপার এ্যালবাম ‘পদ্ম পুকুর’। সুর ও সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন মইনুল ইসলাম খান। বেলাল খানের এ্যালবাম ‘আর একটিবার’। এতে আরও গেয়েছেন সাবা ও উপমা। গানের সুর বেলাল খান, সঙ্গীত পরিচালনা মুশফিক লিটু। সামিনা চৌধুরী ও রাঘব চট্টোপাধ্যায়ের এ্যালবাম ‘একটা বন্ধু চাই’। সুর ও সঙ্গীত রাঘব চট্টোপাধ্যায়। অর্ণব মিত্র ও অনুপমা দেবনাথের এ্যালবাম ‘অজানা পথে’। সুর ও সঙ্গীত অর্ণব মিত্র। কণ্ঠশিল্পী রাশেদুল কায়েছের এ্যালবাম ‘সুরমা পাড়ের গান’, কথা ও সুর শাহ আব্দুল করিম, গিয়াস উদ্দিন, আরকুম শাহ, হাসন রাজা, দুরবীন শাহ, শাহনুর শাহ, কবি দিলওয়ার, এ কে আনাম। শিরিন দেওয়ান ও হাবিব সিরাজি বাব্বুর এ্যালবাম ‘ফোক ফ্যাক্টরী’। সঙ্গীত পরিচালনায় পংকজ। ‘রবীন্দ্রনাথের বর্ষার গান’, কণ্ঠশিল্পী ও সঙ্গীত অজয় মিত্র। রাকিব মোসাব্বিরের ‘বলবো তোকে’। সুর ও সঙ্গীত রাকিব মোসাব্বির। কণ্ঠশিল্পী আমিরুল মোমেনীন মানিক, নচিকেতা, আসিফ, আগুন ও লিজার মিক্সড এ্যালবাম ‘আয় ভোর’। সুর ও সঙ্গীত নচিকেতা, মানিক ও শাশা। কণ্ঠশিল্পী সফি ম-ল, দিলরুবা খান, শিমুল খান, রিংকু, বিউটি ও সালমার মিক্সড এ্যালবাম ‘দখিনা বাতাস’। গানের কথা কাওসার আহমেদ কাজল, সুর অনুপ ভট্টাচার্য ও সফি ম-ল। সঙ্গীত সুমন কল্যাণ। শিল্পী রাজিব, সজল, লুৎফর হাসান, শাওন, নওরিন, পলক হাসান, রিংকু, লোপা হোসাইন ও অর্ক আখন্দের মিক্সড এ্যালবাম ‘কেন দূরে থাকো’। সুর ও সঙ্গীত রানা আখান্দ। শিল্পী শামীম আহমদের এ্যালবাম ‘নিঠুর বন্ধু’। কথা ও সুর শাহ আব্দুল করিম, দুরবীন শাহ, গিয়াস উদ্দিন আহমদ, ক্বারী আমির উদ্দিন। শিল্পী ওবায়দুর রহমানের এ্যালবাম ‘মন একটা চোরাবালি’। সুর ও সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন ওবায়দুর রহমান।

সঙ্গীতা : ইমরানের সঙ্গীত পরিচলানায় এ্যালবাম ‘বলতে বলতে চলতে চলতে’। এ্যালবামে গান রয়েছে ১৪টি। ফকির শাহাবু্িদ্দনের এ্যালবাম ‘সুফি’। অতিথি আরজুর কথায় এ এ্যালবামে গান রয়েছে মোট ১০টি। তরুণ শিল্পী পাবেলের এ্যালবাম ‘পাবেল’। এ এ্যালবামে গান রয়েছে মোট১২টি। আরেফিন রুমির ‘কিছু কথা আকাশে পাঠাও’। বদরুননেছার ‘উল্টো স্রোত’ এ্যালবামে গান রয়েছে মোট ৮টি। শিল্পী ঝর্নার ‘মন পেতে মন লাগে’। এ্যালবামে গান রয়েছে মোট ১০টি। লাবু মারুফের ‘মনের কথা’। এ্যালবামে গান রয়েছে মোট ৯টি। মৌরির এ্যালবাম ‘মৌরি’। গান রয়েছে মোট ৯টি। জিএম আজহারের ‘হায়রে নূপুর’ এ্যালবামে গান রয়েছে মোট ৮টি। সঙ্গীতার এ ৯টি এ্যালবাম ছাড়া আরও কয়েকটি এ্যালবাম বাজারে আসবে বলে জানা গেছে।

সিডি চয়েস : তৌসিফের একক এ্যালবাম ‘আয়োজন’। ‘আরেফিন রুমি ফিউচারিং সুইটি’ শিল্পী আরফিন রুমি ও সুইটি। শিল্পী হেমা, আরফিন রুমি, রাজিব হোসেন, এস আই টুটুল, প্রতিক হাসান, পারভেজ ও আশিকের মিক্সড এ্যালবাম ‘সাজনা’। সুরকার আরেফিন রুমি, রাজিব হোসেন ও জিতু। সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন আরেফিন রুমি ও রাজিব হোসেন। শিল্পী মামুন হোসেনের এ্যালবাম ‘দুঃখের সাগর’। কথা ও সুর মামুন হোসেন। সঙ্গীত সুমন কল্যাণ ও মামুন হোসেন। ‘রিদোয়ান মিক্স-১’ শিল্পী রিদোয়ান, অরুন, বর্ষা শিকদার, হুমায়ূন কবির ও পলি। ফিদেলের একক এ্যালবাম ‘ফিদেল’। সহ শিল্পী সামিনা চৌধুরী, কোনাল ও খেয়া। মিক্সড এ্যালবাম ‘লাভ ডুয়েটস’। সঙ্গীত সুমন কল্যাণ, তৌসিফ, ইমরান, রাফি, রাজিব হোসেন, অয়ন, টি.আর. রোমান্স, মুশফিক লিটু ও তুষার।

ঈগল মিউজিক : শিল্পী জয় শাহরিয়ার ও পারভেজ সাজ্জাদ এ্যালবাম ‘তা না না না’। এ্যালবামে রয়েছে ৭টিগান। শিল্পী লুৎফর হাসান এ্যালবাম ‘বিরহ উদ্যান’। গানগুলোর সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন সুমন কল্যাণ, তানভীর তারেক, আহমেদ হুমায়ুন, শান, মাসুম ও রানা আখন্দ। গানগুলোর সুর করেছেন লুৎফর নিজেই। শিল্পী প্রতিক হাসানের এ্যালবাম ‘দিলি না দেখা’। এ্যালবামে রয়েছে মোট ৭টি গান। মিক্সড এ্যালবাম ‘ভালোবাসার সাত রঙ’। সুমন কল্যাণের সুরে এ্যালবামে মোট ৮টি গান রয়েছে। শিল্পী শিমুল খানের এ্যালবাম ‘বন্ধু যদি হইতো রে বাতাস’। মোট ৭টি গান দিয়ে সাজানো এ্যালবামের সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন সুমন কল্যাণ, সোহেল খান এবং রানা আখন্দ। শিল্পী বিজনের ‘বন্ধু মানে’ এ্যালবামে গানের সুর ও সঙ্গীতায়োজন শিল্পীর নিজের। পাশাপাশি ‘বাপজানের বায়োস্কপ’ ও ‘মহুয়া সুন্দরী’ চলচ্চিত্রের এ্যালবাম বাজারে এনেছে প্রতিষ্ঠানটি। এছাড়া ইলিয়াস হোসেনের ‘না বলা কথা-৩’সহ একাধিক এ্যালবাম বাজারে আনছে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সুরাঞ্জলি।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: