মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১১ আশ্বিন ১৪২৪, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

সেই বালক রোনাল্ডোর ক্লাবে

প্রকাশিত : ৭ জুলাই ২০১৫

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ দীর্ঘ ১১ বছর আগে ভয়ঙ্কর সুনামির গ্রাসে ভেসে গিয়েছিল ইন্দোনেশিয়ার বিশাল প্রান্ত। সেই ভয়াল সুনামির একুশ দিন পর নোংরা পানি আর কাদার মধ্যে সাত বছরের একটি মরণাপন্ন ছেলেকে খুঁজে পায় দেশটির উদ্ধারকারী দল। সেই ছেলের গায়ে ছিল পর্তুগালের জার্সি। পিঠে লেখা ছিল রোনাল্ডো। পানি-কাদায় মাখামাখি সেই জার্সির ছবি বিশ্ব জুড়েই আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল। ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোও ছুটে যান ইন্দোনেশিয়াতে ছেলেটির সঙ্গে দেখা করতে।

সেই দিনের বালক মার্তুনিস আজ ১৭ বছরের টগবগে এক তরুণ। বৃহস্পতিবার তিনি যোগ দিলেন স্পোটিং লিসবনে। লুইস ফিগো, ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো, ন্যানির পুরনো ক্লাবে। তার খুব ইচ্ছে, রূপকথার নায়ক রোনাল্ডোর মতো বড় ফুটবলার হবেন। বৃহস্পতিবারই তার হাতে স্পোর্টিং লিসবনের জার্সি তুলে দেয়া হয়। ছোট্ট অনুষ্ঠানে মার্তুনিস নিজের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, ‘এখানে আসতে পেরে আমি খুশি। স্পোটিং লিসবন যা করেছে, তা কোন দিন ভোলার নয়।’

আপাতত মার্তুনিস লিসবন একাডেমিতেই ফুটবলীয় শিক্ষা গ্রহণ করবেন। ১১ বছর আগে রোনাল্ডো তাকে দেখেই বলেছিলেন, ‘এই ছেলেটির মধ্যে অদম্য স্পৃহা আছে। এটা কাজে লাগাতে পারলে সকলের ভাল হবে।’ এরপর ছেলেটির পাশে দাঁড়িয়েছিল কিছু স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা। ভয়ঙ্কর সেই সুনামিতে পরিবারের সকলকেই হারিয়ে ফেলেছিলেন মার্তুনিস। তবে দীর্ঘদিন পর তার বাবার সঙ্গে দেখা হয়। বাবা তাকে আবারও স্কুলে ভর্তি করেন। খেলাধুলোর পাশাপাশি চলে ফুটবল অনুশীলন। তার পড়াশোনার দায়িত্ব নেয় সেভ দ্য চিলড্রেন সংস্থা। এই সংস্থার ব্র্যান্ড এ্যাম্বাসাডর রিয়াল মাদ্রিদের পর্তুগীজ সুপারস্টার ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো। গত মৌসুমে ব্যক্তিগত পারফর্মেন্সে ঔজ্জ্বল্য ছড়িয়েছেন সি আর সেভেন। কিন্তু দুর্ভাগ্য এই রিয়াল তারকার। গত মৌসুমে রিয়াল মাদ্রিদের জার্সিতে একটিও শিরোপা জিততে পারেনি। তবে গত মৌসুমের ব্যর্থতা ঘুচিয়ে নতুন মৌসুমে নতুন করে স্বপ্ন দেখছেন তিনি। মৌসুমের ব্যস্ততা শেষে বর্তমানে ছুটিতে আছেন সি আর সেভেন। আর ছেলে জুনিয়র রোনাল্ডোকে নিয়ে ছুটিটাও দারুণ উপভোগ করছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো।

প্রকাশিত : ৭ জুলাই ২০১৫

০৭/০৭/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলার খবর



শীর্ষ সংবাদ:
রোহিঙ্গা সমস্যার সৃষ্টি মিয়ানমারের ॥ সমাধান ওদের হাতে || বাবার ফেরার অপেক্ষায় পিতৃহারা অবোধ রোহিঙ্গা শিশুরা || বছরে রফতানি আয় বাড়ছে ৩ থেকে ৪ বিলিয়ন ডলার || চালের বাজারে স্বস্তি প্রতিদিন দাম কমছে || বিদ্যুতের পাইকারি দর ১১.৭৮ ভাগ বৃদ্ধির সুপারিশ || মিয়ানমারে গণহত্যা বন্ধ নির্ভর করছে নিরাপত্তা পরিষদের ওপর || রোহিঙ্গা শরণার্থীদের স্বাস্থ্য সেবায় ২৫ কোটি ডলার চেয়েছে বাংলাদেশ || আরও মোবাইল ব্যাংকিং কোম্পানির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক || অপকৌশলে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণা, বিপুল অর্থ আদায় || জেলে মাদক ও মোবাইল ফোন ব্যবহার ॥ সারাদেশে দুই শতাধিক কারারক্ষী গোয়েন্দা নজরদারিতে ||