মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১২ আশ্বিন ১৪২৪, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

নবেম্বরে টোন আন্তর্জাতিক মিনিয়েচার শিল্প প্রদর্শনী

প্রকাশিত : ৭ জুলাই ২০১৫
  • সংস্কৃতি সংবাদ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শিল্পীর তুলির নিপুণতায় ছোট ক্যানভাসেও চিত্রিত হতে পারে গভীর কোন বিষয়। আর সেই মিনিয়েচার চিত্রকর্মটি সহজেই মুগ্ধ করতে পারে শিল্পানুরাগীকে। আর এ কারণেই একসময় উপমহাদেশের গৌরবময় ঐতিহ্যের অংশ ছিল মিনিয়েচার আর্ট। শিল্পরসিকদের জন্য সুসংবাদের বার্তাবহ সেই অতীত ইতিহাসকে পুনরুজ্জীবিত করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। আগামী নবেম্বরে অনুষ্ঠিত হচ্ছে টোন আন্তর্জাতিক মিনিয়েচার শিল্পকলা প্রদর্শনী ও প্রতিযোগিতা-২০১৫। সারাদেশের শিল্পীদের সঙ্গে এই প্রদর্শনীতে অংশ নেবেন বহির্বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শিল্পীরা। প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হবে এ প্রদর্শনী। প্রত্যেক শিল্পী প্রদর্শনী ও প্রতিযোগিতার জন্য নির্দিষ্ট আকারের তিনটি করে মিনিয়েচার শিল্পকর্ম জমা দিতে পারবেন। সেসব ছবি থেকে বিচারকদের রায়ের ভিত্তিতে প্রদর্শনীর জন্য ছবি নির্বাচনের সঙ্গে শিল্পীদের জন্য থাকছে পুরস্কার। রাজধানীর দুই প্রান্তের দুই প্রদর্শনালয়ে অনুষ্ঠিত হবে প্রদর্শনী। ধানম-ির গ্যালারি চিত্রক ও প্রগতির সরণির এ্যাথেনা গ্যালারিতে শোভা পাবে মিনিয়েচার শিল্পকর্মের সম্ভার। এই প্রদর্শনী ও প্রতিযোগিতার আয়োজন করছে টোন আর্ট সোসাইটি অব বাংলাদেশ।

সোমবার মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর মিলনায়তনে টোন আর্ট সোসাইটি আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়। এতে মিনিয়েচার শিল্পকলা প্রদর্শনীর ও প্রতিযোগিতার বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন টোন আর্ট সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক চিত্রশিল্পী মোঃ মনিরুজ্জামান। এছাড়াও প্রদর্শনী প্রসঙ্গে কথা বলেন সোসাইটির সভাপতি চিত্রশিল্পী ও চলচ্চিত্র নির্মাতা খালিদ মাহমুদ মিঠু, সোসাইটির দুই উপদেষ্টা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের সাবেক ডিন ও প্রবীণ চিত্রশিল্পী আবুল বারক্্ আলভী এবং কবি, স্থপতি ও চিত্রসমালোচক রবিউল হুসাইন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সোসাইটির সদস্য নবীন চারুশিল্পী সুলেখা চৌধুরী।

প্রদর্শনী ও প্রতিযোগিতা প্রসঙ্গে মোঃ মনিরুজ্জামান বলেন, আন্তর্জাতিক মানদ- অনুযায়ী শিল্পীদের সৃজিত মিনিয়েচার শিল্পকর্মটির সর্বোচ্চ মাপ হবে দৈর্ঘ্য ও প্রস্থে ১২.৫ সেন্টিমিটার। একজন শিল্পী যে কোন মাধ্যমে চিত্রিত সর্বোচ্চ তিনটি শিল্পকর্ম জমা দিতে পারবেন। তবে শিল্পকর্মে কোন ফটোগ্রাফি কিংবা কম্পিউটার টেকনোলজি ব্যবহার করা যাবে না। শিল্পকর্ম জমা দিতে হবে ধানম-ির ৬ নম্বর সড়কের গ্যালারি চিত্রকে। ১৫ থেকে ১৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সকাল ১১টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত শিল্পকর্ম জমা নেয়া হবে। প্রতিযোগিতায় নির্বাচিত শ্রেষ্ঠ শিল্পীকে পুরস্কারের অর্থমূল্য ১ লাখ টাকার সঙ্গে স্মারক ও সনদপত্র প্রদান করা হবে। এছাড়া বিভিন্ন শাখায় আরও ছয়টি শ্রেষ্ঠ পুরস্কার দেয়া হবে। সঙ্গে নগদ অর্থ, ট্রফি, সার্টিফিকেট এবং আউটস্ট্যান্ডিং কাজের জন্য থাকবে আরও ৭টি পুরস্কার। সব মিলিয়ে প্রতিযোগিতায় থাকবে ১৫টি পুরস্কার। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণে ইচ্ছুক শিল্পীরা টোন সোসাইটির ওয়েবসাইট থেকে বিস্তারিত নিয়মাবলীসহ আবেদনপত্র সংগ্রহ করতে পারবেন। ছবিসহ আবেদনপত্রটি পূরণ করে জমা দিতে হবে। ওয়েবসাইটের ঠিকানা হচ্ছেÑ িি.িঃড়হবধৎঃংড়পবরঃু.পড়স

খালিদ মাহমুদ মিঠু বলেন, এই আয়োজনের মাধ্যমে দক্ষিণ এশিয়ায় সৃষ্ট মিনিয়েচার শিল্পকলার অতীত ইতিহাস পুনরুজ্জীবিত হবে। অতীতের গৌরবময় ইতিহাসটি উঠে আসবে এই প্রয়াসের মাধ্যমে। ক্ষুদ্রাকৃতির চিত্রকলার ঐতিহ্যটি নতুন আঙ্গিকে ও নব উদ্যোমে উপস্থাপিত হবে শিল্পী ও শিল্পানুরাগীদের কাছে। একইসঙ্গে আয়োজনটির সূত্রে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শিল্পীদের সঙ্গে বাংলাদেশের শিল্পীদের ভাব বিনিময়ের একটি ক্ষেত্র তৈরি হবে। প্রদশনীর সম্ভাব্য সময় ও অংশগ্রহণ দেশ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, নবেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে গ্যালারি চিত্রক ও এ্যাথেনা গ্যালারিতে মিনিয়েচার শিল্পকলা প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে। ইতোমধ্যে ফিনল্যান্ড, যুক্তরাষ্ট্র, ডেনমার্ক, কাতার, সিঙ্গাপুর, ভারত ও পাকিস্তানের শিল্পীরা প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। এছাড়াও বিভিন্ন দেশের শিল্পীদের সঙ্গে যোগাযোগ হচ্ছে।

আবুল বারক্্ আলভী বলেন, এই অঞ্চলের ইতিহাসের সঙ্গে অঙ্গাঅঙ্গিভাবে জড়িয়ে আছে মিনিয়েচার আর্ট। সেই পাল যুগ থেকে শুরু করে মুঘল সম্রাট আকবরের আমল পর্যন্ত এই শিল্পের ব্যাপক চর্চা হয়েছে। তবে বর্তমানে শিল্পকলার এই মাধ্যমটির তেমন একটা চর্চা হচ্ছে। বড় ক্যানভাসের ছবি নিয়ে অসংখ্য প্রদর্শনী হলেও ছোট ক্যানভাসের ছবি নিয়ে সেভাবে প্রদর্শনী হয় না। ফলে শিল্পীর তুলির আঁচড়ের দারুণ দক্ষতার সাক্ষ্যবহ মিনিয়েচার আর্ট যেন হারিয়ে যাচ্ছে। এ ধরনের আয়োজনের মাধ্যমে মিনিয়েচার আর্টের প্রতি শিল্পীরা আবার মনোযোগী ও উৎসাহী হবে।

রবিউল হুসাইন বলেন, শিল্পের এ মাধ্যমটির সঙ্গে জড়িয়ে আছে সূক্ষ্ম বিষয়। মিনিয়েচার আর্ট সৃজনে তুলি চালনায় শিল্পীকে অনেক পারদর্শী হতে হয়। আর দক্ষতা ছাড়া শিল্পীর পক্ষে ছোট পরিসরে যথাযথভাবে বিষয়কে তুলে ধরা সম্ভব নয়। আমার ধারণা, এই আয়োজনের মাধ্যমে ভবিষ্যতে দেশে মিনিয়েচার আর্ট-চর্চার বিষয়টি পুনরায় প্রতিষ্ঠিত ও জনপ্রিয় হবে।

প্রকাশিত : ৭ জুলাই ২০১৫

০৭/০৭/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



শীর্ষ সংবাদ: