মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৩ আগস্ট ২০১৭, ৮ ভাদ্র ১৪২৪, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

জঙ্গীদের দুরাশা

প্রকাশিত : ৭ জুলাই ২০১৫

ইসলামিক স্টেট (আইএস) নামের আন্তর্জাতিক জঙ্গী সংগঠনটি ভারতীয় উপমহাদেশে তাদের রাজ্য গঠনের স্বপ্ন নিয়ে এগোচ্ছে বলে গণমাধ্যমে যে খবর এসেছে, তাকে অলীক, বাতুলতা বলা বা বোকার স্বর্গে বসবাস করার সঙ্গেই তুলনা করা যায়। কেননা এ অঞ্চলের বাস্তবতা ইরাক-সিরিয়ার মতো তো নয়ই, বরং ভিন্ন।

ভারতীয় উপমহাদেশে আল কায়েদা যা সংক্ষেপে একিউআইএস নামে সমধিক পরিচিত এ সংগঠনটি আইএসের প্রধান ঘাঁটি ইরাক ও সিরিয়ায় যোগাযোগ করেছে বাংলাদেশ, মিয়ানমার ও ভারতের অঙ্গরাজ্য পশ্চিমবঙ্গ, আসাম এলাকা একত্রিত করে ইসলামী খেলাফত কায়েম করবে বলে। বাংলাদেশের নিষিদ্ধ ঘোষিত ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জঙ্গীগোষ্ঠীরও এ কার্যক্রমে যোগ দেয়ার খবরও পাওয়া গেছে। এদের কর্মকা-ের অনেক কিছুই এদেশের গোয়েন্দা সংস্থা নস্যাত বা উন্মোচন করে দেয়ায় এদের গোষ্ঠী পরিচিতি স্পষ্ট হয়ে পড়েছে। ধৃত ১২ জঙ্গী আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও আদালতের কাছে যেসব তথ্য দিয়েছে তা রীতিমতো দেশদ্রোহিতার শামিল বা এদেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমের প্রতিও হুমকিস্বরূপ। কেননা খেলাফত কায়েমের জন্য যে ভৌগোলিক অবস্থা তারা নির্ণয় করেছে, তাতে বর্তমান স্বাধীন বাংলাদেশের মানচিত্র স্বাভাবিক থাকতে পারে না বা বিলীন হয়ে যেতে পারে অপর কোন রাষ্ট্র কিংবা রাজ্যের সঙ্গে। যা কোনভাবেই কেউই মেনে নেবে না। দেশের অভ্যন্তরে ১০ জেলার ১শ’ কর্মী সংগ্রহ করে জঙ্গী প্রশিক্ষণ, জেল থেকে পাঠানো জঙ্গী নেতার চিঠি প্রকাশ, গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ও স্থাপনায় হামলার যেসব পরিকল্পনা জঙ্গীদের ছিল তা ফাঁস হয়ে গেছে। বাংলাদেশ একটি স্বাধীন-সার্বভৌম ও অসাম্প্রদায়িক দেশ। এক সাগর রক্তের বিনিময়ে স্বাধীনতার সূর্য ছিনিয়ে এনেছে এ দেশের মানুষ। অসাম্প্রদায়িক ও বীরের জাতি হিসেবে রয়েছে বাঙালীর স্বাজাত্যবোধ। দেশের মানুষ উদারনৈতিক। তারা উগ্রশক্তিকে কখনই প্রশ্রয় দেয় না। বাইরের কোন উগ্রপন্থী শক্তি এখানে নিজেদের ধ্যানধারণার দর্শন কায়েম করে রাজত্ব করবে তা এ দেশের সচেতন মানুষ কোনকালে যে মেনে নেবে না বলাই বাহুল্য।

এ বাস্তবতায় আরও মনে রাখা দরকার, ভারতও একটি স্বাধীন ও বহুজাতির মিলিত রাষ্ট্র। মিয়ানমারও একটি স্বাধীন রাষ্ট্র। এসব বিষয়ই মাথায় রেখে নিশ্চিন্তে বলা যায়- একিউআইএস আইএসের সহায়তায় খেলাফত কায়েম করা শুধু দুঃস্বপ্নই নয় দুরাশাও বটে।

বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত ১২ সদস্যের একটি পরিবার যুক্তরাজ্য থেকে আকস্মিক উধাও হয়ে যাওয়ার পর আইএস হেফাজতে থাকার যে সচিত্র খবর গণমাধ্যমে এসেছে। এমন দুয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা অস্বাভাবিক নয়। এটা জঙ্গী গোষ্ঠীর একটি অপকৌশল মাত্র। তারা হাজার হাজার মানুষ হত্যার মধ্য দিয়ে বিশ্বে ত্রাস সৃষ্টি করেছে, তবে এর অর্থ এই নয়, তারা এ অঞ্চলে অপশাসন কায়েম করবে।

প্রকাশিত : ৭ জুলাই ২০১৫

০৭/০৭/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: