২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ক্রেতা ভেড়াতে লটারি বিশেষ ছাড় ফ্রি উপহার


ক্রেতা ভেড়াতে লটারি  বিশেষ ছাড়  ফ্রি উপহার

রহিম শেখ ॥ প্রকৃতির রং যাই হোক না কেন, থেমে নেই কেনাকাটা। রোদ-বৃষ্টি, যানজট উপেক্ষা করে ঈদের কেনাকাটার যুদ্ধে শামিল হচ্ছেন ক্রেতারা। ক্রেতার এই বাড়তি চাপ দেখে বিক্রেতারাও খুশি। সন্তুষ্টি বেচাকেনা নিয়ে। বিক্রি বাড়াতে লটারি, বিশেষ ছাড় কিংবা ফ্রি উপহার দিয়ে ক্রেতা আকর্ষণে চেষ্টা করছেন দোকানিরা। পোশাক, ইলেকট্রনিক্স, ফার্নিচার এমনকি বিউটি পার্লারে চলছে বিশেষ ছাড় ও নগদ মূল্যছাড়। কেউ দিচ্ছেন একটা কিনলে একটা ফ্রি। দেয়া হচ্ছে লাকি কুপন, যাতে পুরস্কার হিসেবে থাকছে গাড়ি, ফ্ল্যাট, টিভি, ফ্রিজ, মোটরসাইকেলসহ অসংখ্য পুরস্কার। বিক্রেতারা বলছেন, মূল্যছাড় কিংবা ফ্রি কিছু থাকলেই ক্রেতারা ওই পণ্যের প্রতি ঝুঁকে পড়েন। অন্যদিকে ক্রেতারা বলছেন, এটা-ওটা ফ্রি ও লটারি দিয়ে বেশি দামে পণ্য বিক্রি করছেন বিক্রেতারা।

রাজধানীর বিভিন্ন মার্কেট ও ফ্যাশন হাউস ঘুরে দেখা গেছে, ক্রেতা আকর্ষণে প্রায় বড় বড় শপিংমলে নানা অফার দিয়ে পণ্য বিক্রি করা হচ্ছে। আছে স্পেশাল অফার। মূল্য ছাড়ের ঘোষণাও আছে চটকদার ব্যানার ফেস্টুনে। দোকানে দোকানে লটারির টিকিট আর মার্কেটের প্রধান ফটকে রাখা আছে টিকিটের ফয়েল ফেলার নজরকাড়া বাক্স। মাইকিং করে চলছে প্রচার। মার্কেটভেদে ১০০ টাকা থেকে শুরু করে ৩০০ টাকার পণ্য কিনলে ১টি অথবা সর্বোচ্চ ১০টি কুপন দেয়া হচ্ছে। তাছাড়া ২০ হাজার টাকার পণ্য কিনলে ২ হাজার টাকা ছাড় থেকে শুরু করে আরও কত কী? আর এতে পুরস্কার হিসেবে রয়েছে, গাড়ি, ফ্রিজ, মোটরসাইকেল, ল্যাপটপ, এলইডি টেলিভিশন, রেফ্রিজারেটর, ওয়াশিং মেশিন, মোবাইল সেট, মাইক্রোওয়েভ ওভেন, স্ট্যান্ড ফ্যান এমনকি ফ্ল্যাটসহ নানা ধরনের পুরস্কার। নগরীর যে সব মার্কেটে ঈদ বিক্রয় উৎসবের এসব অফার দেয়া হচ্ছে এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য বসুন্ধরা সিটি মার্কেট। ‘প্রতি ২০০ টাকার পণ্যের কেনাকাটা ঘুরে দেবে ভাগ্যের চাকা’ এমন সেøাগানে ৩ জুন থেকে লাকি কুপন দিচ্ছেন বিক্রেতারা। এমন আয়োজন চলবে চাঁদরাত পর্যন্ত। পণ্য কেনায় গত বছর ১০৫টি পুরস্কার থাকলেও এবারে সর্বমোট ১২০টি পুরস্কার দিচ্ছেন দোকানিরা। বিক্রেতারা জানালেন, প্রথম পুরস্কার বিজয়ী ক্রেতাকে ১৫০০ সিসির ব্র্যান্ড নিউ টয়োটা কার দেয়া হবে। পুরস্কার হিসেবে আরও আছে ডায়মন্ড সেট, ৮১২ সিসির চেরি কার, ৩ ও ৫ ভরি সোনার গহনা, সায়মন বিচ রিসোর্টে ৩ দিন ২ রাতের এয়ার ট্রিপসহ ট্যুর প্যাকেজ, ১১০ সিসির মাহিন্দ্র স্কুটার, ৪৭ ইঞ্চি এলইডি টিভি, মোটরসাইকেল ইত্যাদি।

এশিয়ার সর্ববৃহৎ শপিংমল খ্যাত যমুনা ফিউচার পার্ক শপিংমলে মাত্র ১০০ টাকার কেনাকাটা করলেই ক্রেতাদের দেয়া হচ্ছে ১টি কুপন। শপিংমলের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, কুপনের এ অফার চলবে চাঁদরাত পর্যন্ত। একজন ক্রেতা একটি দোকান থেকে সর্বোচ্চ ৫০টি কুপন নিতে পারবেন। পুরস্কার হিসেবে থাকছে গাড়ি, মোটরসাইকেল, ডায়মন্ডের গহনা সেট, সোনার গহনা, এয়ারকন্ডিশন, এলইডি টিভি, ল্যাপটপ, রেফ্রিজারেটরসহ ৭৫টি পুরস্কার। কর্ণফুলী গার্ডেন সিটি শপিং কমপ্লেক্স, রাপা প্লাজা, ফরচুন শপিংমলসহ রাজধানীর বেশ কয়েকটি মার্কেটে এমন প্রচার চলছে। রাজধানীর অদূরে উত্তরার আমির কমপ্লেক্স, ট্রপিক্যাল আলাউদ্দিন টাওয়ার ও উত্তরা টাওয়ারে কেনাকাটা করলে ক্রেতারা পাচ্ছেন ঈদে ফ্যান্টাসি কিংডমে যাওয়ার ডিসকাউন্ট কুপন। রাজধানী ঢাকার পাশাপাশি অন্য জেলাগুলোতেও চলছে এমন সব পুরস্কারের অফার। রাজধানীর ফরচুন শপিং মলের ব্যবসায়ী সমিতির সদস্যরা জানালেন, ঈদের কেনাকাটার সঙ্গে ক্রেতাদের বাড়তি আনন্দ দেয় ঈদ বিক্রয় উৎসবের লটারি। এখানে যা লেখা হয় পুরস্কারের মাধ্যমে তাই দেয়া হয়। রাজধানীর শান্তিনগর এলাকায় অবস্থিত ইস্টার্ণ প্লাস শপিংমলের কর্মকর্তা মামুন আহমেদ জানান, গত বছরে পুরস্কারে যে পরিমাণ খরচ হয়েছে, সে পরিমাণ টাকার লটারি বিক্রি হয়নি। তাই এ বছর কোন লটারির ব্যবস্থা রাখা হয়নি। রাজধানীর বড় বড় শপিংমলের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ছোট ছোট মার্কেট ও ফ্যাশন হাউসে দেয়া হচ্ছে বিশেষ ছাড় বা মূল্যছাড়। বিভিন্ন পোশাক ক্রয়ের ওপর ১০ থেকে ৩০ শতাংশ বিশেষ ছাড় দিচ্ছে বিভিন্ন নামী-দামী ফ্যাশন হাউস। এছাড়াও পোশাক ক্রয়ে বিকাশ ব্যবহার করলে ২০ শতাংশ, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক, সিটি ব্যাংকের ডেবিট কার্ড ব্যবহার করলে মিলছে ১০ শতাংশ মূল্যছাড়। ব্র্যাক ব্যাংকের কার্ডে রয়েছে ৭ শতাংশ ক্যাশ ব্যাকের সুযোগ। এছাড়াও কয়েকটি বিপণিবিতানগুলো ক্রয়ের ওপর দিচ্ছে ৩০ শতাংশ পর্যন্ত মূল্যছাড়।

সরেজমিনে নগরীর বিভিন্ন মার্কেট ঘুরে দেখা গেছে, ক্রেতারাও এমনসব অফার লুফে নিচ্ছেন। লটারিতে নিজের নাম এবং মোবাইল নম্বর লিখে কুপনের বাকি অংশ বাক্সে ফেলছেন। মালিবাগ থেকে ফরচুর শপিং মলে কেনাকাটা করতে এসেছেন গৃহিণী মনিকা ইসলাম। তিনি জানান, পরিবারের সবার জন্যই ড্রেস কিনেছি। কিন্তু দাম গতবারের তুলনায় একটু বেশি। তিনি অভিযোগ করে বলেন, এটা-ওটা ফ্রি ও লটারি দিয়ে বেশি দামে পণ্য বিক্রি করছেন বিক্রেতারা। রবিবার সকালে রাজধানীর বসুন্ধরা সিটিতে কথা হয় আরিফুর রহমান ও সায়েমা রহমান দম্পতির সঙ্গে। আরিফুর জানান, ঈদে পরিবারের সবার জন্য কেনাকাটা করেছি। ছোটদের পোশাক তুলনামূলক দাম এবার একটু বেশি। তবে প্রায় প্রতিটি পণ্যে বিক্রেতারা লাকি কুপন দিচ্ছেন। এবার দেখা যাক ভাগ্যে কী আছে। শুধু পোশাক নয়, ফার্নিচার, ইলেকট্রনিক্স, জুতোর দোকান এমনকি পার্লারেও দেয়া হচ্ছে নানা অফার। ঈদ উপলক্ষে অটবি, হাতিল, আকতার, পারটেক্স, ব্রাদার্সসহ প্রায় ফার্নিচার শোরুমেই ৫ থেকে ২০ শতাংশ মূল্যছাড় দেয়া হচ্ছে। সিঙ্গার তাদের প্রত্যেকটি শোরুমের সব পণ্যের স্ক্রাচ কার্ডের মাধ্যমে উপহার দিচ্ছে। এ ছাড়াও অবিশ্বাস্য অফারে ওয়ালটন, মার্সেল, সনি র‌্যাংগ্স, স্যামসাং টিভি, ফ্রিজ, এয়ারকুলার, ডিভিডি প্লেয়ার, ক্যামেরা, সাউন্ড বক্স, ওয়াশিং মেশিন, কিচেন এ্যাপ্লায়েলস ও মাইক্রো ওভেন বিক্রি করছে। এছাড়া বিভিন্ন বিউটি পার্লারে ফেসিয়াল ও হেয়ার কাটের ওপর ছাড় চলছে।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: