২০ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৫ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

অবশ্যই আমাদের জয়ের সুযোগ ছিল মাশরাফি


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ সিরিজ শুরুর আগেই দক্ষিণ আফ্রিকা ভীতি একটা প্রভাব ফেলেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের স্বাভাবিক খেলায়। ব্যাটিং-বোলিংয়ে দারুণ সামঞ্জস্য নিয়ে শক্তিধর এবং ভয়ঙ্কর একটি দল দক্ষিণ আফ্রিকা এমন আলোচনা গত কয়েকদিন ধরেই চলছিল। আর এটাই একটা নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে প্রথম টি২০ ম্যাচে। অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাও বললেন, ‘অবশ্যই আমাদের জয়ের সুযোগ ছিল।’ তিনি মনে করেন ১৫০ রান তাড়া করতে নেমে প্রচেষ্টা আরেকটু করা উচিত ছিল। ব্যাটসম্যানরা আত্মাহুতি দিলেও তাদের ওপর দোষারোপ করেননি মাশরাফি এবং প্রশংসা করেছেন দলের বোলিং বিভাগের। অপরদিকে, বোলিং বিভাগের দারুণ নৈপুণ্যকে কৃতিত্ব দিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যান রিলি রুশোও। তিনি জানালেন পরে বোলিং করাতেই বাড়তি সুবিধা পেয়েছে প্রোটিয়ারা। কারণ দ্বিতীয় ইনিংসে বল অনেক টার্ন করেছে প্রথম ইনিংসের তুলনায়। রবিবার সিরিজের প্রথম টি২০ ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন দু’দেশের হয়ে দু’জন।

যতটা বেশি ভীতি কাজ করেছিল, বাস্তবে সেটা হয়নি। ভয়ঙ্কর এবি ডি ভিলিয়ার্স ও ডেভিড মিলার দু’জনই ব্যর্থ হয়েছেন। স্পিনাররা দারুণ বোলিং করেছেন। এ বিষয়ে মাশরাফি বলেন, ‘শুরু থেকেই পরিকল্পনা ছিল ভিলিয়ার্সকে নিয়েই ছিল। সেটা আরাফাত ভালভাবেই করেছে। আমাদের বোলিং অনেক ভাল হয়েছে। ফাফ দীর্ঘক্ষণ ব্যাটিং করেছে। সেটাই আমাদের জন্য কঠিন করে দিয়েছে সব। আমাদের বোলারদের বলে তেমন বেশি টার্ন হয় না। তবে ওদের বোলাররা আমাদের চেয়ে কিছুটা বেশিই ভাল করেছে।’ দীর্ঘ প্রায় এক বছর পর আন্তর্জাতিক ম্যাচে ফিরেছেন স্পিনার সোহাগ গাজী। ২ ওভারে ১৬ রান দিয়েছেন। এ বিষয়ে মাশরাফি বলেন, ‘নতুন এ্যাকশন এবং অনেক দিন পর এসে ভাল করাটা সহজ নয়। ও বেশিদিন সাদা বলে অনুশীলনের সুযোগ পায়নি। এরপরও আমি মনে করি খারাপ করেনি। কিছুদিন অনুশীলন করলেই ঠিক হয়ে যাবে।’ দক্ষিণ আফ্রিকার শক্ত ব্যাটিং লাইনআপ নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৪৮ রান করতে পেরেছে। কিন্তু বাংলাদেশের ব্যাটিং ব্যর্থতা এবং ইতিবাচক মনোভাবের অভাব জয় ছিনিয়ে আনতে পারেনি। এ বিষয়ে মাশরাফি বলেন, ‘অবশ্যই আমাদের জয়ের সুযোগ ছিল। ১৫০ রান তাড়া করার জন্য উইকেট যেমনই হোক না কেন আরেকটু চেষ্টা করাই যেত। ইতিবাচক-নেতিবাচক একটি ম্যাচে থাকবেই। নেগেটিভ থেকে আমাদের শিক্ষা নিতে হবে। খেলাটা আমাদের হাতেই ছিল। আরেকটু মনোযোগী হলে হয় তো খেলাটা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা যেত। হয় তো পরবর্তী ম্যাচে একই পরিস্থিতি হলে আমরা ভাল করব। পরিস্থিতি অনুসারেই সবাই খেলবে এটাও আশা করি।’

অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিসের ব্যাটিংয়ের প্রশংসা করলেন রুশো নিজেও। তবে দলের জয়ে কৃতিত্ব দিলেন বোলারদের। তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি উভয় দল স্পিন বোলিং অনেক ভাল করেছে আজ। আমাদের সৌভাগ্য যে আমরা দ্বিতীয় ইনিংসে বোলিং করেছি এবং এটা আমাদের কিছুটা বেশি সহায়ক হয়েছে।’ দক্ষিণ আফ্রিকা প্রথম ব্যাটিংয়ের সময় পরিকল্পনা করেছে ১৭ ওভার পর্যন্ত দেখেশুনে খেলার। এরপর রান বাড়ানোর জন্য কাউকে আশা করেছে। ১৫০ রানের মতো টার্গেট হওয়ার পর সেটাকে নিরাপদই ধরে নিয়েছে সফরকারীরা। এ বিষয়ে রুশো বলেন, ‘সর্বপ্রথম আমরা পরিসংখ্যানের দিকে তাকিয়েছি এবং দিনের ম্যাচে ১৫০ রান এ উইকেটে খুব ভাল সংগ্রহ। সুতরাং আমরা ভেবেই নিয়েছিলাম আজ আমাদের জেতার ভাল সুযোগ আছে। বিশেষ করে প্রথম ইনিংসের তুলনায় দ্বিতীয় ইনিংসে বল টার্ন করছিল এবং কিছুটা ধীর হয়ে যাচ্ছিল। এটাই আমাদের কিছুটা সহায়ক হয়েছে এবং আমরাও সত্যি ভাল বোলিং করেছি এবং শীর্ষে থেকেই শেষ করতে পেরেছি। আমাদের সৌভাগ্য যে বলগুলে০া আমাদের হাতে গেছে এবং আমরা সে সব ধরতে পেরেছি।’

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: