১৪ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

প্রথমবার উইকেটশূন্য মুস্তাফিজ


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ প্রতিপক্ষটা দক্ষিণ আফ্রিকা বলেই হয় তো সম্ভব হলো এমনটা। কারণ গত মাসে বাংলাদেশ সফরে ভারতীয় দল অনেক প্রচেষ্টা চালিয়েছে। সব বিফলে গেছে। ভারতের দুর্দান্ত ব্যাটিং লাইনআপ হয়েছে ব্যর্থ মনোরথ। তবে প্রোটিয়ারা পেসবান্ধব উইকেটে খেলে অভ্যস্ত। বিশ্বসেরা গতিময় পেসারদের বিপক্ষে খেলে অভ্যস্ত এবং সিম বোলিংয়ের বিপক্ষে স্পিনের চেয়ে পারদর্শী। সে কারণেই মুস্তাফিজুর রহমান প্রথমবার স্বাদটা নিলেন। যা আগের চার আন্তর্জাতিক ম্যাচে নিতে হয়নি। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টি২০ ম্যাচে পুরো ৪ ওভার বোলিং করে উইকেটশূন্য থাকলেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বর্তমানে গবেষণার বিষয়বস্তুতে পরিণত হওয়া বিস্ময় পেস বোলার মুস্তাফিজ। আন্তর্জাতিক চার ম্যাচ খেলে এই প্রথম এ অভিজ্ঞতা হলো ১৯ বছর বয়সী সাতক্ষীরা এক্সপ্রেসের।

অভিষেকটা হয়েছিল হুট করেই। পাকিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টি২০ ম্যাচে ধূমকেতুর মতো উদয় হয়েছিলেন। দলে ডাক পাওয়ার পরই প্রথম সবাই মুস্তাফিজের নামটা শুনেছিলেন। সেই মুস্তাফিজই দুর্দান্ত বোলিং করলেন পাকদের বিপক্ষে একমাত্র টি২০ ম্যাচে। সে ম্যাচে দারুণ মিতব্যয়ী বোলিং করে ৪ ওভারে মাত্র ২০ রান দিয়ে দুই উইকেট শিকার করেন মুস্তাফিজ। সবার মুখে তার নাম ছড়িয়ে পড়ে। তবে গবেষণার বস্তু কিংবা আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু হতে পারেননি। গবেষণা ও বিশ্লেষণের কারণ হয়েছেন ভারতের বিপক্ষে গত মাসে শেষ হওয়া সিরিজে। এবার ওয়ানডে অভিষেকও হয়েছে তার। ভারতের বিপক্ষে অভিষেকেই সুইং ও গতির ঝড় তোলেন তিনি। সবচেয়ে মারাত্মক ছিল বিষাক্ত কাটার। ৫০ রানে ৫ উইকেট নিয়ে শুরু। ওই সিরিজে তাকে নিয়ে অনেক গবেষণা ও বিশ্লেষণ করেছে ভারতীয় দল। কিন্তু কাজে আসেনি বাকি দুই ম্যাচে ৬ ও ২ উইকেট নিয়েছেন। সবমিলিয়ে ৩ ম্যাচের সিরিজে ১৩ উইকেট যা যৌথভাবে অস্ট্রেলিয়ান পেসার রায়ান হ্যারিসের সঙ্গে বিশ্বরেকর্ড। তবে ক্যারিয়ারের শুরুর টানা তিন ম্যাচে এত উইকেট নিতে পারেননি কেউ।

এসব কারণে এবার বাংলাদেশ সফরে আসার আগেই মুস্তাফিজকে নিয়ে ভেবেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু শুধু ভিডিওচিত্র দেখে আর কতটাই পরিকল্পনা করা যায়? এবার সিরিজ শুরুর আগে পর্যন্ত মুস্তাফিজ একেবারেই অচেনটা আগন্তুক প্রোটিয়া শিবিরের কাছে। এ কারণেই দক্ষিণ আফ্রিকার টি২০ অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস বলেন, ‘টি২০ ক্রিকেটে অচেনা খেলোয়াড়রাই ভয়ঙ্কর। কারণ তাদের বিপক্ষে কখনও খেলা হয়নি এবং সে কারণেই তারা অনেক কিছু করে ফেলতে পারেন।’ তবে দক্ষিণ আফ্রিকা মুস্তাফিজকে নিয়ে ভালভাবেই পরিকল্পনা করেছে সেটা বেশ বোঝা গেল। মুস্তাফিজের কাটারে বার বার পরাস্ত হচ্ছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটসম্যানরা। কিন্তু সতর্ক থাকায় উইকেট দিতে হয়নি তাদের। প্রথম দুই ওভারে মাত্র ১০ রান এবং ৩ ওভারে ১৭ রান দেন মুস্তাফিজ। কিন্তু নিজের শেষ এবং ইনিংসের ১৯তম ওভারে তার ওপর চড়াও হয় প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানরা এবং ১৩ রান তুলে নেয়। ৪ ওভারে ৩০ রান দিয়ে উইকেটশূন্য মুস্তাফিজ। অভিষেকের পর এক টি২০ এবং তিন ওয়ানডে বোলিং করে এই প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচে কোন উইকেট পেলেন না ‘কাটার’ মুস্তাফিজ।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: