২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

লাখ টাকা যৌতুকের জন্য পায়ে শিকল বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতন


লাখ টাকা যৌতুকের জন্য পায়ে শিকল বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতন

নিজস্ব সংবাদদাতা, কিশোরগঞ্জ, ৪ জুলাই ॥ কিশোরগঞ্জের পল্লীতে যৌতুকের জন্য স্বামী, শাশুড়ি ও ননদের বিরুদ্ধে শিরিন আক্তার (২০) নামে এক গৃহবধূকে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। নির্যাতনের এক পর্যায়ে ওই গৃহবধূকে পায়ে শিকল দিয়ে বেঁধে ঘরে আটকে রাখা হয়। কৌশলে সে রাতের আঁধের পালিয়ে এসে পিত্রালয়ে আশ্রয় নেয়। এ ঘটনাটি জানতে পেরে শনিবার বিকেলে বেসরকারী সংস্থা পপি ও জাতীয় মহিলা পরিষদের সহযোগিতায় নির্যাতিত নারী কিশোরগঞ্জ মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। সন্ধ্যায় পুলিশ অভিযুক্ত স্বামী আঃ আলিমকে আটক করেছে।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, কিশোরগঞ্জ সদরের মহিনন্দ ভাস্করখিলা গ্রামের মৃত ফালু মিয়ার ছেলে রাজমিস্ত্রি আঃ আলিমের সঙ্গে (২৪) প্রতিবেশী আব্দুল হেলিম মিয়ার কন্যা শিরিন আক্তারের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ২০১৩ সালের ৯ ডিসেম্বর তারা ঢাকায় পালিয়ে গিয়ে কোর্ট ম্যারেজ করে। এরপর থেকে উভয় পরিবারের সম্মতিতে তারা কিশোরগঞ্জ এসে সংসার শুরু করে। বর্তমানে তাদের সংসাওে শাওন নামে ৭ মাসের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকে যৌতুকের জন্য প্রায়ই স্বামী, শাশুড়ি ও ননদ মিলে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করত। শুক্রবার সকালে এক লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে শিরিনকে শারীরিক নির্যাতন করে সাদা কাগজে সই নেয়ার চেষ্টা করে। এতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে স্বামীসহ অন্যরা শিকল দিয়ে বেঁধে ঘরে আটকে রাখে। রাতে বাথরুমে যাওয়ার কথা বলে গৃহবধূ কান্নাকাটি শুরু করলে স্বামী আলিম শিকলের তালা খুলে দেয়। পরে কৌশলে রাতের আঁধারে ওই গৃহবধূ পিত্রালয়ে গিয়ে আশ্রয় নেয়। ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর শনিবার বিকেলে বেসরকারী সংস্থা পপি ও জাতীয় মহিলা পরিষদের সহযোগিতায় নির্যাতিত নারীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ওসি মীর মোশারফ হোসেন জানান, গৃহবধূ শিরিন আক্তার স্বামী শাশুড়ি ও ননদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়েরের পর স্বামীকে আটক করা হয়েছে। এছাড়া তদন্তের ভিত্তিতে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: