২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

বেসিসের নারী ফোরাম


তথ্যপ্রযুক্তি খাতে নারী উদ্যোক্তা তৈরি ও তাদের উন্নয়ন এবং এই খাতে ক্যারিয়ার গড়তে আগ্রহীদের পর্যাপ্ত সহযোগিতা দিতে বাংলাদেশ এ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার এ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) একটি আলাদা প্লাটফর্ম গঠন করেছে। ‘বেসিস উইমেন্স ফোরাম’ নামের এই প্ল্যাটফর্মটি ‘ওয়ান বাংলাদেশ’ বাস্তবায়নে ১ মিলিয়ন দক্ষ জনশক্তি তৈরির কার্যক্রমে নারীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতেও কাজ করবে।

শনিবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের সেলিব্রেটি হলে ‘বেসিস উইমেন্স ফোরাম’-এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। বেসিস সভাপতি শামীম আহসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সুরাইয়া বেগম, এনডিসি, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব হেয়ায়েতউল্লাহ আল মামুন, আইসিটি সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার, এফবিসিসিআই সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ, বাংলাদেশ উইমেন চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (বিডব্লিউসিসিআই) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সেলিমা আহমাদ, বেসিসের বর্তমান ও সাবেক কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যবৃন্দসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, কূটনৈতিক, ব্যবসায়িক, সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।

বেসিস সভাপতি শামীম আহসান বলেন, বেসিস দীর্ঘদিন থেকেই তথ্যপ্রযুক্তি খাতে নারীদের অংশগ্রহণ এবং সেক্টর উপযুক্ত কর্মপরিবেশ তৈরির পরিকল্পনা করে আসছে। এরই অংশ হিসেবে বেসিসের এই ফোরাম গঠন করা হয়েছে। আন্তর্জাতিকভাবে তথ্যপ্রযুক্তির অনেক ক্ষেত্রেই নারীদের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। আমাদের দেশের নারীদের যোগ্যতা এবং শিক্ষা আছে, শুধু তাদের উৎসাহিত করতে হবে এবং কাজের উপযুক্ত প্লাটফর্ম তৈরি ও দিকনির্দেশনা দিতে হবে। আর এই কাজটি করে দিতেই আমরা এই ফোরাম গঠন করেছি।

এই ফোরামের আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন বেসিস পরিচালক সামিরা জুবেরী হিমিকা। ইতোমধ্যেই তিনি এই উদ্যোগ নিয়ে সেক্টরের বিভিন্ন নারী উদ্যোক্তা, নারী ফ্রিল্যান্সার ও প্রোগ্রামারদের নিয়ে কয়েকটি সেশনও সম্পন্ন করেছেন। তিনি বলেন, আমাদের দেশে যেসব নারী যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও ঘরে বসে থাকেন অথবা যারা শিক্ষার্থী কিংবা ইতোমধ্যেই বিভিন্ন ক্ষেত্রে কাজ করছেন কিন্তু সঠিক দিকনির্দেশনার অভাবে নেতৃস্থানীয় অবস্থানে যেতে পারছেন না, তাদের আমরা তথ্যপ্রযুক্তি সেক্টরে কাজ করতে অনুপ্রাণিত করব। এছাড়া নারীদের উন্নয়নে বিভিন্ন কাউন্সিলিং সেশন, প্রশিক্ষণ, সামাজিক সচেতনতা বিষয়ক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, তথ্যপ্রযুক্তি খাতের কাজকর্মে নারীরা এখনও পিছিয়ে। এই খাতে পেশাজীবন গড়ার ক্ষেত্রে একজন নারীকে সমাজের বিভিন্ন স্তরে অনেক বাধার মুখোমুখি হতে হয়। অনেকের ক্ষেত্রেই আগ্রহ থাকা সত্ত্বেও নানা কারণে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে পেশাজীবন গড়া সম্ভব হয় না। এই ফোরামের মাধ্যমে সীমাবদ্ধতাগুলো কিভাবে কাটিয়ে ওঠা যায় এবং আরও সচেতনতা তৈরি করা যায়, সেসব বিষয়ে কাজ করা হবে।

অপরাজিতা ডেস্ক