২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

শ্রমিকের বেতন ১০ তারিখের মধ্যে, বোনাস ১৪ জুলাই


অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ তৈরি পোশাক খাতসহ সব কারখানায় শ্রমিকদের জুন মাসের বেতন ১০ জুলাই এবং উৎসব ভাতা ১৪ জুলাইয়ের মধ্যে পরিশোধ করতে বলেছে সরকার।

বৃহস্পতিবার সরকার, গার্মেন্টস মালিক ও শ্রমিক প্রতিনিধিদের নিয়ে গঠিত ‘ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট কমিটি’র সভায় এ সিদ্ধান্ত হয় বলে জানান শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু।

পোশাক শ্রমিকদের বেতন-ভাতা নিয়ে প্রতিবছরই ঈদের আগে বিভিন্ন কারখানায় বিক্ষোভ-অসন্তোষের ঘটনা ঘটে। শ্রমিক বিক্ষোভের কারণে অনেক সময় মহাসড়কে যান চলাচলেও বিঘœ ঘটে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ঈদের আগে শ্রমিকরা যেন নির্বিঘেœ বাড়ি ফিরতে পারেন সেজন্য ব্যবসায়ী সংগঠনগুলোকে ধাপে ধাপে শ্রমিকদের ছুটি দিতে বলা হয়েছে। ঈদের আগে ৪-৫ দিন ধরে তারা যেন বাড়ি ফিরতে পারেন।

পোশাক কারখানাগুলোকে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বেতন-ভাতা দিতে বলা হয়েছে জানিয়ে মুজিবুল হক বলেন, ‘আশা করি ১৪ জুলাইয়ের আগেই শিল্পকারখানার মালিকরা শ্রমিকদের উৎসব ভাতা দেবেন। আমরা তাদের অনুরোধ করেছি ১৪ তারিখের মধ্যেই উৎসব ভাতা দিতে।’

কাফকো’র প্রধান নির্বাহী ড. তৌফিক আলী

কর্ণফুলী ফার্টিলাইজার কোম্পানি লি. (কাফকো)-এর নতুন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে সম্প্রতি (২১ জুন ২০১৫) দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন ড. তৌফিক আলী। তিনি ১৯৬৮ সালে সিভিল সার্ভিসে যোগদান করেন। পরবর্তীতে তিনি ফরেন সার্ভিসে দায়িত্ব পালন করেন। সর্বশেষ তিনি জেনেভায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ও স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।Ñবিজ্ঞপ্তি

রাজস্ব আদায়ে লক্ষ্যমাত্রা অর্জন

অথনৈতিক রিপোর্টার ॥ সব আশঙ্কা পেছনে ফেলে সদ্যসমাপ্ত ২০১৪-১৫ অর্থবছরের রাজস্ব আদায়ে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। ২০১৪-১৫ অর্থবছরের নির্ধারিত (সংশোধিত) ১ লাখ ৩৫ হাজার ২৮ কোটি টাকার রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আদায় হয়েছে ১ লাখ ৩৬ হাজার ২৬৬ কোটি টাকা। অর্থাৎ লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১ হাজার ২৩৮ কোটি টাকা বেশি আদায় হয়েছে, যা গত অর্থবছরের তুলনায় ১২ দশমিক ৭৯ শতাংশ বেশি আদায় হয়েছে। অর্থাৎ প্রবৃদ্ধি ১২.৭৯ শতাংশ অর্জন করেছে। এনবিআর চেয়ারম্যানের দেয়া তথ্য অনুসারে দেখা যায়, ২০১৪-১৫ অর্থবছরের রাজস্ব আদায়ে প্রধান খাতসমূহের ক্ষেত্রে ১০০ ভাগের বেশি সাফল্য আদায় করতে সক্ষম হয়েছে এনবিআর।

শুল্ক খাত : আমদানি ও রফতানি পর্যায়ে অর্থাৎ শুল্কের ক্ষেত্রে ৩৭ হাজার ৫০০ কোটি টাকা লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আদায় হয়েছে ৩৮ হাজার ২৩৫ কোটি টাকা। সাফল্যের হার ১০১ দশমিক ৯৬ শতাংশ। আর এই খাতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৫ দশমিক ০১ শতাংশ।

মূসক খাত : মূল্য সংযোজন করের (মূসক) ক্ষেত্রে এনবিআরের সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রা ৪৮ হাজার ২৬৪ কোটি টাকার বিপরীতে আদায় হয়েছে ৪৮ হাজার ৬৩৮ দশমিক ০১ কোটি টাকা। এই খাতে সাফল্য ১০০ দশমিক ৭৭ শতাংশ। আর প্রবদ্ধি হয়েছে ১১ দশমিক ২৩ শতাংশ।

আয়কর ও ভ্রমণ খাত : আয়কর ও ভ্রমণের ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানের সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪৯ হাজার ২৬৪ কোটি টাকা। সেখানে আদায় হয়েছে ৪৯ হাজার ৩৯৩ কোটি টাকা। এই খাতে সাফল্য ১০০ দশমিক ২৬ শতাংশ। আর প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে ১২ দশমিক ৬৪ শতাংশ।