২৩ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের বাসের অগ্রিম টিকেট বিক্রি আজ শুরু


স্টাফ রিপোর্টার ॥ আসন্ন ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে আজ থেকে দেশের উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সকল রুটে বাসের অগ্রিম টিকেট বিক্রি শুরু হচ্ছে। এবার অনলাইনে ও বিকাশের মাধ্যমে টিকেট সংগ্রহ করা যাবে। ভোর থেকে বিভিন্ন জেলার প্রায় ৬০টি রুটে টিকেট বিক্রি শুরু হবে। প্রথম দিন থেকেই ফিরতি টিকেটও সংগ্রহ করতে পারবেন যাত্রীরা। তবে মহাখালী ও সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে প্রতি বছরের মতো এবারও কোন অগ্রিম টিকেট দেয়া হবে না।

বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ফারুক তালুকদার সোহেল জনকণ্ঠকে জানান, সমিতির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শুক্রবার সকাল থেকেই একযোগে টিকেট বিক্রি শুরু হবে। বাড়তি ভাড়া রোধ ও যাত্রী হয়রানি ঠেকাতে গঠন করা হয়েছে ভিজিলেন্স টিম। তিনি জানান, বিআরটিএ নির্ধারিত ভাড়া আদায় করা হবে। কেউ বাড়তি ভাড়া নিলে সমিতির পক্ষ থেকে কিংবা বিআরটিএ পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানান তিনি। তিনি বলেন, শ্যামলী, মোহাম্মদপুর, কল্যাণপুর, গাবতলীসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় এসব রুটের কাউন্টার রয়েছে। যে কোন কাউন্টার থেকে যাত্রীরা ইচ্ছা করলে টিকেট সংগ্রহ করতে পারবেন।

হানিফ পরিবহনের যাত্রীদের জন্য যেতে হবে গাবতলী বালুরমাঠ, বাগবাড়ী মিরপুর শাখায়। শুক্রবার ভোর ৫টা ৩০ মিনিটে টিকেট বিক্রি শুরু হবে। ডিপজল পরিবহনের টিকেট পাওয়া যাবে টেকনিক্যাল সোহরাব পেট্রোল পাম্পের কাছে। ন্যাশনাল ট্রাভেলসের টিকেট পাওয়া যাবে টেকনিক্যাল মোহনা পেট্রোল পাম্পের কাছে। এছাড়া নাবিল পরিবহনের গাবতলী কাউন্টার, এসআর পরিবহনের কল্যাণপুর কাউন্টার এবং শ্যামলী পরিবহনের টিকেট পাওয়া যাবে গাবতলী মাজার রোড সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, শ্যামলী, কল্যাণপুর কাউন্টারে।

এবার বেশ কিছু পরিবহন অনলাইনে টিকেট বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এছাড়া কিছু পরিবহন বিকাশ-এর মাধ্যমে টিকেট বিক্রি করবে। ন্যাশনাল ট্রাভেলস থেকে ১৬২৮৭/০১৭২৭৫৪৫৪৬০ নাম্বারের সাহায্যে বিকাশের মাধ্যমে টিকেট সংগ্রহ করতে পারবেন যাত্রীরা। এই নম্বরে কল করে ভ্রমণের তারিখ সময় বলতে হবে। একইভাবে যাত্রীর নাম, মোবাইল নাম্বার, যাত্রী কোন কাউন্টার হতে উঠবেন, কোথায় নামবেন এসব তথ্য এজেন্টদের জানাতে হবে। এরপর একই বিকাশ ওয়ালেট নাম্বারে সমপরিমাণ ভাড়া পরিশোধ করলেই পাওয়া যাবে টিকেট। অনলাইনে টিকেট বুকিং সেবা দিচ্ছে সোহাগ পরিবহন, শ্যামলী পরিবহন, নাবিল পরিবহন, এসআর পরিবহন। অনলাইন টিকেট বিক্রির প্রতিষ্ঠান সহজ-এর সঙ্গেও চুক্তিবদ্ধ হয়েছে অনেক পরিবহন কোম্পানি।

বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স এ্যাসোসিয়েশনের কার্যনির্বাহী সদস্য মোঃ সালাউদ্দিন বলেন, আমরা বাস মালিকদের নিয়ে বসেছি। সবাইকে নির্দেশ দেয়া আছে সরকারী নির্ধারিত ভাড়া নেয়ার জন্য। এরপরও যদি কারও বিরুদ্ধে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে তার রুট পারমিট সাময়িকভাবে বন্ধ করা হবে। এছাড়া ওই মালিকের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি বলেন, টিকেট প্রাপ্তির জন্য যাত্রীরা যেন কোন হয়রানির স্বীকার না হন সে জন্য আমাদের ৩০ সদস্যের একটি ভিজিলেন্স টিম রয়েছে। তারা সর্বক্ষণিকভাবে টার্মিনাল পরিদর্শন করবেন। এছাড়াও থাকবে র‌্যাব, পুলিশের বিশেষ টহল টিম। তাই এবার অতিরিক্ত ভাড়া বা কোন রকম হয়রানি করার সুযোগ নেই। তিনি বলেন, যেহেতু তেলের দাম বাড়েনি তাই অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ার প্রশ্নই আসে না। এদিকে অগ্রিম টিকেট কালোবাজারি বা যাত্রীদের হয়রানি ঠেকাতে প্রস্তুত রয়েছে আইন শৃঙ্খলাবাহিনী। এজন্য গাবতলী এলাকার নিরাপত্তায় ৫-৭টি ওয়াচ টাওয়ার ও ১৫-২০টি সিসি টিভি বসানো হচ্ছে বলেও জানান তিনি। নয় জুলাই থেকে বিক্রি হবে ট্রেনের অগ্রিম টিকেট। ১০ জুলাই থেকে বিআরটিসি বাসের অগ্রিম টিকেট বিক্রির কথা জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।