১৯ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট পূর্বের ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

এনসিসি ব্যাংকের ১০ শতাংশ লভ্যাংশ অনুমোদন


ন্যাশনাল ক্রেডিট এ্যান্ড কমার্স ব্যাংক লিমিটেড ২০১৪ সালের শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ১০ শতাংশ লভ্যাংশ (বোনাস শেয়ার) অনুমোদন করেছে। বুধবার রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে অনুষ্ঠিত ব্যাংকের ৩০তম বার্ষিক সাধারণ সভায় এই লভ্যাংশ অনুমোদন করা হয়।

ব্যাংকের চেয়ারম্যান মোঃ নুরুন নেওয়াজ সেলিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সাধারণ সভায় ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান এএসএম মাঈনউদ্দিন মোনেম, পরিচালক ও উদ্যোক্তাবৃন্দ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী গোলাম হাফিজ আহমেদ এবং ব্যাংকের বিপুলসংখ্যক শেয়ারহোল্ডার উপস্থিত ছিলেন।

ব্যাংকের চেয়ারম্যান মোঃ নুরুন নেওয়াজ সেলিম স্বাগত ভাষণে ব্যাংকের অগ্রগতির বিভিন্ন সূচক বর্ণনা করে বলেন, এনসিসি ব্যাংক এখন ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা ও মানবসম্পদ উন্নয়নে গুরুত্বারোপ করছে। এছাড়া পরিচালনা পর্ষদের অডিট কমিটি নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষের নির্দেশমতো নিয়মকানুন কঠোরভাবে পরিপালন করছে। বিগত বছরে এনসিসি ব্যাংক রাজধানীর প্রাণকেন্দ্র মতিঝিলে নিজস্ব ২২ তলা ভবনে প্রধান কার্যালয় উদ্বোধন করেছে এবং ‘আপনার সাথেই.সবসময়’ সেøাগান সংবলিত নতুন লোগো উন্মোচন করেছে।

ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী গোলাম হাফিজ আহমেদ ব্যাংকের উত্তরোত্তর উন্নতির বিষয় তুলে ধরে বলেন, অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছার জন্য ইতোমধ্যে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। সভায় কয়েকজন শেয়ারহোল্ডার ব্যাংকের নিরীক্ষিত প্রতিবেদনের ওপর সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বর্তমান চেয়ারম্যান, পরিচালকম-লী ও ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের যোগ্য নেতৃত্বে এনসিসি ব্যাংক ভবিষ্যতেও এগিয়ে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

দেশে সৌরবিদ্যুত অর্থনৈতিকভাবে লাভজনক নয়

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশে টেকনিক্যালি সৌরবিদ্যুত সম্ভব। কিন্তু অর্থনৈতিকভাবে সম্ভব নয় বলে অভিমত দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

গত বুধবার রাজধানীর স্পেক্ট্রা কনভেনশন সেন্টারে ‘বাংলাদেশে নবায়নযোগ্য জ্বালানি’ শীর্ষক এক সেমিনারে বক্তারা এ অভিমত দেন। এতে বিশ্বব্যাংকের পরিবেশ বিষয়ক পরামর্শক ড. ইশতিয়াক সোবহান বলেন, নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যয় অনেক বেশি। প্রতি ইউনিটে খরচ পড়ে ১৬ টাকার মতো। কিন্তু গ্রিড থেকে বিদ্যুত পেতে ইউনিট প্রতিমূল্য পরিশোধ করতে হয় ৪টাকা থেকে ১১টাকা। যে কারণে মানুষ এতে আগ্রহী হচ্ছে না।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. তাইফুল আহম্মেদ চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশে অনেক জ্বালানি সঙ্কট রয়েছে। প্রাথমিক জ্বালানির সঙ্কট অনেক বেশি। সরকার এখন জ্বালানির বহুমুখী সোর্স ব্যবহার করতে চাইছে। তারই অংশ হিসেবে কয়লা ও পরমাণু বিদ্যুতের দিকে যাচ্ছে। বিশ্বব্যাংকের পরামর্শক রুহুল কুদ্দুস বলেন, সৌরবিদ্যুতের যন্ত্রপাতির দাম চড়া। এর দাম কমাতে না পারলে লক্ষ্যে পৌঁছা কঠিন হয়ে পড়বে। তিনি বলেন, সাড়ে ৩৭ শতাংশ হারে ট্যাক্স দিয়ে সৌরবিদ্যুতের যন্ত্রপাতি আমদানি করতে হচ্ছে। ট্যাক্স মওকুফ করা গেলে দাম কমে আসবে। আর তখন জনগণ এতে আগ্রহী হবে। সরকার অনেক কথা বললেও এ সব যন্ত্রপাতির দাম কমাচ্ছে না।