২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

বাংলা ওয়াশের মুখে ভারত ॥ আর বাংলাদেশ স্বপ্ন পূরণের প্রতীক্ষায়


বাংলা ওয়াশের মুখে ভারত ॥ আর বাংলাদেশ স্বপ্ন পূরণের প্রতীক্ষায়

মিথুন আশরাফ ॥ ভারতকে নিয়ে কী খেলাটাই না খেলছে বাংলাদেশ। মাঠের ভেতর খেলছে। মাঠের বাইরে খেলছে। এভাবে খেলতে খেলতেই জিতছেও। প্রথমবারের মতো ভারতের বিপক্ষে এক ম্যাচ হাতে রেখে সিরিজই তো জিতে নিল বাংলাদেশ। আজ সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে জিতলে ভারতকে ‘বাংলাওয়াশ’ই করবে মাশরাফি বাহিনী।

সিরিজের আগে কোনভাবেই মুস্তাফিজুর রহমানকে নিয়ে মাথা ব্যথা ছিল না ভারতের। ঠিকমত যে চিনতই না। প্রথম ওয়ানডেতে ৫ উইকেট নিয়ে ভারত ক্রিকেটারদের শরীরেই যেন ব্যথা ধরিয়ে দিয়েছেন মুস্তাফিজ। বিশ্ব ক্রিকেটেও নিজেকে তুলে ধরেছেন। সেই ব্যথায় ব্যাট উঠিয়ে খেলবে কী, তার আগেই দ্বিতীয় ম্যাচে এক এক করে ৬ ভারতীয় ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে ফেরান মুস্তাফিজ। মাঠের ভেতর খেলে দিল বাংলাদেশ। বলতে গেলে মুস্তাফিজ। তৃতীয় ওয়ানডের আগে যেন মাঠের বাইরেও খেলছে বাংলাদেশ। হঠাৎ করেই লেগ স্পিনার জুবায়ের হোসেন লিখনকে দলে নেয়া হয়েছে। এমনকি একাদশেও তার খেলার সম্ভাবনা অনেক। এখন ভারত ক্রিকেটারদের আবার ভাবনায় রাখতেও এমনটি করা হতে পারে। লিখনকে নিয়ে ভাবতে থাকবে ভারত। সেই ভাবনায় অন্যদের প্রতি ভাবনায় প্রভাব পড়বে। তাতে খেলাতেও প্রভাব পড়বে। তা না হলে কাকে ছেড়ে কাকে ভাববে ভারত, সেই ভাবনা করতে করতে হিমশিম খেয়ে মাঠে আবারও হার হয়ে যেতে পারে।

ফুটবলেও দুর্দান্ত ছিলেন মুস্তাফিজুর রহমান। শেষপর্যন্ত ২০১২ সালে ইন্টার স্কুল ফুটবলে নিজ দলকে চ্যাম্পিয়ন করানো এ ফুটবলার হয়ে গেলেন ক্রিকেটার। শুরু থেকেই ক্রিকেট দুর্দান্ত খেলতেন। এখন বাংলাদেশ দলের হয়ে এমনই ক্রিকেট খেলছেন মুস্তাফিজ, বিশ্ব ক্রিকেটে তাকে নিয়েই চলছে চর্চা। ভারতকে যে একাই ধসে দিচ্ছেন। আজ যদি মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে দুপুর ৩টায় শুরু হতে যাওয়া সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতেও মুস্তাফিজ ক্যারিশমা দেখা যায়, তাহলে তো ভারতকে বাংলাওয়াশ করার স্বপ্নও পূরণ হয়ে যাবে।

একটা বাধা আসতে পারে। সেটি কী? বৃষ্টি। যতদূর জানা গেছে, আজ ও বৃহস্পতিবার বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। যদি বৃষ্টি পড়ে, আর তাতে আজ খেলা না হতে পারে, তাহলে তৃতীয় ওয়ানডেটি রিজার্ভ ডে’তে গড়াবে। যদি সেই দিনেও বৃষ্টি হয়, তাহলে খেলা আর হবে না। কিন্তু কোন দলই কী সেটি চাচ্ছে। বাংলাদেশ দলে এখন একমাত্র অফস্পিনার নাসির হোসেনই যেমন বলেছেন, ‘আমরা চাই খেলা হোক। হার-জিত যা হবে পরে দেখা যাবে। তবে খেলাটা হোক।’ বাংলাদেশ দলেরই চাওয়া এমন, তাহলে ভারত কী ভাবছে?

পরপর দুই ওয়ানডেতে হেরে এখন সিরিজে নিঃস্ব ভারত। প্রথম ওয়ানডেতে ৭৯ রানে ও দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ৬ উইকেটে যে হেরেছে ভারত, তাতেই বোঝা যাচ্ছে হারগুলো কতটা করুণ হয়েছে। কত সহজে জিতেছে বাংলাদেশ। যে দলটিকে পাত্তাই দেয়নি ভারত, সেই দলটি কিনা পর পর দুই ওয়ানডেতে অনায়াসেই জিতেছে! এখন তৃতীয় ওয়ানডেতেও যদি বাংলাদেশ জিতে যায়, হোয়াইটওয়াশ হবে ভারত, সম্মান রক্ষাও হবে না। লজ্জা মিলেছে আগেই। এখন সম্মানও খোয়াবে ভারত? তাই যে করেই হোক, তাদের চাওয়া বৃষ্টি যেন না হয়। খেলা যেন হয় এবং তারাই জেতে।

রবীচন্দ্রন অশ্বিন বলে দিয়েছেন, ‘যেভাবে হোক আমরা জেতার চেষ্টা করব।’ সেই জেতার দিন আজই না বাংলাওয়াশ হওয়ার দিন, তা সময়ই বলে দেবে। তবে ভারত দলের ক্রিকেটাররা যে অস্বস্তিতে দিন কাটাচ্ছেন তা বোঝাই যাচ্ছে। কোন কিছুতেই যেন তাদের মন বসছে না। অনুশীলনে একটা ভাবুক, ভাবুক ভাব। কোহলি ব্যাট করছেন। কিন্তু মনে হচ্ছে যেন শরীর হেলে দিচ্ছেন। ধোনি তো খালি কি যেন ভাবেন।

এমন অবস্থা হওয়ারই কথা। বাংলাদেশের বিপক্ষে এতটা করুণ দশা হবে, ভাবতেই যে পারেনি ভারত ক্রিকেট দল। এখন এমন একটা অবস্থা দাঁড় হয়ে গেছে, খেলা ছেড়ে খেলার বাইরের বিষয় নিয়েও হচ্ছে আলোচনা। যে আলোচনায় চলে আসছেন ভারতের ক্রিকেট সাপোর্টার সুধীর গৌতম। ভারত যেখানেই খেলতে যায়, সুধীর সেখানেই দলকে সমর্থন জানাতে গ্যালারিতে থাকেন। দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও তেমনটি থেকেছেন। কিন্তু খেলা শেষে বাংলাদেশের জয়ে এতটাই আনন্দিত হয়ে ওঠেন দেশের সমর্থকরা, যা করার কথা নয়, তা করে বসেন। সুধীরের ওপর দেশের সমর্থকরা চড়াও হন। আর এ বিষয়টি নিয়েই এখন চলছে দিনভর আলোচনা। ঘটনা এমনও শোনা যায়, তাকে মারধরও করার চেষ্টা করেন! ঘটনা সত্য হোক আর মিথ্যা, এতে করে দেশের নাম বদনাম হচ্ছে। তা সবারই মনে রাখা উচিত। এ সমর্থককে নাকি আবার নিরাপত্তাও দেয়া হয়েছে!

সুধীরকে নিয়ে আলোচনার সঙ্গে সঙ্গে তৃতীয় ওয়ানডেতেই ভারতকে হারাতে পারলে কতবার প্রতিপক্ষকে বাংলাওয়াশ করবে বাংলাদেশ? সেই আলোচনাও হচ্ছে। ইতিহাস ঘেটে যতদূর জানা গেছে, ১৮তম দ্বিপক্ষীয় ওয়ানডে সিরিজ জয় হয়েছে। এর মধ্যে সিরিজে ২ ম্যাচ বা তার বেশি হয়েছে এবং যে কয়েকটি ম্যাচ খেলা হয়েছে সব জিতে প্রতিপক্ষকে ১০ বার হোয়াইটওয়াশ করেছে বাংলাদেশ। আজ জিতলে কেনিয়া, জিম্বাবুইয়ে, স্কটল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, পাকিস্তানের পর প্রথমবারের মতো ভারতকেও ‘বাংলাওয়াশ’ করার যোগ্যতা দেখাবে বাংলাদেশ।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: