২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

জামায়াত শিবির তা-বে ধ্বংস হওয়া সোনা মসজিদ মোটেল আজও সংস্কার হয়নি


স্টাফ রিপোর্টার, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ॥ বিএনপি-জামায়াত শিবিরের সন্ত্রাসের কারণে একটি সম্ভাবনাময় পর্যটন কেন্দ্রের চির অবসান হতে যাচ্ছে। ফলে একদিকে সরকার অপরদিকে এলাকার জনসাধারণ মারাত্মক বিপর্যয়ের মধ্যে পড়বে। সুলতানি আমলের রাজধানী গৌড়ের প্রতœতত্ত্ব শাখাগুলোকে জনসাধারণের কাছে তুলে ধরতে উত্তরাঞ্চলের সোনা মসজিদ সংলগ্ন এলাকাকে পর্যটনের আওতায় এনে জনস্বর্থে প্রায় ১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি পর্যটন মোটেল নির্মাণ করা হয়েছিল ২০১৩ সালে। প্রায় দু’বছর আগে নির্মাণ শেষে সংশ্লিষ্ট বিভাগের কাছে বুঝে দেবার ঠিক পূর্ব মুহূর্তে বিএনপি জামায়াত শিবিরের তা-বে পুড়ে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়। একই সঙ্গে হত্যা করা হয় পর্যটন বিভাগের তরুণ প্রকৌশলী তৌহিদুর রহমানকে। মোটেলটি নির্মাণ করা হয়েছিল সীমান্তের কাছাকাছি ছোট সোনামসজিদ সংলগ্ন এলাকায়। পর্যটকরা এ মোটেলে অবস্থান নিয়ে প্রায় ৩২টি ঐতিহাসিক স্থাপনা পরিদর্শন শেষে ইচ্ছা করলে ভারতের অন্যতম ঐতিহাসিক স্থানসমূহ যা মালদহ ও মুর্শিদাবাদ এলাকায় অবস্থিত তাও পরিদর্শন করতে পারতো। সেই লক্ষ্যে পর্যটন বিভাগ মোটেলটি নির্মাণ করেছিল। কিন্তু ২০১৩ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি সাঈদীর ফাঁসির রায় ঘোষণার পর জামায়াত শিবির কানসাট পল্লী বিদ্যুত কেন্দ্রসহ নবনির্মিত মোটেল অগ্নিসংযোগ ও ব্যাপক ভাংচুর করে। হত্যা করে এক প্রকৌশলীকে। ফলে বিশাল মোটেল ভবনের বৈদ্যুতিক সংযোগ স্যানিটারি ব্যবস্থা, আসবাবপত্রসহ গোটা ভবনই মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পরবর্তী সময়ে নিরূপণে বেরিয়ে আসে ক্ষতির পরিমাণ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে। পরবর্তীতে জরুরী ভিত্তিতে কানসাট বিদ্যুৎকেন্দ্র সংস্কার করে প্রধান অফিস জেলা শহরে স্থানান্তর করলেও পর্যটন মোটেলের সংস্কার আজও করা হয়নি।