২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

মার্কিন ও জাপানী বাহিনীর সঙ্গে নৌ-মহড়া করবে ফিলিপিন্স


ফিলিপিন্স পৃথকভাবে যুক্তরাষ্ট্র ও জাপানী বাহিনীর সঙ্গে এ সপ্তাহে নৌ-মহড়া শুরু করবে। ফিলিপিন্সের বিবদমান স্প্র্যাটলি দ্বীপপুঞ্জের কাছে এ মহড়া শুরু হবে। সাম্প্রতিক সময়ে চীনের দ্রুত সাতটি দ্বীপ তৈরির প্রেক্ষিতে অব্যাহত আঞ্চলিক উত্তেজনাকর পরিস্থিতিতে দেশটি এই পদক্ষেপ নিল। খবর ইয়াহু নিউজের।

এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ফিলিপিন্সের নৌবাহিনী হচ্ছে অন্যতম দুর্বল। যেজন্য এ বছর মিত্রদেশ যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও জাপান ও ভিয়েতনামের সঙ্গে নিরাপত্তা সহযোগিতার পদক্ষেপ নেয় দেশটি। দক্ষিন চীন সাগরে চীনের জোরালো তৎপরতার প্রেক্ষিতে ম্যানিলা এই পদক্ষেপ নেয়। ফিলিপিন্সের এক সামরিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, স্প্র্যাটলি থেকে ১৬০ কিমি দূরে পালাওয়ান দ্বীপে ফিলিপিন্স, যুক্তরাষ্ট্র ও জাপান নৌবাহিনীর মহড়া চালানোর কোন যৌথ পরিকল্পনা নেই। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান, কিছু বিষয়ে তিন বাহিনী একই লক্ষ্যে কাজ করে যাবে। কেননা আমাদের এই মহড়ায় অংশগ্রহণের মতো মাত্র দুটি জাহাজ ও সীমিতসংখ্যক বিমান রয়েছে। রবিবার পালাওয়ানের রাজধানী পুয়ের্তো প্রিন্সিসা সিটিতে সাংবাদিকরা দুটি পি থ্রি সি-অরিয়ন সামুদ্রিক পর্যবেক্ষক যুদ্ধবিমান দেখতে পান। যার একটি যুক্তরাষ্ট্র ও অপরটি জাপানের সামরিক বিমান। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দু’সপ্তাহের মহড়াটি গত সপ্তাহে শুরু হয়েছে। দু’দিনের এক মহড়া মঙ্গলবার শুরু হবে বলে কর্মকর্তারা জানান। উভয় মহড়া ফিলিপিন্সের আঞ্চলিক জলসীমায় অনুষ্ঠিত হবে। যা বিতর্কিত দক্ষিণ চীন সাগরের কোন অংশ নয়। ফিলিপিন্স নিয়মিতভাবে যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনীর সঙ্গে সামরিক প্রশিক্ষণ নিয়ে আসছে। জাপানের সঙ্গে মে মাস থেকে প্রথমবারের মতো যৌথ নৌ-মহড়া শুরু করেছে। দক্ষিণ চীন সাগরে টোকিওর কোন আঞ্চলিক দাবি নেই। তবে জাপানের ব্যবসায়ী জাহাজগুলো সমুদ্র পাড়ি দেয়ার ক্ষেত্রে চীনের নিয়ন্ত্রিত সীমান্ত নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছে।