১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৭ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

কর্ণফুলী গ্যাসের সাবেক দুই এমডিসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা


স্টাফ রিপোর্টার ॥ কর্ণফুলী গ্যাস বিতরণ কোম্পানির সাবেক দুই ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ (এমডি) পাঁচ উর্ধ্বতন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। সোমবার চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ থানায় (মামলা নং-২৭) দুদকের উপপরিচালক ঋতিক সাহা বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য বিষয়টি জনকণ্ঠকে নিশ্চিত করেছেন। তবে জনবল নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পেয়েছেন পেট্রোবাংলার প্রাক্তন চেয়ারম্যান ড. হোসেন মনসুর। গত ২ জুন কমিশন ওই মামলার অনুমোদন দেয়। তবে হোসেন মনসুরের বিরুদ্ধে কর্ণফুলী গ্যাসফিল্ড কোম্পানি লিমিটেডে জনবল নিয়োগে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ এনে মামলার সুপারিশ করা হলেও শেষ পর্যন্ত তাকে অব্যাহতি দেয় কমিশন।

দায়ের করা মামলার আসামীরা হচ্ছেন- কর্ণফুলী গ্যাস বিতরণ কোম্পানির প্রাক্তন ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সানোয়ার হোসেন, প্রাক্তন সচিব ও বর্তমান উপ মহাব্যবস্থাপক আমির হামজা, উপমহাব্যবস্থাপক আবদুল্লাহ আল মামুন, মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) চৌধুরী আহসান হাবীব এবং প্রাক্তন এমডি ও বর্তমানে গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেডের এমডি জামিল আহমেদ আলীম। গত ২১ মে হোসেন মনসুরসহ উপরোক্ত পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করার সুপারিশ চেয়ে কমিশনে প্রতিবেদন দেয়া হয়। দুদকের উপপরিচালক ঋতিক সাহা ও সহকারী পরিচালক আল আমিন যৌথভাবে জনবল নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধান করেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, আসামীরা কোনো প্রকার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ছাড়া এবং প্রার্থীদের যোগ্যতা যাচাই না করেই ব্যক্তিগতভাবে আবেদনপত্র সংগ্রহ করে কর্ণফুলী গ্যাসফিল্ড কোম্পানি লিমিটেডের বিভিন্ন পদে ৫৭ জন কর্মকর্তা-কর্মচারি এডহক ভিত্তিতে নিয়োগদান করেন। অত:পর এর মধ্যে থেকে ৪২ জনকে পরে নিয়মিত করা হয়। যেক্ষেত্রে কর্মচারি নিয়মিতকরণ বিধিমালা ১৯৯৪-এর বিধান অমান্য করা হয়েছে। আসামীরা ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারা এবং দন্ডবিধি ১০৯ ধারায় অপরাধ করেছেন বলে দুদকের অনুসন্ধানে প্রমাণিত হয়েছে। তাই দুদক তাদের বিরুদ্ধে এই মামলা দায়ের করে।