২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

স্বমহিমায় সুরভিত সাকিব


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশের তো বটেই, বিশ্বক্রিকেটেরই বিস্ময় নাম সাকিব আল হাসান। অসাধারণ সব পারফর্মেন্স উপহার দিয়ে নিজেকে নিয়ে গেছেন অনন্য উচ্চতায়। বৃহস্পতিবার ভারতের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম একদিনের ম্যাচে দোর্দ-প্রতাপে জয় তুলে নিয়েছে টাইগাররা। আর এই জয়ে সাকিব আল হাসানের ভূমিকাও ছিল প্রশংসনীয়। ব্যাট হাতে অর্ধশতকের দারুণ এক ইনিংস খেলা সাকিব বল হাতেও তুলে নিয়েছেন প্রতিপক্ষের গুরুত্বপূর্ণ দুই উইকেট। বিশ্বক্রিকেটের দুর্বার ভারতের বিপক্ষে এমন জয়ে দলের অবদানে ভূমিকা রেখে সাকিব আল হাসানও নিশ্চিত উচ্ছ্বসিত।

দীর্ঘ সাড়ে পাঁচ বছর পর বাংলাদেশের মাটিতে দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলতে আসে ভারত। তাই এই সিরিজ নিয়ে ক্রিকেটপ্রেমীদের উন্মাদনাটা একটু বেশিই। তাছাড়া অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে বাংলাদেশের বুকে বড় আঘাতটা হেনেছিল এই ভারতই। বিতর্কিত সেই হারের ক্ষতটা টাইগার ক্রিকেটপ্রেমীদের হৃদয়ে এখনও বেশ তরতাজা। তাই সেই হারের প্রতিশোধটা নিতে মরিয়া ছিল বাংলাদেশ। বৃষ্টিবিঘিœত একমাত্র টেস্টে ড্র করলেও চোখ ছিল সবার একদিনের সিরিজে। এক্ষেত্রে ভরসার নাম ছিল সাকিব আল হাসান। ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত পারফর্মেন্স উপহার দিয়ে আবারও নিজের জাত চেনালেন ২৮ বছর বয়সী এই বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

বৃহস্পতিবার মিরপুর শেরবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। তামিম ইকবাল আর সৌম্য সরকারের ব্যাটিং ঝলকে শুরুটা দারুণভাবেই করে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। উদ্বোধনী জুটিতেই রেকর্ড ১০২ রানের ঝলমলে এক ইনিংস উপহার দেন তাঁরা। সৌম আর তামিম সাজঘরে ফিরে গেলে কিছুটা খেই হারিয়ে ফেলে বাংলাদেশ। লিটন দাস আর মুশফিকুর রহীম নিজেদের মেলে ধরতে ব্যর্থ হন। আর দলের এই গুরুত্বপূর্ণ সময়েই হাল ধরেন সাকিব আল হাসান। উমেশ যাদবের বলে রবীন্দ্র জাদেজার হাতে ক্যাচ আউট দিয়ে সাজঘরে ফিরে গেলেও ৫২ রানের দৃষ্টিনন্দন এক ইনিংস খেলে যান তিনি। এজন্য ৬৮টি বল খেলেন তিনি। ৯৩ মিনিট ক্রিজে থেকে ৩ চারের সৌজন্যে ক্যারিয়ারের ২৯তম ওয়ানডে হাফসেঞ্চুরির মাইলফলকও স্পর্শ করেন সাকিব আল হাসান। ভারতের বিপক্ষে সাকিবের তৃতীয় সর্বোচ্চ এই ইনিংসই এদিন বড় সংগ্রহের ভিত্তি গড়ে বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত দল পায় ৩০৭ রানের বড় পুঁজি। এ তো গেল ব্যাট হাতের ক্যারিশমা। বল হাতেও ২ উইকেট নিয়ে ভারতের ব্যাটিংলাইন আপকে ধসিয়ে দিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন সাকিব আল হাসান। বাংলাদেশের ছুড়ে দেয়া ৩০৮ রানের জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নামলে শুরুটা দারুণভাবেই করে রোহিত শর্মা আর শিখর ধাওয়ান। কিন্তু উদ্বোধনী জুটি ভাঙ্গার পরই ছন্দপতন ঘটে ভারতের। আর বিপর্যস্ত ভারতীয় দলকে টেনে তোলার কাজটা সাধারণত অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনিই করেন। এদিনও সম্ভাবনা ছিল তাঁর। কিন্তু সেই সম্ভাবনা বিকশিত হওয়ার আগেই ধোনিকে সাজঘরে ফেরত পাঠিয়ে দেন সাকিব। তখন ধোনির রান মাত্র ৫। আর শেষের কাঁটা হওয়ার আগেই উমেশ যাদবের উইকেট নিয়ে টাইগারদের জয়োচ্ছ্বাসে ভাসানোর সুযোগ করে দেন সাকিব আল হাসান। তবে ভারতের বিপক্ষে দারুণ এই জয়ে সাকিবের অলরাউন্ডিং নৈপুণ্য ছাড়াও আলো ছড়িয়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান ও তাসকিন আহমেদ। যে কারণে ম্যাচ সেরার পুরস্কারটা অভিষিক্ত মুস্তাফিজুর রহমানের হাতেই ওঠে।

ভারতের বিপক্ষে ফতুল্লায় একমাত্র টেস্ট ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে ড্র হয়। তবে একদিনের সিরিজ শুরুর আগেই সাকিব জানিয়েছিলেন, এখানে ভাল করার সম্ভাবনা রয়েছে বাংলাদেশের। টুর্নামেন্টের আগে সাকিব বলেছিলেন, ‘জানি আপনারা আমাদের সঙ্গে আছেন। আশা করি এই সিরিজে আমরাও ভাল করব। দীর্ঘদিন ধরেই এই সিরিজটার জন্য আপনারা অপেক্ষা করছেন। আপনাদের দোয়া ও সমর্থনে আমরা ভাল করার অনুপ্রেরণা পাই। আমাদের ভাল-খারাপ সব অবস্থাতেই এবং সব সময়ই আপনারা পাশে থাকেন। টেস্ট ম্যাচ ড্র হয়েছে, আশা করছি ওয়ানডে সিরিজে আমরা ভাল ফল পাব।’ বৃহস্পতিবার মিরপুরে ভারতের বিপক্ষে প্রথম একদিনের ম্যাচ জিতে সেই কথার বাস্তবায়নেই ইঙ্গিতটাও দারুণভাবে দিলেন সাকিব আল হাসান।